রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

নির্বাচনের পর কমেছে সবজির দাম

আপডেট : ০৪ জানুয়ারি ২০১৯, ০৯:৩৩ পিএম

হাঁকডাক আর ক্রেতাদের ভিড়ে মুখর হয়ে উঠেছে রাজধানীর কাঁচাবাজারগুলো। শিম, বেগুন, পটল, ফুলকপি, পাতাকপি, গাজর, টমেটো, মুলা, লাউ, শালগমসহ বিভিন্ন রকমের শাক-সবজিতে ভরপুর প্রতিটি সবজির দোকান।

এক সপ্তাহ আগে এমন ছিল না কাঁচাবাজারের চিত্র। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সরবরাহ বন্ধ থাকায় সবজি সরবরাহ কমে গিয়েছিল। ফলে বাজার ছিল ঊর্ধ্বমুখী। নির্বাচনের পর কাঁচা বাজারে আসতে শুরু করেছে বিভিন্ন ধরনের সবজি। গত সপ্তাহ থেকে পণ্য ও বাজারভেদে ৫ থেকে ১০ টাকা কম দরে বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি।

শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, হাতিরপুলসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে জানা যায় এসব তথ্য।

বিক্রেতারা বলছেন, নির্বাচনের আগে পাইকারি বাজারে সবজির সরবরাহ কম থাকলেও নির্বাচন শেষে বাড়তে শুরু করেছে সরবরাহ। তাই কমতে শুরু করেছে সবজির দাম।

বাজার ঘুরে জানা যায়,  কাঁচা মরিচসহ অন্যান্য সবজির দাম অপরিবর্তিত থাকলেও  মিষ্টি কুমড়া, চিচিঙ্গা, ধুন্দল ও নতুন আলুর দাম বেশি। বরাবরের মতো মুরগি ও ডিমে বাড়তি দাম।

শুক্রবার বাজারে নতুন আলু বিক্রি হয়েছে ৩০ টাকা কেজিতে। তবে ৫ কেজির বেশি কিনলে কেজিতে মিলছে ২টা কম। মিষ্টি কুমড়ার কেজি ৩০ টাকা ও ছোট পিস বিক্রি হয়েছে ৪৫ থেকে ৬০ টাকায়। বাজার ভেদে এক কেজি ধুন্দল ৬০ টাকা, চিচিঙ্গার ঝাঁঝটাও বেশি, ১০০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।

কারওয়ান বাজারের সবজি বিক্রেতা জাহাঙ্গীর বলেন, চিচিঙ্গা ও ধুন্দল এখনো বাজারে সেভাবে আসেনি, তাই দামও বেশি। তবে অন্য সবজি কম দামেই মিলছে।

তবে বাজার ও মানভেদে করলার দাম কমেছে ১০ টাকা।  প্রতিকেজি টমেটো বিক্রি হয়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা, শিম ৩০ থেকে ৪০ টাকা, শসা ৩০ থেকে ৪০ টাকা।

প্রতিকেজি গাজর ৩০ টাকা থেকে ৪০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ টাকা, মুলা ৩০ টাকা, বেগুন ৪০ থেকে ৫০ টাকা, কচুর লতি ৩০ থেকে ৪০ টাকা, করলা ৪০ থেকে ৫০ টাকা, শালগম ৪০ টাকা বিক্রি করতে দেখো  গেছে।

সেন্ট্রাল রোডের বাসিন্দা মিথিলা রহমান বলেন, বাজারে  আলু, চিচিঙ্গা, ধুন্দলের দাম বেশি। তাই কম কম করে কিনতে হচ্ছে।

শুক্রবার বাজারে ফুলকপি বিক্রি হয়েছে ২০ থেকে ২৫ টাকা পিস, বাধা কপি ১০ থেকে ২৫ টাকা, কাঁচা কলার হালি ২৫ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

কারওয়ান বাজারের সবজি বিক্রেতার আব্দুস সালাম বলেন, পাইকারিতে যে দামে কিনছি সে লাভ রেখে তার কাছাকাছি দামেই বিক্রি করছি। দাম বেশি হলে আমরা তো সেটা বুঝব না।

মোহাম্মদপুর টাউন হল মার্কেটে বাজার করেন মোশারফ হোসেন। তিনি জানান, সকালে এক পিচ লাউ কিনেছি ৬০ টাকায়। মুলা ২০ টাকা কেজিতে এবং  পালন শাক কিনেছি ১৫ টাকা আঁটি। এর আগের সপ্তাহেও বেশি দামেই কিনতে হয়েছে সবজি।

এ ছাড়া পেঁয়াজসহ বেশিরভাগ সবজির দাম স্থিতিশীল রয়েছে। আগের সপ্তাহের মতো পুরাতন দেশি পেঁয়াজের কেজি ২৫ টাকা এবং নতুন দেশি পেঁয়াজ ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি বিক্রি হয়েছে শুক্রবার। আর আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকায়।

কাঁঠালবাগান ঢালের সবজি বাজারের পেঁয়াজ  ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম বলেন, বাজারে এখন পেঁয়াজ পর্যাপ্ত। পুরো মৌসুমে ৪০ টাকার নিচে ছিলই না। তা কমে এখন ক্রেতাদের নাগালেই।

তবে চাল, ডাল, তেল, মাছের দাম গত সপ্তাহের মতেই অপরিবর্তিত রয়েছে।

এদিকে সবজির বাজারে কিছুটা স্বস্তি বিরাজ করলেও কমেনি মুরগি ও ডিমের দাম। ডিম পাইকারি ৯৮ টাকা, খুচরা ১০০ থেকে ১০৫ টাকা ডজন বিক্রি হয়েছে।

কারওয়ান বাজারে ডিমের খাঁচা আগের সপ্তাহের মতো ২০০ থেকে ২২০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

ডিম ব্যবসায়ীরা জানান, ডিমের চাহিদার তুলনায়ে এখনো সরবরাহ বাড়েনি ডিমের।  উৎপাদনও কম।  এক সপ্তাহ আগে এক ডজন ডিম বিক্রি হয়েছে ৮৫ টাকায়। এখন সেই ডিম ১০০ টাকা ডজন বিক্রি করতে হচ্ছে আমাদের।

গত সপ্তাহের মতেই ব্রয়লার মুরগি কেজি বিক্রি বাজার ভেদে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি করতে দেখা গেছে। গরুর মাংসের কেজি বিক্রি হয়েছে ৪৮০ থেকে ৫০০ টাকায়। খাসির মাংস বাজার ভেদে ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা কেজি বিক্রি হতে হয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত