বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বড় পর্দায় নতুন মিশন

আপডেট : ০২ জানুয়ারি ২০১৯, ০১:০৮ এএম

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী হলেও অপর্ণা ঘোষকে মানুষ চিনেছে নাটকের মাধ্যমে। আফরান নিশো,জন কবির, তাহসানের সঙ্গে তার বেশ কিছু নাটক তরুণ প্রজন্মের দর্শকের খুবই প্রিয়। একই সঙ্গে তার অভিনীত ‘মৃত্তিকা মায়া’, ‘ভুবন মাঝি’, ‘সুতপার ঠিকানা’ বা ‘মেঘমল্লার’ চলচ্চিত্রগুলো সব বয়সের রুচিশীল দর্শকের পছন্দের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। আবার বড়পর্দার মিশনে নেমেছেন এই অভিনেত্রী। বর্তমানে নতুন ছবির কাজেই রয়েছেন ইংল্যান্ডে। তাকে নিয়ে লিখেছেন মাসিদ রণ

 

গত ১২ ডিসেম্বর লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়েছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী অপর্ণা ঘোষ। তবে ব্যক্তিগত কোনো কাজে নয়, ছবির শ্যুটিং করতেই তার এই বিদেশযাত্রা। সঙ্গে রয়েছে পুরো শ্যুটিং ইউনিট। দেশের গন্ডি পেরিয়ে এভাবে অভিনয়শিল্পী-কলাকুশলী ও পরিচালকের লন্ডন পাড়ি জমানোর কারণও ‘গন্ডি’! খোলাশা করা যাক, গন্ডি নামের একটি ছবির শ্যুটিংয়ের জন্যই অপর্ণা এখন লন্ডনে। মুক্তিযুদ্ধের চলচ্চিত্র ভুবন মাঝি নির্মাণ করে আলোচনায় এসেছিলেন নির্মাতা ফখরুল আরেফিন। এবার দ্বিতীয় চলচ্চিত্র ‘গন্ডি’র নির্মাণ অনেকটাই এগিয়েছে। এ ছবিতেও রয়েছেন ‘ভুবন মাঝি’র দুই অভিনয়শিল্পী অপর্ণা ঘোষ ও মাজনুন মিজান। এই ছবির বড় চমক সুবর্ণা মুস্তাফা। ছবিটি ৫৫ ও ৬৫ বছর বয়সী দুজন মানুষের গল্প। এ বয়সে দুজনের বন্ধুত্ব হলে কেমন হয়? চারপাশ, এমনকি পরিবার কীভাবে নেয়, তাই নিয়ে আমার রোমান্টিক-কমেডি ছবির গল্প। ছবিটির চিত্রনাট্য লিখেছেন রেজা আরিফ। এতে আরো অভিনয় করার কথা রয়েছে কলকাতার অভিনেতা সব্যসাচী বা গায়ক অঞ্জন দত্তের। কলকাতার অভিনেত্রী পায়েলও যুক্ত হয়েছেন ছবিটির সঙ্গে।

 

নতুন ছবিতে অভিনয় নিয়ে অপর্ণা বলেন, ‘আপাতত শ্যুটিং নিয়ে ব্যস্ত আছি। লন্ডনে শ্যুটিং শেষে মাস কয়েকের বিরতি দেবেন পরিচালক। আগামী বছরের মার্চে করবেন বাকি শ্যুটিং। চরিত্রটা একটু আলাদা। গল্পটা আমাকে টেনেছে বেশি। ছবিটি ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে মুক্তি দেওয়ার ইচ্ছা পরিচালকের।’

এদিকে, মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে গত ১৫ ডিসেম্বর বিটিভিতে প্রচার হয় অপর্ণা অভিনীত মুক্তিযুদ্ধের নাটক ‘কৃতজ্ঞতাপত্র’। রেজানুর রহমান রচিত ও পরিচালিত এই নাটকের গল্পে দেখা যায়, বিদেশে বড় হয়ে ওঠা এক তরুণী বাবা-মায়ের সঙ্গে দেশে এসে সরাসরি একজন মুক্তিযোদ্ধাকে দেখার ইচ্ছে পোষণ করে। যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করার জন্য তাকে কৃতজ্ঞতা জানাতে চায়। ঘটনাক্রমে মেয়েটি তার এক বান্ধবীর সঙ্গে গ্রামে যায়। সেখানেই দেখা হয় একজন মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে। তারপর ঘটতে থাকে একের পর এক বিব্রতকর ও বিস্ময়কর নানা ঘটনা। এই নাটকে অপর্ণার অভিনয় বেশ সাড়া ফেলেছে।

অপর্ণা সব সময় রুচিশীল গল্পে কাজ করতে পছন্দ করেন। এই রুচিশীলতা তার মধ্যে এসেছে সেই ছোটবেলা থেকেই। জ্ঞান হওয়ার পর থেকেই বাবাকে দেখেছেন সারা দিন থিয়েটার নিয়ে পড়ে থাকতে। নাটকের সংলাপ, লাইট-সেট-কস্টিউম ডিজাইন সবই তার চোখের সামনেই হতো। তাই তো মনের অজান্তেই শিল্পের প্রতি গভীর প্রেম আর মননে রুচিশীলতা ধারণ করেছেন তিনি। এ জন্যই হয়তো সময়ের স্রোতে গা না ভাসিয়ে অবলীলায় ফিরিয়ে দিতে পারেন মানহীন গল্পের নাটক বা ছবির প্রস্তাব। অকপটে স্বীকার করতে পারেন বর্তমানে আমাদের নাটকের নিম্নমানের কথা, নাটকের অঙ্গনে নানা অসংগতির কথা। এবার বললেন চলচ্চিত্র প্রসঙ্গে, ‘আগে একটি ভালো গল্পের ছবিতে অভিনয়ের জন্য পারিশ্রমিকের দিকে তাকাতাম না। অনেক বিষয়ে কম্প্রোমাইজ করেছি। এখন আর সে অবস্থা নেই আমার। তাই এখন থেকে চলচ্চিত্রে কাজের ব্যাপারে কোনো কম্প্রোমাইজ করব না। ছবির গল্প, পরিচালক, বাজেট ও আমার পারিশ্রমিক সবকিছু ব্যাটে-বলে মিলে গেলেই আমাকে অচিরেই নতুন চলচ্চিত্রে দেখা যাবে।’

ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই বেছে বেছে শুধু ভালো কাজগুলোই করেন অপর্ণা। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা তো দর্শকের জন্য কাজ করি বা শিল্পের ক্ষুধা মেটানোর জন্য কাজ করি। তাই এত কাজ করে কী লাভ, যদি দর্শক নাই পছন্দ করে কাজটি। কাজের সংখ্যা বাড়ানোতে আমি বিশ্বাসী নই। প্রয়োজনে মাসে দুটি নাটক করব তাও যেন হয় ব্যতিক্রম চরিত্রের।’

সম্প্রতি অপর্ণা শুরু করেছেন রাশেদ রাহার পরিচালনায় নতুন একটি ধারাবাহিক নাটকের শ্যুটিং। বাংলাভিশনে প্রচারের উদ্দেশ্যে নির্মিত এ ধারাবাহিকের নাম ‘আকাশে মেঘ জমেছে’। এ ছাড়া শেষ করেছেন বেশ কিছু খ-নাটকের শ্যুটিং। এর মধ্যে উল্লেখ করলেন মিলন ভট্টাচার্য্য পরিচালিত ‘আদর্শ স্বামী’ নাটকের নাম। এতে তার বিপরীতে রয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা জাহিদ হাসান।

এ নাটকের গল্প প্রসঙ্গে অপর্ণা বলেন, ‘নাটকটিতে আমি একজন ব্যবসায়ী। আর জাহিদ হাসান একজন সহজ সরল মানুষ। তার সরলতায় মুগ্ধ হয়ে আমি তাকে বিয়ে করি। কারণ আমি চাই না আমার কাজকর্মে আমার স্বামী বাধা দিক। বিয়ের পর আসলেই জাহিদ হাসান কোনো বিষয়েই বাধা দেন না আমাকে। একসময় আমার অনেক খারাপ বিষয় জেনে ফেলেন তিনি। পরে আমিও তার ব্যাপারে অন্যকিছু জানতে পারি। নাটকের শেষ অংশ দেখার জন্য দর্শকের অপেক্ষা করতেই হবে।’

এসব তো গেল কাজের কথা, এবার আসা যাক এই লাক্স তারকার ব্যক্তিজীবনে। বর্তমানে তার রিলেশন স্ট্যাটাস কী জানতে চাইলে অপর্ণা একগাল হেসে বলেন, ‘সম্পর্ক ছাড়া কেউ বাঁচতে পারে? আমি সারা দিন কাজ শেষে একটি আশ্রয় খুঁজি যেখানে মনের সব কথা বলা যায়, প্রশ্রয় পাওয়া যায়। অবশ্যই আমি একজনকে ভালোবাসি। তবে কাকে তা এখনো বলার সময় আসেনি। এখন শুধুই ক্যারিয়ার নিয়ে ভাবছি। বিয়ে করলে অবশ্যই সবাইকে জানিয়েই করব।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত