শীতকালে শিশুর যত্ন|112572|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০
শীতকালে শিশুর যত্ন

শীতকালে শিশুর যত্ন

ডা. শাহ্ মোহাম্মদ ফাহিম চিকিৎসক, পুষ্টি ও চিকিৎসাসেবা বিভাগ আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র

শীত এলেই শিশুদের ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। তাপমাত্রা কম থাকায় এ সময় শিশুদের শ্বাসতন্ত্রে ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। ফলে অ্যাজমা বা হাঁপানি, নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কিওলাইটিসসহ শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত যে কোনো সমস্যা শীতকালে বাড়তে পারে। এসবের পাশাপাশি শীতের সময়টাতে অনেক শিশুরই জ্বর, সর্দি-কাশি, হাঁচিসহ বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যা লেগে থাকে। তাই শীতকালে শিশুদের বাড়তি যত্ন নেওয়া প্রয়োজন।

শিশুর যত্নে করণীয়

শীতের সময় শিশুকে গরম কাপড় পরিয়ে রাখতে হবে। তবে সতর্ক থাকতে হবে, শিশু যেন ঘেমে না যায়। উলের পোশাকের পরিবর্তে সুতি কাপড়ের পোশাক ব্যবহার করাই উত্তম। খেয়াল রাখতে হবে, পোশাক যেন শিশুর জন্য আরামদায়ক এবং আবহাওয়ার সঙ্গে মানানসই হয়। শীতের তীব্রতা বেশি হলে শিশুকে মোজা পরিয়ে রাখা যেতে পারে।

বাসার কার্পেট থেকে বিভিন্ন ধরনের রোগ-জীবাণু শিশুদের শ্বাসতন্ত্রে প্রবেশ করতে পারে। তাই শীতের সময় বাসায় কার্পেট ব্যবহার না করাই ভালো। শিশুকে গোসল করানোর জন্য কুসুমগরম পানি ব্যবহার করা উচিত। শিশুর ‘ডায়পার’ সময়মতো বদল করে দিতে হবে। মলমূত্র ত্যাগের পর দীর্ঘক্ষণ ডায়াপার পরিয়ে রাখলে ঠান্ডা লেগে যেতে পারে।

শীতের সময় ঠান্ডাজাতীয় খাবার বিশেষ করে আইসক্রিম এবং কোল্ড ড্রিংকস বা কোমলপানীয় এড়িয়ে চলতে হবে। শিশুর খাবারের তালিকায় শীতকালীন শাকসবজি রাখুন। এই খাবারগুলো শিশুর শরীর সুস্থ রাখার পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি শিশুকে বিভিন্ন ধরনের মৌসুমি ফলমূল খেতে দিতে পারেন।  শীতকালে সর্দির কারণে অনেক সময় শিশুর নাক বন্ধ হয়ে যায়। নাক বন্ধ হয়ে থাকলে শিশুর শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা হতে পারে। এতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। চিকিৎসকের   নাকের ড্রপ ব্যবহার করলে শিশুর শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক হয়ে যাবে। তবে ড্রপ ব্যবহার করে উপকার না পেলে অবহেলা করা যাবে না। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে, চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া কোনো অবস্থাতেই শিশুকে অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ খাওয়ানো যাবে না। এতে শিশুর স্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে।

শীতে শিশুদের বিপদ চিহ্ন

শিশু অসুস্থ হলে তার শরীরে নিচের তিনটি বিপদ চিহ্ন আছে কি না তা লক্ষ রাখতে হবে :

১. শিশুর শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি দ্রুত হওয়া

২. শ্বাস-প্রশ্বাসের সময় বুকের পাঁজরের মাঝের অংশগুলো ভেতরের দিকে দেবে যাওয়া

৩. নিঃশ্বাসের সময় ঘড় ঘড় শব্দ হওয়া

এই বিপদ চিহ্নগুলো দেখা দিলে কিংবা শ্বাসকষ্টের সঙ্গে খাবার গ্রহণে অনীহা থাকলে, শিশুকে দ্রুত নিকটবর্তী কোনো হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে। আপনার শিশুর সুস্থতায় শীতের সময়টাতে সব ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করুন।

সম্পাদনা : লায়লা আরজুমান্দ।