মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

মোটরসাইকেলে উড়লো দুবাই পুলিশ

আপডেট : ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ০৩:৩০ পিএম

কুকর্ম করে দৌড় দেওয়ার আগেই পুলিশ উড়ে এসে ধরে ফেলল অপরাধীকে, এমন দৃশ্য নিশ্চয়ই সিনেমাতে সম্ভব। কিন্তু না, বাস্তবে এমনটি ঘটতে আর বেশি দেরি নেই। ইতোমধ্যে উড়ুক্কু মোটরসাইকেল নিয়ে প্রশিক্ষণ শুরু করেছে দুবাই পুলিশ।

সিএনএন জানাচ্ছে, উড়ন্ত যানবাহন নির্মাণের যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান হোভারসার্ফের সাথে ২০১৭ সালের একটি চুক্তি হয় দুবাই পুলিশের। চুক্তি অনুসারেই প্রতিষ্ঠানটি দুবাই পুলিশকে প্রথম পর্যায়ের হোভারবাইক নামের উড়ন্ত মোটরসাইকেল সরবরাহ করেছে। সেই সঙ্গে চালানোর প্রশিক্ষণও দিচ্ছে। 

সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমটিকে দুবাই পুলিশের আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ডিপার্টমেন্টের জেনারেল ডিরেক্টর ব্রিগিডিয়ার খালিদ নাসের আলরাজুকি বলেন, যেসব এলাকায় পৌঁছতে অসুবিধায় পড়তে হয় পুলিশকে- সেখানেই হোভারবাইক ব্যবহার করা হবে। ২০২০ সাল নাগাদ এসব সাইকেলকে পুরোপুরি পুলিশি অভিযানে দেখা যাবে। 

এক সিটের যানটি ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৬০ মাইল এবং পাইলটসহ ১০-২৫ মিনিট আকাশে ভেসে বেড়াতে সক্ষম। এছাড়া ৬০০ পাউন্ড ওজন বহন করে অনায়াসেই চলতে পারে।

তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি আমরা দুইজনকে হোভারবাইক চালানোর প্রশিক্ষণ দিয়েছি। ধীরে ধীরে প্রশিক্ষণার্থী  বাড়ানো হবে।

হোভারসার্ফের চিফ অপারেটিং অফিসার জোসেফ সেগুরা-কন বলেন, মোটরসাইকেলের পাশাপাশি ড্রোন অপারেটিংয়ের অভিজ্ঞতা থাকলে উড়ন্ত বাইক চালানো যে কারো জন্য সহজ।

এদিকে দুবাই পুলিশ তাদের বহরে আরও উড়ন্ত বাইক যুক্ত করার কথা জানিয়েছে। এ বিষয়ে জোসেফ বলেন, তারা আমাদের কাছে জানতে চেয়েছে দুই-একমাসের মধ্যে আরও বাইক সরবরাহ করতে পারবে কিনা। আমরা বলেছি, ৩০/৪০টি যাই লাগে দিতে পারব।

সাধারণ নাগরিকরাও চাইলে উড়ন্ত মোটরবাইক চালাতে পারবে এমনটাই জানান জোসেফ। তিনি বলেন, কোন বাহিনীর সদস্য না হয়েও যে কেউ চাইলে এ মোটরবাইক কিনতে পারবে। সেজন্য তাকে খরচ করতে হবে দেড় লাখ ডলার। তবে তাদেরকে নিশ্চয়তা দিতে হবে যে এই নতুন প্রযুক্তি নিয়ন্ত্রণে তাদের যথেষ্ট ধারণা আছে।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত