মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বিটকয়েনের এক দশক

আপডেট : ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ০৭:১৬ পিএম

বিশ্বের প্রথম ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন বুধবার উদযাপন করেছে ১০ম জন্মদিন। এই এক দশকে অন্যান্য ডিজিটাল মুদ্রার ভিড়ে বিটকয়েনের উত্থানে বিশ্ব দরবারের নজরে এসেছে ব্লকচেইন প্রযুক্তি। আর এর অপব্যবহার ও হ্যাকিং দুর্বলতা নিয়ে নিয়ন্ত্রকদের উদ্বেগ বেড়েছে।

বিটকয়েন কী

বিটকয়েন এক ধরনের ডিজিটাল মুদ্রা। অনলাইনে ডলার-পাউন্ড-ইউরোর পাশাপাশি কেনাকাটা করা যায় এই মুদ্রায়। বিটকয়েন লেনদেনে কোনো ব্যাংকিং ব্যবস্থা নেই। ইলেকট্রনিক মাধ্যমে অনলাইনে দুজন ব্যবহারকারীর মধ্যে সরাসরি (পিয়ার-টু-পিয়ার) আদান-প্রদান হয়। লেনদেনের নিরাপত্তার জন্য ব্যবহার করা হয় ক্রিপ্টোগ্রাফি পদ্ধতি।

জানা গেছে, ২০০৮ সালে সাতোশি নাকামোতো ছদ্মনামের কেউ কিংবা একদল সফটওয়্যার ডেভেলপার নতুন ধরনের ভার্চ্যুয়াল মুদ্রার প্রচলন করে। এ ধরনের মুদ্রা ক্রিপ্টোকারেন্সি নামে পরিচিতি পায়। নাকামোতোর উদ্ভাবিত এই ক্রিপ্টোকারেন্সির নাম দেয়া হয় বিটকয়েন।

বিটকয়েনের প্রথম দশকের উল্লেখযোগ্য মাইলফলকগুলো নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। তারই আলোকে এক নজরে বিটকয়েন-

৩১ অক্টোবর, ২০০৮

এখনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি ‘সান্তোশি নাকামোতোর’। অজ্ঞাত পরিচিত এই ব্যক্তি নয় পৃষ্ঠার এক একাডেমিক পেপার প্রকাশ করেছে। বিটকয়েন কীভাবে কাজ করবে, সেই বিষয়ে বিস্তারিত রয়েছে এই পেপারে। ‘বিটকয়েন: আ পিয়ের-টু-পিয়ের ইলেক্ট্রনিক ক্যাশ সিস্টেম’র ব্লকচেইন ডিসেন্ট্রালাইজড লেজার সম্পর্কে প্রথম বিস্তারিত তথ্য দেয়। এই ব্লকচেইন ডিসেন্ট্রালাইজড লেজার প্রযুক্তি ডিজিটাল মুদ্রার কার্যক্রমে লক্ষ্য রাখে।

৩ জানুয়ারি, ২০০৯

ব্লকচেইনে বিটকয়েনের প্রথম ‘ব্লক’ স্থাপন করেন নাকামোতো। এর কিছু দিন পর লেনদেনে প্রথমবারের মতো বিটকয়েন ছাড়েন তিনি।

১২ জানুয়ারি, ২০০৯

প্রথম বিটকয়েন লেনদেন শুরু হয় নাকামোতো ও ডেভেলপার হাল ফিনের মধ্যে। এই লেনদেন রেকর্ড করা হয় ১৭০টি ব্লকে।

১২ অক্টোবর, ২০০৯

ফিনল্যান্ডের সফটওয়্যার ডেভেলপার মার্ত্তি মালমি নিউ লিবার্টি স্ট্যান্ডার্ডে ৫ ডলার শূন্য ২ সেন্টে ছাড়েন ৫ হাজার ৫০টি বিটকয়েন। বিটকয়েন ফোরামে নিয়মিতদের একটি এই নিউ লিবার্টি স্ট্যান্ডার্ড। নতুন বিটকয়েন এক্সচেঞ্জ সাইটের কার্যক্রম শুরুর জন্য বিটকয়েনের ব্যবহার পরিচিত নিউ লিবার্টি স্ট্যান্ডার্ড হিসেবে। এই লেনদেনে ব্যবহার করা হতো আমেরিকান অনলাইন পেমেন্ট পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান পেপল।

অক্টোবর, ২০০৯

নিউ লিবার্টি স্ট্যান্ডার্ড বিটকয়েনের মূল্য নির্ধারণ করে দেয়। ১ হাজার ৩০৯ দশমিক শূন্য তিন বিটকয়েনের দাম নির্ধারণ করা হয় ১ ডলার।

ফেব্রুয়ারি, ২০১০

বিশ্বের প্রথম বিটকয়েনের বাজার প্রতিষ্ঠা করা হয়।

২২ মে, ২০১০

১০ হাজার বিটকয়েন দিয়ে দুটো পিজা কেনেন সফটওয়্যার ডেভেলপার লাসলো হানেকজ। এর মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো পণ্য কেনায় ব্যবহার হলো বিটকয়েন।

৭ জুলাই, ২০১০

ডেভেলপারদের একটি কমিউনিটি উন্মোচন করেন বিটকয়েনের নতুন সফটওয়্যার। এই সফটওয়্যার উন্মোচনের পরবর্তী ৫ দিনের মধ্যেই বিটকয়েনের বিনিময় মূল্য বেড়ে যায় ১০ গুণ। 

১৭ জুলাই, ২০১০

উন্মোচন হয় টোকিওভিত্তিক বিটকয়েন এক্সচেঞ্জ ‘এমটিডট গক্স’। পরবর্তীতে ২০১৪ সালে দেউলিয়া হওয়ার আগে বিশ্বের বৃহৎ বিটকয়েন এক্সচেঞ্জে পরিণত হয় এটি।

২৮ নভেম্বর, ২০১৩

বিটকয়েনের দাম প্রথমবারের মতো বেড়ে ঠেকে ১ হাজার ডলারে। তবে এর একদিন পরেই দাম কমে যায়। পরবর্তী তিন বছরে ১ হাজার ডলার স্পর্শ করতে পারেনি বিটকয়েন।

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৪

হ্যাকাররা প্রায় সাড়ে ৮ লাখ বিটকয়েন চুরি করার পর দেউলিয়াত্ব সুরক্ষার জন্য নথিভুক্ত করে এমটিডট গক্স। এই সাড়ে ৮ লাখ বিটকয়েনের দাম নগদে ২ কোটি ৮০ লাখ ডলার। ডিজিটাল কয়েনের বাজারে সবচেয়ে বড় অঙ্কের চুরি এটি। এতে বিটকয়েন বিনিময়ে নিরাপত্তা ত্রুটি পরিলক্ষিত হয়। পাশাপাশি এই অনিয়মিত খাতে ঝুঁকির মুখে পড়েন বিনিয়োগকারীরা।

১ আগস্ট, ২০১৭

বিটকয়েন ক্যাশ তৈরির জন্য বিটকয়েনে থাকা সফটওয়্যার কোড দুই ভাগে ভাগ করা হয়। এটিকে বিটকয়েনের ক্লোন বলা যায়। এই পদক্ষেপটি পরিচালিত হয় চীন থেকে। কারণ মুদ্রা প্রযুক্তির নির্ধারিত ইতিবাচক ধারা নিয়ে খুশি ছিল না চীন। লেনদেন প্রক্রিয়ায় নিজের ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্যই বিটকয়েনের ক্লোন তৈরির উদ্যোগ নেয় দেশটি।

১০ ডিসেম্বর, ২০১৭

শিকাগো এক্সচেঞ্জ নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান শিকাগো বোর্ড অপশন্স এক্সচেঞ্জ গ্লোবাল মার্কেটস ও আমেরিকার আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান সিএমই গ্রুপ যৌথ উদ্যোগে চালু করে বিটকয়েনের ফিউচার ট্রেডিং সিস্টেম। এর মাধ্যমে ডিজিটাল মুদ্রার দামে বাজি ধরার সুযোগ পান মূলধারার পেশাদার বিনিয়োগকারীরা।

১৮ ডিসেম্বর, ২০১৭

ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জ বিটসস্ট্যাম্পে বিটকয়েনের দাম রেকর্ড বেড়ে পৌঁছে ১৯ হাজার ৬৬৬ ডলারে।

২৯ জুন, ২০১৮

বিশ্বজুড়ে বিটকয়েনের ওপর নিয়মনীতি কঠোর করায় ২০১৭ সালের ডিসেম্বরের পর এই ডিজিটাল মুদ্রার দাম পৌঁছে সর্বনিম্নে।

১৯ অক্টোবর, ২০১৮

সরকারের কিভাবে ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জ নিয়ন্ত্রণ করা উচিত, সে বিষয়ে নতুন বিধি প্রণয়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন বৈশ্বিক অর্থপাচার নিয়ন্ত্রক গোষ্ঠী।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত