বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

শপথ আজ

আপডেট : ০৩ জানুয়ারি ২০১৯, ০১:৩০ এএম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ অনুষ্ঠিত হবে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায়। সংসদ ভবনের নিচতলা শপথকক্ষে শপথ পাঠ করাবেন সংসদের বর্তমান স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। শপথগ্রহণের পর নতুন মন্ত্রিসভা গঠন করবে নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পাওয়া আওয়ামী লীগ। বর্তমান দশম জাতীয় সংসদের মেয়াদ শেষ হবে ২৮ জানুয়ারি। তার আগেই যেকোনো দিন একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন আহ্বান করা হবে। ২৪ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার প্রথম অধিবেশন আহ্বান করা হতে পারে বলে সংসদ সচিবালয়ের সূত্রগুলো জানিয়েছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার রাতেই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নবনির্বাচিত সাংসদদের ফলাফল গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়। গতকাল বুধবার তা নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে পৌঁছায়। গতকাল জাতীয় সংসদের পরিচালক (গণসংযোগ-১) মো. তারিক মাহমুদ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতেও শপথ অনুষ্ঠানের ব্যাপারে জানানো হয়। শপথগ্রহণের ব্যাপারে বর্তমান স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী দেশ রূপান্তরকে বলেন, আমরা শপথকার্য সম্পন্ন করতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত। আশা করছি শপথ অনুষ্ঠান ভালো হবে। সব সংসদ সদস্য শপথ নিতে আসবেন এমনটাই প্রত্যাশা করি।

নতুন সাংসদদের শপথ অনুষ্ঠানকে ঘিরে আবারও প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছে সংসদ ভবন। গতকাল সরেজমিনে দেখা গেছে, সাংসদদের বরণ করতে নতুন সাজে সাজছে সংসদ ভবন। চলছিল সংসদ ভবনের শেষমুহূর্তের ধোয়ামোছার কাজ। নতুন সংসদ সদস্যদের পরিচয়পত্র তৈরি হয়ে গেছে। সাংসদদের পরিচত্রপত্র প্রদান ও রেজিস্ট্রেশনের জন্য বুথ স্থাপন করা হয়েছে। সংসদের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে নিয়োজিত গণপূর্ত অধিদপ্তরের প্রায় দুই শতাধিক কর্মী কাজ করছে সংসদ ভবন নতুন করে সাজাতে। শপথ উপলক্ষে নেওয়া হয়েছে নিñিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা। সংসদ সচিবালয়সহ সংসদ ভবনের বিভিন্ন কর্মকর্তা-কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা গেছে।

স্পিকার শিরীন শারমীন চৌধুরী গতকাল সকালেই নির্বাচনী এলাকা রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) থেকে সরাসরি সংসদ ভবনে আসেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ছেড়ে দেওয়া এই আসন থেকেই এবার তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হন। স্পিকার দিনভর শপথ কাজের তদারকি করেন। এ সময় দেশ রূপান্তরকে তিনি বলেন, আমি সরাসরি চলে এসেছি। আমরা প্রস্তুত।

শপথের ব্যাপারে সংসদের বর্তমান ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বি মিয়া দেশ রূপান্তরকে বলেন, সংবিধান অনুযায়ী, সংসদ নির্বাচনের ফল গেজেট আকারে প্রকাশের তিন দিনের মধ্যে শপথের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এরপর ৩০ দিনের মধ্যে সংসদের অধিবেশন আহ্বান করতে হবে। স্পিকার নিজেও এমপি নির্বাচিত হওয়ায় অন্যদের শপথ পড়ানোর আগে নিজে শপথ গ্রহণ করবেন। তবে এবার আওয়ামী লীগের সাংসদদের সংখ্যা বেশি হওয়ায় কয়েক ধাপে শপথ পড়ানো হতে পারে বলেও জানান তিনি। তাদের শপথগ্রহণ শেষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আসন পাওয়া জাতীয় পার্টি ও পরে অন্য দলের সাংসদদের শপথ পড়ানো হবে।

বিএনপির নির্বাচিত সাংসদরা শপথ নেবেন কি না, এ নিয়ে এখনো সংশয় রয়েছে। এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, গেজেট প্রকাশের তিন দিনের মধ্যে নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা শপথ গ্রহণ করবেন। এরপর ৩০ দিনের মধ্যে নতুন সংসদের বৈঠক হবে। ৯০ দিনের মধ্যে যদি কেউ শপথগ্রহণ না করেন, তখন সংসদ সচিবালয় থেকেই এ পদটি শূন্য ঘোষণা করা হবে।

সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তারা জানান, শপথগ্রহণের পর সদস্যদের জন্য নির্ধারিত ফরম ও কার্যপ্রণালি বিধির কপি প্রস্তুত রাখা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের গেজেট অনুযায়ী সব সংসদ সদস্যকে শপথগ্রহণের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সংসদ সচিবের স্বাক্ষর করা আমন্ত্রণপত্র সব সংসদ সদস্যকে পাঠানোর পাশাপাশি টেলিফোনে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে উপস্থিতি নিশ্চিত করা হবে। শপথগ্রহণের পর সংসদ সদস্যরা সংসদের সংরক্ষিত রেজিস্টারে স্বাক্ষর করবেন এবং পরিচয়পত্রের জন্য ছবি তুলবেন।

সংসদ সচিবালয়ের আইন কর্মকর্তারা জানান, প্রথম অধিবেশনেই স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচিত হবে। নতুন স্পিকারকে রাষ্ট্রপতি শপথ পাঠ করাবেন। আর সরকারদলীয় সদস্যরা বসে সংসদ নেতা ও বিরোধীদলীয় সদস্যরা বসে বিরোধীদলীয় নেতা নির্বাচিত করবেন। নতুন এমপিদের শপথের এক মাসের মধ্যে রাষ্ট্রপতি সংসদ অধিবেশন আহ্বান করবেন। সে ক্ষেত্রে চলতি সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই নতুন সংসদের অধিবেশন বসবে। আগামী ২৮ জানুয়ারি চলতি দশম সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের মধ্য দিয়ে গঠিত এই সংসদের প্রথম অধিবেশন ২৯ জানুয়ারি শুরু হয়।

শপথের পরই মন্ত্রিসভা গঠন করবে আওয়ামী লীগ। গত সোমবার মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম দেশ রূপান্তরকে বলেছিলেন, আগামী ১০ দিনের মধ্যেই নতুন মন্ত্রিসভা গঠিত হবে এবং প্রধানমন্ত্রী শপথ নেবেন। নতুন মন্ত্রিসভা গঠনের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রস্তুত রয়েছে বলেও জানান সরকারের এই কর্মকর্তা। সে হিসেবে আগামী ৬ জানুুয়ারি রবিবার মন্ত্রিসভা গঠন হতে পারে বলে জানা গেছে। সেদিন বঙ্গভবনে শপথ নেবেন নতুন মন্ত্রীরা। মন্ত্রিসভা গঠন নিয়ে এখন সরব রাজনৈতিক অঙ্গন।

বিগত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হওয়ার পর ৮ জানুয়ারি গেজেট প্রকাশ হয়। এর পরদিন ৯ জানুয়ারি শপথগ্রহণ করেন নির্বাচিতরা। আর প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয় ২৯ জানুয়ারি।

গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পায় আওয়ামী লীগ। নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ ২৫৯টি, লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে জাতীয় পার্টি ২০, বিএনপি ধানের শীষ ৫, গণফোরাম ২, বিকল্পধারা বাংলাদেশ ২, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ২, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ৩, তরীকত ফেডারেশন ১, জাতীয় পার্টি (জেপি) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলে ৩টি আসনে জয়লাভ করে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত