মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

দশ মাসে ৮ ঢাবি শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

আপডেট : ২৩ নভেম্বর ২০১৮, ০৮:০৯ পিএম

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত আত্মহত্যা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আট শিক্ষার্থী। সর্বশেষ ২১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার টঙ্গীতে নিজ বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র হুজাইফা রশিদ।

গত ১৬ নভেম্বর নিজ বাড়িতে আত্মহত্যা করেন ঢাবির ২০১০-১১ বর্ষের ছাত্রী মেহের নিগার দানি। চলতি মাসের ১২ তারিখে রাজধানীর ফার্মগেটে একটি হোস্টেলে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ফাহমিদা রেজা সিলভি।

১৫ অক্টোবর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের ছাত্র জাকির হোসেন। ১০ সেপ্টেম্বরে রাজধানীর রামপুরায় নিজ বাসায় ফ্যানে ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন মার্কেটিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী আফিয়া সারিকা।

এর আগে ১৫ আগস্ট রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় আত্মহত্যা করেন সংগীত বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মুশফিক মাহবুব। ৩১ মার্চ বিজনেস ফ্যাকাল্টির এমবিএ ভবনের ছাদ থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেন সান্ধ্য কোর্সের শিক্ষার্থী তানভীর রহমান।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর হাজারীবাগের নির্মাণাধীন একটি ভবনের ছাদ থেকে নীচে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেন স্যার এ এফ রহমান হলের আবাসিক ছাত্র ফিন্যান্স বিভাগের তরুণ হোসেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক একে এম গোলাম রব্বানী দেশ রূপান্তরকে বলেন, “মেধাবী শিক্ষার্থীদের এমন অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে নিজেদের নিঃশেষ করে দেওয়া দুঃখজনক। পারিবারিক, সামাজিকভাবে পাওয়া মানসিক চাপ থেকে হয়ত তারা এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়।”

তিনি আরো বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে নিয়মিত কাউন্সেলিং করানো হবে। হাউজ টিউটরদের বলা হয়েছে ছাত্রছাত্রীদের উপর খেয়াল রাখতে এবং কাউন্সেলিং দলকে সন্দেহজনক কিছু দেখলে অবগত করতে।”

এনাম মেডিকেল কলেজের মনরোগ বিশেষজ্ঞ ফারুক হোসেন বলেছেন, “কমবয়সী ছেলেমেয়েদের মধ্যে আবেগ বেশি। তাই এরা ছোট ছোট ব্যাপার নিয়ে বিষন্ন হয় এবং আত্মহত্যার মতো পথ বেছে নেয়।”

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত