যে কারণে গলা কেটে খুন করা হয় উবার চালককে|152078|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩০ জুন, ২০১৯ ১৭:৩৮
যে কারণে গলা কেটে খুন করা হয় উবার চালককে
নিজস্ব প্রতিবেদক

যে কারণে গলা কেটে খুন করা হয় উবার চালককে

চলন্ত অবস্থায় উবার চালককে গলা কেটে খুনের রহস্য অবশেষে উন্মোচিত হয়েছে। 

রবিবার দুপুরে রাজধানীর ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. আব্দুল বাতেন জানান এ হত্যার কারণ।

তিনি বলেন, এলিয়ন মডেলের গাড়ি জোগাড় করতে গিয়ে ওই উবার চালক আরমানকে হত্যা করা হয়। 

এ ঘটনায় শনিবার ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে আরমান হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সিজান (২৪), শরিফ (১৯) ও সজিবকে (২০) গ্রেপ্তার করে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। গ্রেপ্তারের পর আসামিদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী হত্যায় ব্যবহৃত দুইটি সুইচ গিয়ার চাকু উদ্ধার করা হয়।

অতিরিক্ত কমিশনার মো. আব্দুল বাতেন বলেন, ‘সিজান আগেও গাড়ি ছিনতাই করেছে। সে এক ব্যক্তিকে আট লাখ টাকায় এলিয়ন মডেলের গাড়ি সরবরাহের চুক্তি করে। এরপর ওই গাড়ি ছিনতাইয়ের উদ্দেশে সিজান রামপুরায় তার বাসার ছাদে শরিফকে নিয়ে পরিকল্পনা সাজায়। একপর্যায়ে তাদের সঙ্গে সজিবকেও যুক্ত করে।’

তিনি বলেন, ‘১৩ জুন রাত ১২টা থেকে এক ঘণ্টার মধ্যে উত্তরা পশ্চিম থানাধীন ১৪ নম্বর সেক্টরের ১৬ নং রোডের ৫২ নং বাড়ি সামনে গাড়ির মধ্যে চালক আরমানকে গলাকেটে হত্যা করা হয়।’

হত্যাকারীদের পরিকল্পনা সম্পর্কে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৩ জুন নিউমার্কেট থেকে দুটি সুইচ গিয়ার চাকু কেনে তারা। রাত আনুমানিক ১১টার দিকে রামপুরা থেকে সিজান উবারের মাধ্যমে গাড়ি কল করলে সেটি এলিয়ন না হওয়ায় কল বাতিল করে দেয়। এভাবে পঞ্চম চেষ্টায় পেয়ে যায় উবার চালক আরমানের এলিয়ন মডেলের গাড়িটি। এরপর গাড়িতে তারা উত্তরার উদ্দেশে রওনা হয়। উত্তরা পশ্চিম থানাধীন ১৪ নম্বর সেক্টরের ১৬নং রোডে নীরব জায়গায় গাড়িটি থামাতে বলে ছিনতাইকারীরা। ভাড়া পরিশোধ না করে ২০ মিনিট অপেক্ষা করে তারা। পরে আনুমানিক রাত ১২টা ৩৭ মিনিটের দিকে চারদিক নিরাপদ মনে করে সিজানের ইশারায় চালকের পেছনের সিটে বসা শরিফ আরমানের মাথার চুল পেছনের দিকে টেনে ধরে চাকু দিয়ে গলা কেটে গাড়ি থেকে নেমে যায়। পরবর্তী সময়ে আশপাশে পরিবেশ অনুকূল না হওয়ায় আরমানের লাশসহ গাড়িটি রেখে তারা পালিয়ে যায়।’