মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

নতুন ট্রেন্ড ভাঁজফোন

আপডেট : ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৪৮ পিএম

কয়েক বছর আগেও ভাঁজযোগ্য ফোন মানে ছিল বিশেষ কিছু। হাতেগোনা কয়েকটি প্রতিষ্ঠান এ ধরনের ফোন তৈরি করে পরে বন্ধ করে দেয়। সেখানে একাধিক কোম্পানি ২০১৯ সালে ভাঁজযোগ্য ফোন বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছে। বর্তমানে কোন ব্র্যান্ডের ভাঁজযোগ্য ফোন বাজারে আছে, কোনটি সামনে আসছে, তাদের বিশেষত্ব কী, সেসব নিয়ে ক্লিকের এই আয়োজন।

ফ্লেক্সপাই

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক স্টার্ট-আপ রয়ওলে ২০১৮ সালে ভাঁজযোগ্য ফোন এনে হইচই ফেলে দেয়। তারা দাবি করে, তাদের ফ্লেক্সপাই-ই বিশ্বের প্রথম ভাঁজযোগ্য হ্যান্ডসেট, যার স্ক্রিন ভাঁজ করে রাখা যায়। ফোনটি দেখতে অনেকটা বইয়ের মতো। স্ক্রিন ৭ দশমিক ৮ ইঞ্চি। ভাঁজ করা হলে তিনটি ছোট স্ক্রিনে ভাগ হয়ে যায়। সামনে একটি, পেছনে একটি ও সামনে পেছনে ভাঁজের মাঝখানে একটি।

ছয় জিবি র‌্যাম সংযুক্ত ফোনের দাম ১ লাখ ১০ হাজার টাকা। র‌্যাম আট জিবি হলে দাম পড়বে ১ লাখ ২৩ হাজার টাকা।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এক্স/গ্যালাক্সি এফ

আইফোন বাজারে আসার আগে থেকে এই ফোনটি নিয়ে আলোচনা চলছে। বলা হচ্ছে, দুই থেকে তিনটি ভাঁজ কর যাবে! সামনের মার্চে বাজারে আসার কথা। গত নভেম্বরে ডেভেলপারদের কনফারেন্সে এই ফোনটির কথা জানায় প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি। কয়েকটি গণমাধ্যম ঘেঁটে জানা গেছে, ভাঁজ করা অবস্থায় স্ক্রিন ৪ দশমিক ৫ ইঞ্চি। খুললে তা হবে ৭ দশমিক ৩ ইঞ্চি।

হুয়াওয়ে

২০১৮ সালের মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে হুয়াওয়ে তাদের প্রথম ফাইভ-জি ফোন আনার ঘোষণা দেয়। ফেব্রুয়ারিতেই এটি বাজারে আসছে। এই ফোনটির স্ক্রিন ভাঁজ করা যাবে। প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ছাড়ার কথা ছিল। কিন্তু দেশটির প্রশাসন চীনের তৈরি হুয়াওয়ে নিষিদ্ধ করেছে। এই ফোন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানটিকে নিজেদের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি বলে মনে করে ট্রাম্প প্রশাসন। সে ক্ষেত্রে ফেব্রুয়ারিতেই বাজারে আসছে কি না, তা নিয়ে কিছুটা ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে না হলেও পৃথিবীর ১৭০টি দেশে ফোনটি ছাড়া হতে পারে।

শাওমি ডুয়েল ফ্লেক্স

এই ফোনটিরও বাজারে আসা প্রায় নিশ্চিত। চীনা প্রতিষ্ঠানটি এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ ঘোষণা দিয়েছে। এত দিন ভাঁজ করা ফোনের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, শুধু মাঝে ভাঁজ করা যায়। শাওমির ফোনটি তিনটি ভাঁজ করা যাবে।

অ্যাপল

২০১৭ সালের নভেম্বরে আমেরিকান প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান অ্যাপল ভাঁজযোগ্য ফোন বাজারে আনার ঘোষণা দেয়। প্রতিষ্ঠানটি দাবি করে, তাদের এই ডিভাইসটি বেশ নমনীয় হবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি।

লেনোভো

কম্পিউটার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান লেনোভো ২০১৩ সালের দিকে স্মার্টফোন তৈরির উদ্যোগ নেয়। ২০১৬ সালের দিকে চীনের এ প্রতিষ্ঠানটি ‘সিপ্লাস’ নামের একটি ফোনের ধারণা দেয়। যেটি ভাঁজ করার পাশাপাশি ঘড়ির মতো হাতে পরা যাবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত সেই ধারণা বাস্তবায়ন করেনি এই প্রতিষ্ঠানটি।

মটোরোলা

image

মটোরোলা রেজারের পুরনো ভাঁজ করা ফোন সামনের ফেব্রুয়ারিতে আবার বাজারে আসার কথা। প্রতিষ্ঠানটি এখন চীনের প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান লেনোভোর মালিকানাধীন। প্রথম দিকে তারা ফোনটিকে শুধু যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ছাড়বে। দাম প্রায় ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত