সাহিত্যিক দিব্যেন্দু পালিত আর নেই|114845|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৮:২১
সাহিত্যিক দিব্যেন্দু পালিত আর নেই
অনলাইন ডেস্ক

সাহিত্যিক দিব্যেন্দু পালিত আর নেই

চিরনিদ্রায় চলে গেলেন পশ্চিমবঙ্গের প্রখ্যাত সাহিত্যিক দিব্যেন্দু পালিত। বৃহস্পতিবার সকালে যাদবপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

এর আগে গত বুধবার শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার কারণে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৭৯ বছর। ভারতীয় একাধিক সংবাদমাধ্যমের খবরে এই তথ্য জানা গেছে।

দিব্যেন্দু পালিতের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়সহ অনেকে। শিক্ষাবিদ ও গবেষক পবিত্র সরকার বলেন, ‘সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় সময়কার সবচেয়ে কুশলী রূপকার ছিলেন দিব্যেন্দু পালিত।’ 

১৯৩৯ সালের ৫ মার্চ ভারতের বিহারের ভাগলপুরে জন্মগ্রহণ করেন দিব্যেন্দু। সেখানে স্কুল-কলেজের পাঠ শেষ করে ষাটের দশকে কলকাতায় আসেন। কলকাতা জীবনের শুরুর দিকে ভীষণ অর্থকষ্টে ছিলেন তিনি। শিয়ালদহ স্টেশনেও থাকতে হয়েছে তাকে।

অর্থকষ্টের মাঝেও তিনি সাহিত্যচর্চা থেকে বিচ্যুত হননি। ১৯৬১ সালে তুলনামূলক সাহিত্য বিষয়ে এমএ সম্পন্ন করেন। এরপর দৈনিক হিন্দুস্তান স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকায় সাব এডিটর হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন।

দীর্ঘকাল যুক্ত ছিলেন ক্ল্যারিয়ন-ম্যাকান অ্যাডভাটাইজিং সার্ভিসেস, আনন্দবাজার সংস্থা এবং দ্য স্টেটম্যান-এ। পরবর্তীতে আনন্দবাজার পত্রিকার সম্পাদকীয় বিভাগেও কাজ করেন তিনি।

ভাগলপুর কলেজে পড়ার সময়ই তার লেখা গল্প বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হতে থাকে। মাত্র ১৬ বছর বয়সেই তার লেখা গল্প ছাপা হয় ‘দেশ’ পত্রিকায়।

২০ বছর বয়সে প্রথম উপন্যাস গ্রন্থ ‘সিন্ধু বারোয়াঁ’ প্রকাশিত হয়। এরপর গল্পকার, ঔপন্যাসিক, প্রাবন্ধিক, সাংবাদিক পরিচয়ে খ্যাতি অর্জন করেন দিব্যেন্দু পালিত। ১৯৮৪ সালে আনন্দ পুরস্কার, ১৯৮৬ সালে রামকুমার ভুয়ালকা পুরস্কার, ১৯৯০ সালে বঙ্কিম পুরস্কার, ১৯৯৮ সালে সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কার সম্মাননা পেয়েছেন তিনি। ইংরেজি ও বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়েছে তার লেখা।