বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বাগেরহাটে দেড়শ চিকিৎসকের পদ শূন্য

আপডেট : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:২৯ পিএম

বাগেরহাটের সরকারি হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক সংকট মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। বাগেরহাট সদর হাসপাতালসহ জেলার নয়টি উপজেলায় চিকিৎসকের ২১৮টি পদের মধ্যে শূন্যই রয়েছে ১৪৫টি। জেলায় বর্তমানে কর্মরত আছেন মাত্র ৭৩ জন। হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসকদেরও সেবা নিতে আসা রোগীদের সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। অন্যদিকে, বেশি টাকা ব্যয় করে সাধারণ মানুষকে বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিতে হচ্ছে বলে অভিযোগ করছেন স্থানীয়রা।

এসব হাসপাতালগুলোতে শিশু, মেডিসিন, হৃদরোগ, গাইনি, সার্জারির মতো গুরুত্বপূর্ণ পদ দীর্ঘদিন ধরে শূন্য রয়েছে। অ্যানেসথেশিয়ায় বিশেষজ্ঞ চিকিসক না থাকলে হাসপাতাল থাকে অচল। এই পদে এক বছর আগে একজন জুনিয়র কনসালট্যান্টকে নিয়োগ দেওয়া হলেও তিনি যোগদানের পর থেকে কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। রোগী ও স্থানীয়রা বলছেন, হাসপাতালে মাসের পর মাস ধরে চিকিৎসক সংকট রয়েছে। তাই এখানে কেবল জ্বর, ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্টের রোগীদেরই সেবা দেওয়া হয়ে থাকে। কোনো বড় রোগ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক না থাকায় তাকে জেলার বাইরে কোনো হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। এতে গরিব রোগীদের মারাত্মক ভোগান্তিতে পড়তে হয়। সরকার এত টাকা ব্যয় করে হাসপাতাল নির্মাণ করেছে অথচ বিশেষজ্ঞ ভালো চিকিৎসক নিয়োগ দিতে পারছে না! অবিলম্বে চিকিৎসক নিয়োগ দিয়ে রোগীদের উন্নত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার দাবি তাদের। চিকিৎসক সংকটের কথা স্বীকার করে বাগেরহাট সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক কাম সিভিল সার্জন সার্জারি বিশেষজ্ঞ ডা. জি কে এম শামছুজ্জামান এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘এখানে নতুন যোগদান করেছি। এসে দেখছি এখানকার অধিকাংশ হাসপাতালে চিকিৎসক সংকট। এই লোকবল নিয়ে এতবড় জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা দিতে আমাদের রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত