কামরাঙ্গীরচরে আরবী বিশ্ববিদ্যালয় হবে: প্রধানমন্ত্রী|112892|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৯:০৯
কামরাঙ্গীরচরে আরবী বিশ্ববিদ্যালয় হবে: প্রধানমন্ত্রী
বিশেষ প্রতিনিধি

কামরাঙ্গীরচরে আরবী বিশ্ববিদ্যালয় হবে: প্রধানমন্ত্রী

সোমবার রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে নির্বাচনী জনসভায় প্রধানমন্ত্রী। ছবি: বাসস

কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্স এর সমমানের সনদের স্বীকৃতি দেওয়ার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা জানিয়েছেন, তার সরকার আবার ক্ষমতায় আসলে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে আরবি বিশ্ববিদ্যালয় হবে।

সোমবার দুপুরে কামরাঙ্গীরচরে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী জনসভায় তিনি এ আশ্বাস দেন।

জনসভায় শেখ হাসিনা তার নেতৃত্বাধীন সরকারের ১০ বছরে দেশের বিভিন্ন উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরেন। উপস্থিত জনতার কাছে তিনি জানতে চান, ‘আপনারা নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন তো?’ এ সময় উপস্থিত জনতা হাত তুলে নৌকায় ভোট দেওয়ার পক্ষে সমর্থন জানান।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা সার্বিকভাবে উন্নয়নের মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। এর ধারাবাহিকতা রাখা একান্ত প্রয়োজন।

ঢাকা-৬ আসনে জাতীয় পার্টির (জাপা) লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী কাজী ফিরোজ রশীদকে পরিচয় করিয়ে দিতে গিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এখানে আমরা দিয়েছি (মনোনয়ন) অ্যাডভোকেট কাজী ফিরোজ রশীদকে। কোনো অসুবিধা নাই, ভবিষ্যতে আমরা লাঙ্গল নৌকায় তুলে নেব। তবে এখন লাঙ্গল মার্কায় ঢাকা-৬ আসনে কাজী ফিরোজ রশীদের জন্য আমরা ভোট চাচ্ছি।

শেখ হাসিনা বলেন, তিনি (ফিরোজ রশীদ) ছাত্রলীগ করেছিলেন, এখন করেন জাতীয় পার্টি। চলে গেছেন এরশাদ সাহেবের সঙ্গে। জাতীয় পাটির প্রার্থী হিসেবে লাঙ্গল মার্কা নিয়ে তিনি এখন নির্বাচন করছেন।   

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আবুল হাসনাতের সভাপতিত্বে জনসভা সঞ্চালন করেন সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ। এছাড়া ঢাকা মহানগরীর দক্ষিণ এলাকার অন্তর্ভুক্ত ৮ সংসদীয় আসনে মহাজোট ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। এ সময় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা প্রার্থীদের পরিচয় করিয়ে দেন।

অন্যান্য প্রার্থীদের মধ্যে ঢাকা-৩ আসনের নৌকার প্রার্থী নসরুল হামিদ বিপু ও ঢাকা-১০ আসনের ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস নির্বাচনী প্রচারে থাকায় জনসভায় উপস্থিত ছিলেন না।

নিজ ভাষণে শেখ হাসিনা বলেন, ঢাকার মানুষ যাতে নাগরিক সেবা ভালোভাবে পায়, সে জন্য প্রত্যেকে ইউনিয়নকে আমরা মহানগরের সঙ্গে সম্পৃক্ত করে দিয়েছি। ১৭ ইউনিয়ন, ঢাকাকে আমরা উত্তর এবং দক্ষিণ- এ ভাবে ভাগ করে দিয়েছি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের সব মানুষ সুন্দরভাবে বাঁচবে। আপনাদের কাছে আমরা ভোট চাই। আমাদের ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করুন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগামী নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় আসতে পারলে দেশের কোনো মানুষ আর দরিদ্র থাকবে না। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন শুধু তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়েছে, কিন্তু জনগণের কোনো উন্নয়ন হয়নি।

বিএনপির সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, আমি আপনাদের কাছে অনুরোধ করব, আগামী নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তারা (বিএনপি) এ দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে, অগ্নিসন্ত্রাস করেছে, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা করে মানুষ হত্যা করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা (বিএনপি) জোর করে ক্ষমতায় এসে মানুষের ওপর নির্যাতন, শোষণ ও অত্যাচার শুরু করে। তাই বিএনপিকে জনগণ ক্ষমতায় দেখতে চায় না।