উজ্জীবিত প্রথম ভোটাররা|114005|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০
উজ্জীবিত প্রথম ভোটাররা
মদিনা জাহান রিমি

উজ্জীবিত প্রথম ভোটাররা

‘প্রথম ভোট’ তারুণ্যের কাছে বেশ উত্তেজনার। তারুণ্য মানেই শক্তি আর অনুপ্রেরণার। আজ রবিবার একদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। প্রথমবারের মতো ভোট দিচ্ছেন প্রায় এক কোটি ২৩ লাখ তরুণ। এই ভোটই হতে পারে ফলাফলের অন্যতম কারণ। কিন্তু প্রথম ভোট দেওয়া নিয়ে কী ভাবছেন তরুণরা? তাদের এক একটা ভোট হবে রাষ্ট্রক্ষমতার ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অংশ। এই শক্তিকে কীভাবে অনুভব করেন তারা? প্রায় সব তরুণই প্রথম ভোটাধিকার প্রয়োগে উজ্জীবিত। তবে ব্যতিক্রম যে নেই তা নয়; অনেকের রয়েছে ভোট দেওয়ার ব্যাপারে অনাগ্রহ। কিন্তু কেন?

অনেক তরুণ-তরুণী মনে করেন রাজনীতি নয়, রাজনীতিকদের ইমেজ তাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। ‘প্রতীক’ নয়, ব্যক্তি হিসেবে প্রার্থী কেমন তা বিবেচ্য। আবার অনেকেই মনে করেন, নির্বাচনী সহিংসতা, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা কাম্য নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের সাংবাদিকদের গবেষণা সংস্থা ‘ওর্ব মিডিয়া’ ১২৮টি দেশের তরুণদের নির্বাচন ভাবনা নিয়ে গবেষণা করে। সেখানে দেখা যায়, বিশ্বব্যাপী রাজনীতি নিয়ে উৎসাহী তরুণ-তরুণীদের একটি সংখ্যা রাজনৈতিক গতানুগতিক প্রচলিত প্রথা প্রত্যাখ্যান করেছে। নৈতিকতার প্রশ্নে তারা প্রথাবিরোধী প্রতিবাদী। কিন্তু বাংলাদেশের তরুণ-তরুণীদের অনেকেই ‘নির্বাচন’ শব্দটাতেই উৎসাহী নয়। 

ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাব্বির। এবার প্রথম ভোটার। প্রথম ভোটাধিকারের ব্যাপারে তার অনুভূতি জানতে চাইতে সাব্বির দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বাংলাদেশের রাজনীতি, নির্বাচন, নেতা কোনো কিছু নিয়েই আমার কোনো আগ্রহই নেই।’ আমি ঢাকা-৫ আসনের ভোটার, এই আসনে নৌকার প্রার্থী হাবিবুর রহমান মোল্লা কিন্তু ধানের শীষের প্রার্থী কে, আমি জানিই না।’

তবে ভিন্ন কথা একই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী খাদিজা কবির সুমীর। তিনি প্রথম ভোট দেওয়ার ব্যাপারে বেশ উজ্জীবিত। তিনি বলেন, ‘আমার মধ্যে একটা সাধারণ উত্তেজনা কাজ করছে কিন্তু যেহেতু এটা প্রথম ভোট, বাবার পরামর্শে দেব। আমার নিজের কোনো পছন্দ নেই। বাবা বলেছেন, ভোট আমাদের নাগরিক অধিকার তাই অবশ্যই ভোটকেন্দ্রে যেতে হবে। বাংলাদেশের কোনো দলকেই আমার ব্যক্তিগতভাবে ভালোলাগে না। নতুন কোনো দল গঠিত হলে খুশি হতাম।’  

সুমীর মতো বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্রী নওমীও প্রথম ভোট দিতে বেশ আগ্রহী। কিন্তু নওমী বললেন, “আমি হয়তো ভোট দিতে যাব না। কিন্তু টেলিভিশন এবং পত্রিকায় ভোটের খবর জানতে ভালোলাগে। আমার বাবা ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার ব্যাপারে দুশ্চিন্তার কথা প্রকাশ করেছেন। তাদের মতে, ‘রিস্ক’ নিয়ে ভোট দিতে যাওয়ার মানে হয় না।” 

প্রথম ভোট দেওয়ার ব্যাপারে উৎসাহী অধিকাংশ তরুণ। বুয়েটের ছাত্রী চয়ন বলেন, ‘মনে হচ্ছে ভোট হচ্ছে নৌকা বনাম নৌকা। রাজনৈতিক দল হিসেবে নৌকা অনেক গুছানো। তারা জয়ী হলে উন্নয়ন হবে।’ নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শুভ্র বলেন, ‘যখন যেই প্রজন্ম চলে, সেই প্রজন্মকে প্রাধান্য দেওয়া হয় বলে আমার ধারণা, আমরা যে আলাদাভাবে এই প্রাধান্য পাচ্ছি এমন কিছু নয়।’