জয়ে আত্মবিশ্বাসী ফারুক পার্থ আছেন অনলাইনে|113786|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০
জয়ে আত্মবিশ্বাসী ফারুক পার্থ আছেন অনলাইনে
ইমন রহমান

জয়ে আত্মবিশ্বাসী ফারুক পার্থ আছেন অনলাইনে

রাত পোহালেই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটযুদ্ধ শুরু। নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ঢাকা-১৭ আসনে জয়ের বিষয়ে আশাবাদী আওয়ামী লীগের প্রার্থী চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান ফারুক। গত বৃহস্পতিবার জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ সরে যাওয়ার ঘোষণা দেওয়ায় তার আত্মবিশ্বাস আরো বেড়েছে। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষের প্রার্থী আন্দালিব রহমান পার্থকে ভোটের মাঠে দেখা না গেলেও অনলাইনে ভোটারদের উজ্জীবিত করতে দেখা গেছে।

নির্বাচন কমিশনের বেঁধে দেওয়া সময় অনুযায়ী, গতকাল শুক্রবার সকাল ৮টায় নির্বাচনী প্রচার শেষ হয়েছে। এর আগে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা গতকাল ভোররাত পর্যন্ত প্রচার চালিয়েছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। সকালে ভোট চাওয়ার সুযোগ শেষ হওয়ার পর ১০টার দিকে নির্বাচনের কেন্দ্র পরিদর্শন করেন ফারুক।

৫০ কেন্দ্রের আসনে ভোটারদের কাছে প্রত্যাশা নিয়ে জানতে চাইলে ফারুক গতকাল দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘এইচ এম এরশাদের নেতাকর্মীরা আমাকে পূর্ণ সমর্থন দিচ্ছে; প্রচারে আমার সঙ্গে থাকছে। আমি তাদের কাছে

কৃতজ্ঞ। ঢাকা-১৭ আসনের জনসাধারণ আমাকে যে সমর্থন দিচ্ছে, তাতে জায়ের ব্যাপারে আমি আশাবাদী।’

জাপার সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এস এম ফয়সাল চিশতি দেশ বলেন, ‘পল্লীবন্ধু এরশাদের নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা নৌকার পক্ষে কাজ করছি। আওয়ামী লীগকে সর্বাত্মক সহায়তা করছি। একসঙ্গে প্রচারণা চালাচ্ছি।’

গতকাল প্রচার শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত আসনটিতে ধানের শীষের প্রার্থী পার্থের পক্ষে প্রচার দেখা যায়নি। তার বক্তব্য জানতে গত তিন দিন মুঠোফোনে চেষ্টা করেও পাননি এ প্রতিবেদক। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেইসবুকে বেশ সক্রিয় তিনি।

গতকাল এক পোস্টে পার্থ লেখেন, ‘নৌকার ব্যাজ পরবেন, নৌকার বুথ থেকে ভোটার নাম্বার নিবেন, ‘নৌকা নৌকা’ বলে কেন্দ্রে ঢুকবেন। এরপর ধানের শীষে সিল মেরে ‘নৌকা নৌকা’ বলতে বলতে ফিরে আসবেন। এটা সবার মাঝে ছড়িয়ে দিন : কমেন্টে, পোস্টে, মেসেজে, মুখে মুখে।’

আরেক পোস্টে তিনি লেখেন, ‘আওয়ামী লীগ প্রায় সময় বলে থাকে, বিএনপি-জামায়াত পেট্রলবোমা মেরে মানুষ হত্যা করে এবং এই নাশকতার দায়ে বিএনপি-জামায়াতের হাজার হাজার নেতাকর্মীর নামে মিথ্যা, বানোয়াট মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। আমাদের নেতাকর্মীরা অসহায়ের মতো কারাভোগ করেছে। আসুন দেশরক্ষার সংগ্রামে

আরেকটিবার আমরা একতাবদ্ধ হই, নিজের ভোট নিজে দিই; ভোটচোর, ডাকাতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাই। জয় ইনশাল্লাহ আমাদেরই হবে। কেউ কিছু না করতে পারলেও কোমরে শক্ত বেল্ট এবং লাঠির সঙ্গে জাতীয় পতাকা বেঁধে বের হই। ইনশাল্লাহ বিজয় নিয়েই ঘরে ফিরব আমরা।’

আরেকটি পোস্টে সেনাবাহিনীকে নিয়ে পার্থ লেখেন, ‘ওদের উপস্থিতিই আমাদের স্বস্তি দেয়। ঢাকায় সেনাবাহিনী রাস্তায় তল্লাশি করছে সকাল থেকে, এটা নিঃসন্দেহে ইতিবাচক সংবাদ।’

ঢাকা-১৭ আসনে ১১ জন প্রার্থী রয়েছেন। এরশাদ আওয়ামী লীগকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ায় আসনটিতে নৌকা আর ধানের শীষের মধ্যেই হবে মূল লড়াই বলে ধারণা ভোটারদের।

আসনটিতে আরো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল থেকে বাঘ প্রতীক নিয়ে আলী হায়দার, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) থেকে টেলিভিশন প্রতীকে বর্তমান সাংসদ এস এম আবুল কালাম আজাদ, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) থেকে মই প্রতীকে এস এম আহসান হাবিব, জাকের পার্টি থেকে গোলাপ প্রতীকে কাজী রাশিদুল হাসান, সিংহ প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী নাজমুল হুদা, দালান প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আবদুর রহিম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে হাতপাখা প্রতীকে আমিনুল হক তালুকদার ও কুলা প্রতীকে বিকল্প ধারা বাংলাদেশের অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট কর্নেল এ কে এম সাইফুর রহমান।