কর্মক্ষেত্রে সফলতার ৬ টিপস|110908|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৪:৪৪
কর্মক্ষেত্রে সফলতার ৬ টিপস
অনলাইন ডেস্ক

কর্মক্ষেত্রে সফলতার ৬ টিপস

অনেকে হয়তো নতুন চাকরি শুরু করতে যাচ্ছেন, আবার অনেকে কোনো প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন। সবারই কর্মক্ষেত্রে ভালো কর্মী হওয়ার চেষ্টা থাকে। বর্তমান পদের চেয়ে ভালো কর্মী হতে চাইলে শেখার মানসিকতা থাকতে হবে। তেমন কিছু বিষয় তুলে ধরা হলো।

প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ভালো জানাশোনা: নিজের প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ভালো জ্ঞান থাকা উচিত। একজন ভালো কর্মী প্রতিষ্ঠানের কোথায় কী ঘটছে সে খবর রাখেন। এই ধারাবাহিতা ধরে রাখতে হবে। প্রতিষ্ঠানের ভালো খবরাখবর বা বিভিন্ন দিক পেশাগত ও সামাজিক ফোরামে তুলে ধরতে পারেন। এ বিষয়ে আরও জানতে খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠানের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পেজ ও প্রকাশনা পড়ুন নিয়মিত।

সক্রিয় থাকার চর্চা: সব বিভাগেই বিশেষ প্রয়োজনে কিছু দক্ষ কর্মীর প্রয়োজন পড়ে। এর জন্য নিজেকে প্রস্তুত রাখুন। এতে প্রতিষ্ঠানের বস ও সহকর্মীদের মাঝে আপনার কদর বাড়বে। টিমে একজন অপরিহার্য ব্যক্তি হয়ে উঠবেন। সবসময় নিজেকে প্রস্তুত রাখার পাশাপাশি নতুন ধারণা শেয়ার করতে হবে। কীভাবে আরও ভালো করা যায় তা নিয়ে আলোচনা করুন।

বহুমুখী কাজ থেকে সরে আসা: যে কোনো পরিস্থিতিতে বহুমুখী কাজ করতে হতে পারে। তবে কর্মক্ষেত্রে সবসময় কিছু নির্দিষ্ট দায়িত্ব আপনার উপর অর্পিত হয়। এসব কাজে পারদর্শী হতে হবে। ভালো কর্মী হতে হলে, কাজের গতি সবসময় সুষম রাখুন। গুরুত্বপূর্ণ কাজের ফাঁকে মেইল চেক বা টেক্সট করা থেকে বিরত রাখুন। এই কাজের জন্য নির্দিষ্ট সময় বরাদ্দ করুন।

ভালো শ্রোতা: কোনো একটি প্রজেক্টে কয়েকজন মিলে কাজ করতে হয়। টিমওয়ার্কে বস ও সহকর্মীদের কথায় মনোযোগ দিন। এর ফলে তাদের কাছে আপনার গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে। সহকর্মীদের সাহায্য করার জন্য প্রস্তুত থাকুন।

কাজে বিরতি: কোনো প্রজেক্ট শেষ না হওয়া পর্যন্ত লেগে থাকুন। কাজটি অন্যদের আগে সেরে ফেলতে হবে এমন প্রতিজ্ঞা অনেকে করে থাকেন। এমন মনোভাবের পাশাপাশি কাজে নিয়মিত বিরতির অভ্যাস করুন। হাঁটাহাঁটির জন্য কিছু সময় কাজে বিরতি নিন। এতে মন চাঙ্গা হবে এবং কাজের গতি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নতুন ধারণা মাথায় আসবে।

শখের কাজে নজর: বাড়ি ও অফিসের ভারসাম্যতা রক্ষা করতে গিয়ে চাকরি ক্ষেত্রে সফলতা ফিকে হয়ে আসে। অফিসে দীর্ঘ সময় ব্যয় করেন এবং আপনার শখের কোনো কাজে সময় দিতে পারছেন না- এমনটা করা যাবে না। অফিসের বাইরে খেলাধুলা, জিম, রান্নাবান্না, বাইকিং এমন শখ চালিয়ে যাবেন। এই কাজগুলো মন ভালো রাখে এবং অফিসেও কাজের গতি বাড়বে।