অকার্যকর অ্যান্টিবায়োটিকে বছরে ৫৮ হাজার শিশুর মৃত্যু|110701|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২০ নভেম্বর, ২০১৮ ১৬:৫১
‘ফার্মেসি দেশ’ ভারত
অকার্যকর অ্যান্টিবায়োটিকে বছরে ৫৮ হাজার শিশুর মৃত্যু
অনলাইন ডেস্ক

অকার্যকর অ্যান্টিবায়োটিকে বছরে ৫৮ হাজার শিশুর মৃত্যু

অ্যান্টিবায়োটিকের অকার্যকারিতায় পৃথিবীতে প্রতিবছর ৭ লাখ মানুষের মৃত্যু ঘটছে। এর মধ্যে শুধু ভারতেই মারা যাচ্ছে ৫৮ হাজার শিশু। ছবি: সংগৃহীত

অ্যান্টিবায়োটিকেও নির্মূল হচ্ছে না এমন রোগ ও জীবাণুর সংক্রমণে নতুন হুমকির মুখে পড়েছে ভারত। ফলে প্রতিবছর দেশটিতে ৫৮ হাজার শিশু মারা যাচ্ছে বলে এক গবেষণায় দেখা গেছে।

বিশ্ব অ্যান্টিবায়োটিক সচেতন সপ্তাহের শেষদিনে রোববার সেন্টার ফর ডিজিজ ডায়নামিকস ইকোনমিকস অ্যান্ড পলিসি (সিডিডিইপি) সতর্ক করে জানায়, অপরিশোধিত ময়লা-আবর্জনায় দূষিত পানির কারণে নানা রোগ-জীবাণুতে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। নষ্ট হচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্য। 

সিডিডিইপি জানায়, অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী কিছু শক্তিশালী ব্যাকটেরিয়া শুধু মানুষকেই আক্রান্ত করছে না, স্বাস্থ্য সুরক্ষা ব্যবস্থাকেও নিষ্ক্রিয় করে দিচ্ছে। পুরো পৃথিবীতে ৭ লাখ মানুষের মৃত্যু ঘটছে অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী শক্তিশালী ব্যাকটেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে, তার মধ্যে শুধু ভারতেই মারা যাচ্ছে ৫৮ হাজার শিশু।         

দেশটির সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানাচ্ছে, ২০১৭ সালের শুরুতেও অপরিশোধিত ময়লা-আবর্জনায় নদী দূষণ নিয়ে সতর্ক করে ভারত ও সুইডেনের যৌথ এক গবেষক দল।   

সিডিডিইপি’র গবেষণায় দেখা গেছে, ২০০০ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত পুরো পৃথিবীতে অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের পরিমাণ বেড়েছে ৬৫ শতাংশ। নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলোতে এর পরিমাণ ১১৪ শতাংশ। 

গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির দক্ষিণ এশিয়া প্রধান জয়তী যোশি বলেন, বেশি অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারকারী শীর্ষ দেশের একটি ভারত। বর্তমান স্বাস্থ্য সুরক্ষার বড় সংকট হচ্ছে, অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যকারিতা কমে এসেছে। সেই সঙ্গে অধিক কার্যকর অ্যান্টিবায়োটিকগুলোও ঝুঁকির মুখে রয়েছে।  

তিনি আরও বলেন, ওষুধের ব্যাপক ব্যবহারের কারণে বিশেষ করে অ্যান্টিবায়োটিকের জন্য ‘বিশ্বের ফার্মেসি দেশ’ হিসেবে পরিচিত ভারত এখন। ভারতের নদী ও পরিবেশ দূষণের ফলে এমন সব ব্যাকটেরিয়া ও জীবাণু সৃষ্টি হচ্ছে যা অ্যান্টিবায়োটিকের উপাদান থেকেও অনেক শক্তিশালী।