মেসি দ্যুতিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা|110819|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৯ নভেম্বর, ২০১৮ ১৪:৫০
মেসি দ্যুতিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা
অনলাইন ডেস্ক

মেসি দ্যুতিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা

বার্সেলোনা খেলোয়াড়দের গোল উদযাপন। ছবি: বার্সেলোনা টুইটার

নিজে গোল করলেন, করালেনও। লিওনেল মেসির এমন নৈপুণ্যে পিএসভি আইন্দহোভেনকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আগেই নক-আউট পর্ব নিশ্চিত করা বার্সেলোনা।

নেদারল্যান্ডসের ক্লাবটির মাঠে বুধবার রাতে ‘বি’ গ্রুপে নিজেদের পঞ্চম ম্যাচে ২-১ গোলের জয় পায় কাতালান ক্লাবটি। ম্যাচের তিনটি গোলই হয় দ্বিতীয়ার্ধে।

প্রথমার্ধে বেশ উত্তাপ ছড়ায় আইন্দহোভেন। এই সময়ে বেশ কয়েবার গোলের সুযোগ পেলেও জালে বল পাঠাতে পারেনি তারা। বার্সেলোনা খুব বেশি সুযোগ না পেলেও বল দখলে ছিল তাদের আধিপত্য। গোলশূন্যতায় শেষ হয় প্রথমার্ধ।

ম্যাচের ৬১তম মিনিটে অনেকটা একক প্রচেষ্টায় দলকে এগিয়ে নেন মেসি। ডি-বক্সের উপড় ডান কিনারায় উসমান দেম্বেলের পাস পেয়ে দুইজনকে পরাস্ত করে বাঁ পায়ের শটে জালে বল পাঠান আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

এই গোলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বার্সেলোনার হয়ে মেসির গোল হলো ১০৬টি। এক ক্লাবের হয়ে প্রতিযোগিতাটিতে গোলের তালিকায় ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোকে টপকে শীর্ষে উঠে এলেন ৩১ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়।

রিয়াল মাদ্রিদের জার্সিতে ১০৫টি গোল করে দীর্ঘদিন এই তালিকায় শীর্ষে ছিলেন রোনালদো। গত ৪ অক্টোবর টটেনহ্যাম হটস্পারের বিপক্ষে বার্সেলোনার ৪-২ ব্যবধানের জয়ে জোড়া গোল করে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের এই কীর্তিতে ভাগ বসান মেসি।

ম্যাচের ৭০তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে বার্সেলোনা। মেসির নেওয়া ফ্রি কিকে ডি-বক্সের মাঝামাঝি থেকে আলতো এক টোকায় জালে বল জড়ান ডিফেন্ডার জেরার্দ পিকে। খুব একটা নড়ার সুযোগ পেলেন না আইন্দহোভেনের গোলরক্ষক।

৮২ তম মিনিটে ডাচ ফরোয়ার্ড ডি ইয়ংয়ের দারুণ এক হেডে স্বাগতিক দল একটি গোল শোধ করলে জমে ওঠে লড়াই। তবে ম্যাচের বাকি সময়ে সমতাসূচক গোলের দেখা পায়নি দলটি।

এই জয়ে ‘বি’ গ্রুপে এখন পর্যন্ত পাঁচ ম্যাচ খেলে চার জয় ও এক ড্রয়ে বার্সেলোনার পয়েন্ট সর্বোচ্চ ১৩।

এদিন গ্রুপের অপর ম্যাচে নিজেদের মাঠে ১-০ গোলে ইন্টার মিলানকে হারিয়ে শেষ ষোলোয় ওঠার সম্ভাবনা ধরে রেখেছে টটেনহ্যাম হটস্পার। এই জয়ে তাদের পয়েন্ট হলো ইন্টারের সমান ৭। মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে থাকায় পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে টটেনহ্যাম; ইন্টার আছে তৃতীয় স্থানে।