সমুদ্রতলে আশ্চর্য জাদুঘর|110479|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩০ অক্টোবর, ২০১৮ ১৫:১৮
সমুদ্রতলে আশ্চর্য জাদুঘর
অনলাইন ডেস্ক

সমুদ্রতলে আশ্চর্য জাদুঘর

পরিবেশ ও প্রকৃতি সংরক্ষণ এই সময়ের গুরুত্বপূর্ণ একটি ইস্যু। এ ব্যাপারে সচেতনতা বাড়াতে আয়োজনের শেষ নেই। তবে মেক্সিকোর এই উদ্যোগ একেবারেই অভিনব। সেখানে সমুদ্র তলদেশে গড়ে তোলা হয়েছে এক আশ্চর্য জাদুঘর।

এর অংশ হিসেবে কানকুন শহর, মুখেরেস দ্বীপ ও প্রবাল দ্বীপ পুনতা নিজুক ঘিরে স্থাপন করা হয়েছে পাঁচশ’র বেশি ভাস্কর্য। এর উদ্দেশ্য সামুদ্রিক প্রাণী রক্ষায় মানুষকে সচেতন করে তোলা।

কানকুন নটিক্যাল অ্যাসিসিয়েশনের সাবেক সভাপতি রবার্তো আব্রাহম ও ন্যাশনাল মেরিন পার্কের পরিচালক গনসালেস কানো ২০০৯ সালে এ উদ্যোগ নেন। তারা প্রাথমিকভাবে ইংরেজ ভাস্কর জেসন টেইলরকে ভাস্কর্য নির্মাণের দায়িত্ব দেন।

বিবিসি জানায়, শিল্পকলা ও পরিবেশ বিজ্ঞানের মধ্যে মিথষ্ক্রিয়া এবং সামুদ্রিক পরিসরে প্রবালের জটিল গঠন প্রক্রিয়া তুলে ধরাও এ জাদুঘরের লক্ষ্য। অনন্য এ জাদুঘর বর্তমানে বিশ্বে সমুদ্র তলদেশের অন্যতম শৈল্পিক আকর্ষণ।

প্রবাল জীবনকে উৎসাহিত করতে বিশেষ উপাদানে ভাস্কর্যগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। এতে ৪২০ বর্গ কিলোমিটারজুড়ে ফুটে উঠেছে বিচিত্র আকৃতি ও স্থাপত্য। দর্শনার্থীরা ডুবুরিদের মতো অক্সিজেন মাস্ক লাগিয়ে সাঁতরে বা স্কুবা ডাইভিং করে সমুদ্রতলের এসব ভাস্কর্য দেখতে পারবেন।