বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

আমলকীর গুণ

আপডেট : ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ০৪:৪৪ এএম

কেন খাবেন

উপকারী ফল আমলকী। এর ঔষধি গুণ অনন্য। ১০০ গ্রাম আমলকীতে আছে পানি ৯১.৪ গ্রাম, খনিজ ০.৭ গ্রাম, প্রোটিন ০.৯ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৩৪.০ মিগ্রা, আয়রন ১.২ মিগ্রা, ভিটামিন বি১ -১০.০২ মিগ্রা, ভিটামিন বি২-২০.০৮ মিগ্রা, ভিটামিন সি-৪৬৩ মিগ্রা।

উপকারিতা

আমলকী খেলে পলিফেনলস ডায়াবেটিস এবং এর জটিলতা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ রাখে। খালি পেটে এক চা-চামচ আমলকীর রস পান করলে এসিডিটি থেকে উপকার পাওয়া যায। পেট খারাপ হলে আমলকী প্রতিষেধক হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

গলা ব্যথা বা কাশির জন্য আমলকীর রসের সঙ্গে সামান্য আদার রস মিশিয়ে পান করলে উপকার পাবেন। নিয়মিত আমলকী খেলে দৃষ্টিশক্তি ভালো থাকে। আমলকী মুখে রুচি ও ক্ষুধা বাড়ায় এবং শরীর ঠা-া রাখে। সর্দি, কাশির জন্যও উপকারী। বারবার বমি হলে শুকনো আমলকী এককাপ পানিতে ভিজিয়ে ঘণ্টা দুই পর সেই পানিতে একটু শ্বেত চন্দন ও চিনি মিশিয়ে খেলে বমি বন্ধ হবে। কাঁচা আমলকীর পেস্ট চুলে লাগালে চুলের গোড়া শক্ত হবে, চুল পড়া কমবে এবং চুল কালো হবে।

কীভাবে খাবেন

আমলকী অনেকভাবে খেতে পারেন। অনেক ফলের মতো আমলকীও জুস বানিয়ে খাওয়া যায়। কুচি করে কেটে সামান্য পানি দিয়ে ব্লেন্ড করে সহজেই বানানো যায় এই জুস। কষটে স্বাদ দূর করার জন্য মেশাতে পারেন চিনি বা মধু। লবণ মেখে রোদে শুকিয়েও খাওয়া যায় আমলকী। হজমের ঝামেলা পরিত্রাণের জন্য ভাতের সঙ্গে খেতে পারেন আচার বা চাটনি বানিয়ে।

সংরক্ষণ

আমলকী কেটে মিনিট তিনেক পানিতে ফুটিয়ে নেওয়ার পর লবণ, আদা কুচি, লেবুর রস ও সরিষার তেল মেখে রোদে শুকিয়ে সারা বছর সংরক্ষণ করা যায়। আমলকী খাওয়া যায় গুঁড়ো করেও। সে জন্য আমলকী টুকরো করে শুকিয়ে নিতে হবে। পরে শুকনো টুকরা গুঁড়ো করে বয়ামে রেখে খেতে পারবেন। এর সঙ্গে মেশাতে পারেন মধু ও মাখন। পানিতে চিনির সঙ্গে আমলকীর গুঁড়ো মিশিয়ে খেতে খারাপ লাগবে না।      

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত