রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

নাইকো শুনানিতে খালেদা

সংসদের বাইরেও বিরোধী দল হয়

আপডেট : ১৪ জানুয়ারি ২০১৯, ০২:০৫ এএম

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, জাতীয় সংসদের ভেতরেই নয়, বাইরেও বিরোধী দল হয়। যারা রাজপথে থেকে জনগণের কথা বলে, তারাই বিরোধী দল। গতকাল রবিবার আদালতে এ সব কথা বলেন বিএনপির চেয়ারপারসন।

নাইকো দুর্নীতি মামলায় অভিযোগ গঠন সংক্রান্ত শুনানিতে খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করা হয় গতকাল। শুনানির একপর্যায়ে এই মামলার আসামি ও বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদের একটি মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এমন কথা বলেন বিএনপির চেয়ারপারসন। এই মামলায় অসমাপ্ত শুনানি শেষে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ২১ জানুয়ারি দিন ধার্য করেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯-এর বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান। গতকাল আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী, জয়নুল আবেদীন, মাসুদ আহমদ তালুকদার, নুরুজ্জামান তপন প্রমুখ। দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের প্রধান কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আদালতে উপস্থিত ছিলেন। শুনানিকালে তিনি খালেদা জিয়ার সঙ্গে দুই দফায় কথা বলেন। বিএনপির জেষ্ঠ আইনজীবীরাও বিএনপির চেয়ারপারসনের সঙ্গে দফায় দফায় কথা বলেন। 

পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থাপিত অস্থায়ী আদালতের একটি ভবনে এই মামলার বিচার কার্যক্রম চলছে। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ১০ বছর ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় সাত বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়াকে রাখা হয়েছে এ কারাগারের আরেকটি ভবনে।

নাইকো দুর্নীতি মামলায় গতকাল অভিযোগ গঠন প্রশ্নে শুনানির দিন ধার্য ছিল। মওদুদ আহমদ নিজেই নিজের পক্ষে শুনানি করেন। এর আগে দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে হুইল চেয়ারে করে খালেদাকে আদালতে হাজির করা হয়। এর কিছুক্ষণ পর আদালতের কার্যক্রম শুরু হলে মওদুদ আহমদ তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন প্রশ্নে অসমাপ্ত শুনানি শুরু করেন।

প্রায় দেড় ঘণ্টা আদালতে অবস্থান করার পর মুলতবি শেষে বেলা ২টার কিছু আগে খালেদা জিয়াকে ফের কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। মামলার আসামি সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউসুফ হোসাইন অভিযোগ থেকে অব্যাহতি চেয়ে গতকাল আদালতের কাছে আবেদন করেন। মামলার অন্য আসামি সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, সাবেক ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন ও এম এ এইচ সেলিমের পক্ষে তাদের আইনজীবীরা অভিযোগ গঠন প্রশ্নে শুনানি করেন।   

শুনানিতে মওদুদ আহমদ দাবি করেন, নাইকোর সঙ্গে চুক্তি করেছিল তৎকালীন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ সরকার। বিএনপির সরকার ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া শুধু এর ধারাবাহিকতা রক্ষা করেছেন। তিনি বলেন, ‘নাইকো মামলার দায়ভার তো আওয়ামী লীগ সরকারের। আর আমরা এখন বিরোধী দলে আছি বলেই বিপদে পড়েছি।’ ওই সময় পাশে থাকা বিএনপির চেয়ারপারসনের আরেক আইনজীবী মো. আমিনুল ইসলাম টিপ্পনি কেটে বলেন, ‘আরে আমরা তো এখন বিরোধী দলেও নেই!’ মওদুদ বলেন, ‘হ্যাঁ, আমরা তো এখন বিরোধী দলেও নেই।’

দুজনের কথা শুনে খালেদা জিয়া বলেন, ‘সংসদে থাকলেই  বিরোধী দল হয় না, সংসদের বাইরেও বিরোধী দল হয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘যারা রাজপথে থাকে, জনগণের কথা বলে, মানুষের অধিকারের কথা বলে, তারাই বিরোধী দল।’       

আইনজীবীদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, কানাডীয় প্রতিষ্ঠান নাইকোর সঙ্গে অনৈতিক ও অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতিসাধনের অভিযোগে ২০০৭ সালের ডিসেম্বরে সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে খালেদা জিয়াকে প্রধান আসামি করে নাইকো দুর্নীতির মামলা দায়ের করা হয়। ২০০৮ সালের মে মাসে খালেদা জিয়াসহ ১১ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত