সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

এই দিনে

৩ ফেব্রুয়ারি

আপডেট : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:২৬ পিএম

১৮৮২ সালের এই দিনে জন্মগ্রহণ করেন আধুনিক ভারতীয় শিল্পের প্রবর্তক নন্দলাল বসু। তিনি ছিলেন অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শিষ্য। ভারতীয় জাতীয়তাবাদী আন্দোলন, স্বামী বিবেকানন্দ ও সিস্টার নিবেদিতার আধ্যাত্মিকতা, প্রাচীন ভারতের শৈল্পিক ঐতিহ্য এবং অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শিক্ষা নন্দলালকে গভীরভাবে প্রভাবিত করে। তার প্রথম দিকের অনেক ধর্মীয় এবং পৌরাণিক শিল্পকর্ম অজন্তা এবং অন্যান্য ঐতিহ্যগত প্রাচীরচিত্রের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে অঙ্কিত হয়েছে।  ১৯১৪ সালে নন্দলাল শান্তিনিকেতনের কলাভবন পরিদর্শনে যান এবং সেখানে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে আসেন। ১৯১৬ সালে রবীন্দ্রনাথ জোড়াসাঁকোতে বিচিত্রা প্রতিষ্ঠা করেন। সেখানে স্বল্প সময়ের জন্য অবস্থান করে নন্দলাল ১৯২০ সাল থেকে শান্তিনিকেতনে বসবাস শুরু করেন এবং ১৯২২ সালে কলাভবনের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।  নন্দলাল আধুনিক ভারতের প্রাচীরচিত্র পুনরুজ্জীবনে নেতৃত্ব দেন এবং নিজেও কিছু স্থানে প্রাচীরচিত্র অঙ্কন করেন। তিনি ছিলেন একজন বড় অনুপ্রেরণাদায়ক শিক্ষক। নন্দলালের কোনো কোনো ছাত্র, যেমন, বিনোদবিহারী মুখোপাধ্যায়, রাম কিংকর বেইজ জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে বিখ্যাত শিল্পী হিসেবে খ্যাতিলাভ করেছিলেন। ১৯৩০ সালে লবণ-আন্দোলনে গান্ধীর গ্রেপ্তারের ঘটনাকে স্মরণীয় করে তোলার জন্য তিনি লাঠি হাতে পদযাত্রারত গান্ধীর একটি বস্ত্রখোদিত নকশা অঙ্কন করেন। এটি অহিংস-আন্দোলনের একটি আদর্শ ছবি হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। ১৯৫১ সালে তিনি কলাভবন থেকে অবসর গ্রহণ করেন এবং তাকে প্রফেসর ইমেরিটাস পদ প্রদান করে সম্মানিত করা হয়। ১৯৫২ সালে বিশ্বভারতী তাকে দেশীকোত্তম উপাধি এবং ১৯৫৪ সালে পদ্মভূষণ পুরস্কার প্রদান করা হয়। ১৯৬৬ সালের ১৬ এপ্রিল তার মৃত্যু হয়।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত