শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সঙ্গী-পরিবারের হাতে দিনে ১৩৭ নারী খুন

আপডেট : ২৬ নভেম্বর ২০১৮, ০৭:০৩ পিএম

বিশ্বজুড়ে প্রতিদিন গড়ে ১৩৭ জন নারী নিজের সঙ্গী বা পরিবারের সদস্যদের হাতে খুন হন। গত বছর খুন হন ৮৭ হাজার নারী। এদের অর্ধেকের বেশি হত্যাকাণ্ডে নিকটজন জড়িত বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।

শুক্রবার প্রকাশিত জাতিসংঘের মাদক ও অপরাধবিষয়ক কার্যালয়ের (ইউএনওডিসি) নতুন গবেষণায় এসব তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা নির্মূলের জন্য আন্তর্জাতিক দিবস সামনে রেখে এই গবেষণা করা হয়েছে।

এই ৮৭ হাজার নারীর মধ্যে প্রায় ৩০ হাজার নারীর প্রাণ যায় তার অন্তরঙ্গ সঙ্গীর হাতে। বাকি ২০ হাজারের হত্যার পেছনে তাদের পরিবারের সদস্যরা জড়িত রয়েছে। এজন্য বিশ্ব সংস্থাটি বলছে, “নারীর জন্য সবচেয়ে বিপদজনক জায়গা হলো তার ঘর।”

ইউএনওডিসির তথ্য অনুযায়ী, উদ্দেশ্যমূলক হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়ে নারীর চেয়ে চারগুণ পুরুষের প্রাণহানি ঘটে। বিশ্বজুড়ে খুন হওয়া মানুষের প্রতি ১০ জনের আটজনই পুরুষ। তবে অন্তরঙ্গ সঙ্গীর হাতে নিহত ১০ জনের মধ্যে আটজনের বেশি নারী বলে একই প্রতিবেদনে তথ্য দেওয়া হয়েছে।

অন্তরঙ্গ সঙ্গী ও পারিবারের হাতে নারীর প্রাণহানির বার্ষিক সংখ্যা বাড়ছে বলে প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে। জাতিসংঘের সংশোধিত উপাত্ত অনুযায়ী, ২০১২ সালে এধরনের হত্যাকাণ্ডের শিকার নারীর সংখ্যা ছিল ৪৮ হাজার, যা মোট নারী হত্যাকাণ্ডের ৪৭ শতাংশ। পাঁচ বছরে এই সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫০ হাজারে, যা খুন হওয়া মোট নারীর ৫৮ শতাংশ।

নিকটজনের হাতে নারীর খুনের কারণ হিসেবে যৌতুক ও ‘সম্মান বাঁচাতে’ হত্যাকাণ্ডকে তুলে ধরে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “অন্তরঙ্গ সঙ্গীর হাতে এসব হত্যাকাণ্ড হঠাৎ করে বা স্বতঃস্ফূর্তভাবে ঘটেনি। এগুলোর পেছনে আগের জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতার জের রয়েছে। ঈর্ষা ও ছেড়ে যাওয়ার ভয়ও এসব হত্যাকাণ্ডের অভিসন্ধিগুলোর মধ্যে অন্যতম।”

আঞ্চলিকভাবে সঙ্গী বা পরিবারের হাতে নিহত নারীদের সংখ্যায় এশিয়া (২০ হাজার) এগিয়ে থাকলেও আফ্রিকা (একলাখ জনসংখ্যায় ১ দশমিক ৩ জন) বৃহত্তর ঝুঁকির মুখে রয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

আর সবচেয়ে কম ঝুঁকিতে রয়েছে ইউরোপ (প্রতি একলাখে দশমিক ৭ জন)। অন্তরঙ্গ সঙ্গী বা পরিবারের হাতে খুন হওয়ার নারীর সংখ্যা সবচেয়ে কম অস্ট্রেলিয়াসহ ওশেনিয়া অঞ্চলে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত