রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

যশোর জেলা পরিষদ ভবন

নকশা অবিকৃত রেখে সংস্কারের দাবি

আপডেট : ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৩৩ পিএম

শতাধিক বছরের পুরনো যশোর জেলা পরিষদ ভবন ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্তে প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠেছে যশোরের সুশীলসমাজ। তাদের দাবি যশোরের যেকটি পুরনো ভবন ঐতিহ্যের স্মারক হিসেবে মাথা উঁচু করে আছে এর মধ্যে জেলা পরিষদ ভবন অন্যতম। ১৯১৩ সালে ভবনটি নির্মিত হয়।

যশোর ঐতিহ্য রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক রুকুনউদ্দোল্লাহ জানান, অবিভক্ত বাংলার প্রথম জেলা যশোর। যশোরকে জেলা করা হয় ১৭৮১ সালে। ১৮০১ সালে এখানে নির্মিত হয় কালেক্টরেট ভবন, যা বর্তমানে রেজিস্ট্রি ভবন এবং ১৮৮৫ সালে কালেক্টরেট ভবন হিসেবে নির্মিত হয় আরেকটি ভবন, যা বর্তমানে জেলা প্রশাসকের দপ্তর। আর অবিভক্ত বাংলার সেলফ গভর্নমেন্ট অ্যাক্টের আওতায় ১৮৮৫ সালে ডিস্ট্রিক্ট বোর্ড প্রতিষ্ঠার প্রথম দিকেই ১৮৮৬ সালে যশোর ডিস্ট্রিক্ট বোর্ড প্রতিষ্ঠা করা হয়। ১৯৫৯ সালে এর নাম পরিবর্তন করে ডিস্ট্রিক্ট কাউন্সিল করা হয় এবং ১৯৭৬ সালে স্থানীয় সরকার আইনে করা হয় জেলা পরিষদ। যশোর ডিস্ট্রিক্ট বোর্ড প্রতিষ্ঠার ২৭ বছর পর ১৯১৩ সালে নিজস্ব ভবন নির্মাণ করা হয়। ওই বছর ১৩ মার্চ এর উদ্বোধন করেন তৎকালীন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জে এইচ লিন্ডসে। বর্তমান অবিকৃত অবস্থায় আছে।

জেলা পরিষদের ভবন রক্ষায় গত মাসে গঠন করা হয় ঐতিহ্য রক্ষা কমিটি। কমিটির নেতারা অবিলম্বে জেলা পরিষদ ভবন ভাঙার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানান। তারা ভবনটি মূল নকশা অপরিবর্তিত রেখে সংস্কারের দাবি জানান।

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘শতাধিক বছরের পুরনো ভবনটি ব্যবহারের একেবারে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। হাঁটতে গেলে মেঝে কাঁপছে, বর্ষা মৌসুমে ছাদ ও দেয়াল চুইয়ে পানি পড়ে। এ জন্য এখানে নতুন ভবন তৈরি করা প্রয়োজন। তবে ঐতিহ্যকে অবমূল্যায়নের পক্ষে নই আমরা। বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করে যদি ভবনটির স্থাপত্যশৈলী অবিকৃত করে পুনর্নির্মাণ সম্ভব হয় তাহলে তা-ই করা হবে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত