রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ডাচ্-বাংলার বৃত্তি পেল ৩ হাজার ৯৮৬ জন

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০২:১১ এএম

২০১৮ সালের উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে স্নাতক পর্যায়ে অধ্যয়নরত ৩ হাজার ৯৮৬ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দিয়েছে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক। গতকাল শনিবার রাজধানীর মিরপুরে শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে আনুষ্ঠানিকভাবে বৃত্তিপ্রাপ্তদের মাঝে বৃত্তিপত্র হস্তান্তর করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘সবার জন্য মানসম্পন্ন শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করা আমাদের জাতীয় কর্তব্য। সরকারের একার পক্ষে এই বিশাল দায়িত্ব পালন করা দুরূহ। তাই বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এমনকি ব্যক্তিবিশেষ এগিয়ে এলে সরকার নতুনভাবে উজ্জীবিত হবে।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের মূল লক্ষ্য হচ্ছে ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে উন্নত দেশে পরিণত করা। এটি করতে হলে সবচেয়ে বড় যে জিনিসটা প্রয়োজন হবে সেটা হচ্ছে মানসম্পন্ন শিক্ষা। আমাদের মনে রাখতে হবে, এই প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে বেঁচে থাকতে হলে এই শিক্ষা দিয়েই আমাদের বেঁচে থাকতে হবে। সে জন্যই আমরা শিক্ষার ওপর জোর দিয়েছি।’

আইনমন্ত্রী বলেন,  এ জন্য সরকার বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের বছর শুরুর দিনেই পাঠ্যপুস্তক বিতরণ, যুগোপযোগী ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে সিলেবাস প্রণয়ন, ছাত্র-ছাত্রীদের উপবৃত্তি প্রদান, দেশে ও বিদেশে ফেলোশিপ প্রদান, কারিগরি শিক্ষার প্রসার, মাদ্রাসা শিক্ষা আধুনিকায়ন প্রভৃতি কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেন, সুবিধাবঞ্চিত ছাত্র-ছাত্রীদের ভবিষ্যৎ গঠনে এই অনন্য চেষ্টার জন্য ডাচ্-বাংলা ব্যাংক প্রশংসার দাবিদার। এই উদ্যোগ দেশের মানবসম্পদ উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রাখবে।

সভাপতির বক্তব্যে ব্যাংকটির চেয়ারম্যান সায়েম আহমেদ বলেন, ডাচ্-বাংলা ব্যাংক যখন জানতে পারল অর্থের অভাবে অসংখ্য শিক্ষার্থী শিক্ষাক্ষেত্রে সমান সুযোগ থেকে বঞ্চিত, তখনই ব্যাংক এই শিক্ষাবৃত্তি চালু করে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এ পর্যন্ত মোট ৫৭ হাজার ৬৯৬ জন শিক্ষার্থী ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের বৃত্তি পেয়েছে। যার মধ্যে বর্তমানে বিভিন্ন শিক্ষাস্তরের ১৮ হাজার ৫০০ জন শিক্ষার্থী এ সুযোগ গ্রহণ করছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত