জামানতের টাকা ফেরত চাইলেন হিরো আলম|114304|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২১:০৬
জামানতের টাকা ফেরত চাইলেন হিরো আলম
বগুড়া প্রতিনিধি

জামানতের টাকা ফেরত চাইলেন হিরো আলম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনের আলোচিত স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম জামানতের টাকা ফেরত চেয়েছেন। নিজের সমর্থকদের ভোট দিতে দেওয়া হয়নি অভিযোগ করে হিরো আলম বলেন, তাহলে জমা দেওয়ার টাকা ফেরত দেওয়া হবে না কেন।

নির্বাচনের পর দিন জামানত হারানোর বিষয়ে হিরো আলম সোমবার সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় তিনি সুষ্ঠু ভোট হলে বিপুল ভোটে জিততেন জানিয়ে বলেন, ভোট হতে দেওয়া হয়নি।

হিরো আলম বলেন, ‘হামার লোকজনোক তো ভোটই দিবের দেয়নি। তারা তালে জমা দেওয়ার ট্যাকা ফেরৎ দিবিনে ক্যা। এই ভোটই তো হামি মানিনে, তাই জমা দেওয়া ট্যাকা তারকোরোক ফিরে দিতেই হবি। সুষ্ঠু ভোট হলে তো হামি বিপুল ভোটে জিতনোহিনি। ভোট হবার দেয়নি, হামাকও তারা মারছে, হামার লোকজনোকও মারছে।’

উল্লেখ্য, প্রদত্ত ভোটের এক অষ্টমাংশ না পাওয়ায় বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনের আলোচিত প্রার্থী হিরো আলমসহ চার প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ওই আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ১১ হাজার ৯৪১। এর মধ্যে ২ লাখ ২১ হাজার ৩৩০ জন ভোটারের ভোট বৈধ বলে বিবেচিত হয়েছে। প্রদত্ত বৈধ ভোটের এক অষ্টমাংশ হিসেবে প্রত্যেক প্রার্থী ন্যূনতম ২৭ হাজার ৬৬৬ ভোট না পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হবে।

হিরো আলম সিংহ প্রতীকে মাত্র ৬৩৮ ভোট। এর মধ্যে কাহালু উপজেলায় ২৭২ ভোট এবং নন্দীগ্রাম উপজেলায় ৩৬৬ ভোট পেয়েছেন তিনি। অপর প্রার্থীদের মধ্যে ইসলামী আন্দোলনের ইদ্রিস আলী পেয়েছেন ৫ হাজার ৫৭ ভোট, তরিকত ফেডারেশনের কাজী এম এ কাসেম পেয়েছেন ৪৮৩ ভোট, এনপিপির আইয়ুব আলী পেয়েছেন ৩২১ ভোট এবং বিএনএফের জীবন রহমান পেয়েছেন ১৪৮ ভোট।