সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

পুলিশের ‘আইজি ব্যাজ’ পুরস্কারেও রেকর্ড

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৩:৫৩ এএম

পুলিশ পদকের পর এবার আইজি ব্যাজ পুরস্কারেও রেকর্ডসংখ্যক কর্মকর্তা ও সদস্যের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও পুলিশের ৫০১ জন কর্মকর্তা ও সদস্যকে ‘আইজি ব্যাজ’ দেওয়া হবে। এরই মধ্যে পুরস্কারপ্রাপ্তদের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মনিরুজ্জামান স্বাক্ষরিত এ তালিকায় ‘এ’ ক্যাটাগরিতে ১৪৩, ‘বি’ ক্যাটাগরিতে ১৫৯, ‘সি’ ক্যাটাগরিতে ৮৩, ‘ডি’ ক্যাটাগরিতে ৪৫, ‘ই’ ক্যাটাগরিতে ৩৫ ও ‘এফ’ ক্যাটাগরিতে ৩৬ জনকে মনোনীত করা হয়েছে। এর আগে ২০১৮ সালে ৩৪৩ ও ২০১৭ সালের পুলিশ সপ্তাহে ২৮৮ জন পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যকে আইজি ব্যাজ পুরস্কার দেওয়া হয়।

পুলিশের সম্মানজনক বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) ও প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদকের (পিপিএম) জন্য রেকর্ডসংখ্যক ৩৪৯ জন কর্মকর্তা ও সদস্যকে মনোনীত করার পর থেকে পুলিশের মধ্যেই নানা আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দায়িত্ব পালনের পুরস্কার হিসেবে দেশের সব জেলার পুলিশ সুপারকে (এসপি) পদক দিতে গিয়ে যেমন পদকের সংখ্যা বেড়েছে, তেমনি অনেক সাহসী ও যোগ্য কর্মকর্তা বিপিএম ও পিপিএম পদক থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। মূলত তাদের ক্ষোভ প্রশমনের জন্য আইজি ব্যাজ পুরস্কারের সংখ্যাও বাড়ানো হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত ডিআইজি (ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড স্পেশাল অ্যাফেয়ার্স) মনিরুজ্জামান দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘পুলিশের সংখ্যা ও কাজের পরিধি বেড়েছে। প্রতিনিয়ত নানা ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হচ্ছে তাদের। এ ছাড়া জঙ্গিবাদ দমন করতে গিয়ে অনেকেই আহত হয়েছেন। বিভিন্ন কর্মকর্তার তদন্তে গুণগত মানের বিচারে ও জনশৃঙ্খলা এবং রাস্তাঘাটের নিরাপত্তায় নিয়োজিত পেশাদার কর্মকর্তাকে এই পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়েছে।’

পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) সোহেল রানা দেশ রূপান্তরকে বলেন, আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে পুলিশ কর্মকর্তাদের সাক্ষাতের পর দুপুর ১টা থেকে বিকেল ৩টার মধ্যে ‘আইজি ব্যাজ’ দেওয়া হবে।

আইজি ব্যাজ পুরস্কারপ্রাপ্তরা ২০ হাজার টাকা, একটি সনদপত্র ও একটি মেডেল পাবেন। এ ছাড়া ভবিষ্যতে যেকোনো পদোন্নতির ক্ষেত্রে এই ব্যাজ প্রভাবক হিসেবে কাজ করে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তারা। আইজি ব্যাজপ্রাপ্তদের মধ্যে

রয়েছেনÑ ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের পরিদর্শক শফিউদ্দিন শেখ, শিল্পপুলিশ-২-এর পরিদর্শক সেলিম রেজা, ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আবদুল হালিম, পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) এটিএসআই কামরুল হাসান ও পুলিশ সদর দপ্তরের অলিউল্লাহ।

পুরস্কারপ্রাপ্তদের মধ্যে আরও আছেন র‌্যাব-৭-এর মেজর মেহেদী হাসান, র‌্যাব-৮-এর মেজর খান সজিবুল ইসলাম, র‌্যাব-১২-এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এসপি) সাকিবুল ইসলাম খান, র‌্যাব-১৩-এর অতিরিক্ত এসপি মোতাহার হোসেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার একেএম মাহবুবুর রহমান, পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কে এম এ মামুন খান চিশতি, খুলনার বি সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সজীব খান, বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী, পাবনার ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহুরুল হক, সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম।

পুলিশ পরিদর্শকদের মধ্যে রয়েছেনÑ মোজাম্মেল হক, হুমায়ুন কবীর ও এস এম রাইসুল ইসলাম। সহকারী পরিদর্শক ও সার্জেন্ট পদমর্যাদার সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন আসাদুজ্জামান, এরশাদ আলম ও জুলহাস উদ্দিন। নায়েক পদমর্যাদার মধ্যে রয়েছেনÑ নাহিদ হাসান, সবুজ মিত্র, নূরুল হাসান ও নাজমুল ইসলাম।

পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা জানান, ২০১৮ সালে যারা ভালো কাজ করেছিলেন তারাই বিপিএম ও পিপিএম পদকের জন্য আবেদন করেছিলেন। কিন্তু সারা দেশের সব জেলার পুলিশ সুপারকে বিপিএম ও পিপিএম পদক দেওয়ায় প্রকৃত সাহসী ও যোগ্য পুলিশরা এই সম্মানজনক পদক থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। এ নিয়ে পদকবঞ্চিত অনেকেই অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের কাছে। এরপর ওইসব পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যদের আইজি ব্যাজ প্রদানের জন্য মনোনীত করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকা মহানগর পুলিশের একজন কর্মকর্তা দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘সারা বছর আমি যেসব অপরাধী ধরেছি, যেসব অবৈধ মালামাল উদ্ধার করেছি, সেইসব নিজেদের নামে দেখিয়ে আমার এসপি, অ্যাডিশনাল এসপি পদকের আবেদন করে বিপিএম, পিপিএম পেয়েছেন। আমাকে দেওয়া হয়নি। তবে সান্ত¡নার পদক হিসেবে আইজি ব্যাজপ্রাপ্তদের তালিকায় নাম রেখেছেন।’

পদকবঞ্চিতদের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে অতিরিক্ত ডিআইজি মনিরুজ্জামান বলেন, ‘ভালো কাজ অনেকেই করেছেন। তারপরও বিপিএম ও পিপিএমের নির্ধারিত সংখ্যার বাইরে অনেক কর্মকর্তা ও সদস্যকে এই পদক দেওয়া যায়নি। তাই তাদের সান্ত্বনা হিসেবেই আইজি ব্যাজ পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে। আইজি ব্যাজের জন্য যাদের নাম চূড়ান্ত করা হয়েছে, তাদের আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি রাজারবাগ পুলিশ গ্রাউন্ডে হাজির থাকতে বলা হয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত