রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

লিভারে চর্বি জমলে কী করবেন

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:১৪ এএম

ফ্যাটি লিভার বা লিভারে চর্বি জমা রোগ ইদানীং খুবই পরিচিত স্বাস্থ্য সমস্যা। লিভারে যখন ৫ শতাংশের বেশি চর্বি জমা হয়ে থাকে, তখনই তাকে ফ্যাটি লিভার বলে। ফ্যাটি লিভার দুই ধরনের : অ্যালকোহলিক এবং নন-অ্যালকোহলিক। যারা মদ্যপান করেন তাদের অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার হয়ে থাকে। তবে আমাদের দেশে এ ধরনের ফ্যাটি লিভারের হার কম। আমাদের এখানে নন-অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভারের প্রকোপ বেশি। গবেষণায় বলছে, বাংলাদেশে প্রাপ্তবয়স্কদের প্রায় ৩৪ শতাংশ নন-অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত।

আমাদের শরীরে শর্করা ও চর্বিজাতীয় খাবারের বিপাকক্রিয়ায় অসামঞ্জস্যের কারণে ফ্যাটি লিভার হয়। অতিরিক্ত ওজন, ট্রাইগ্লিসারাইড জাতীয় চর্বির আধিক্য, ডায়াবেটিস ইত্যাদি কারণে ফ্যাটি লিভারের ঝুঁকি বাড়ে। ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত হলে খাদ্যাভ্যাসের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। চলুন জেনে নেই ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত হলে খাদ্যাভ্যাস কেমন হওয়া উচিত

১. চিনি ও শর্করাজাতীয় খাবার যথাসম্ভব কম খেতে হবে। কোমলপানীয়, জুস, শরবত, সস, মিষ্টি ইত্যাদি পরিহার করতে হবে। পনির, মাখন, বিরিয়ানি ও অতিরিক্ত তেল-মসলাযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন। ভাতের পরিমাণ কমিয়ে খাবার তালিকায় জটিল শর্করাজাতীয় খাবার রাখা ভালো। ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত রোগীরা রুটি খেতে পারেন। রুটিতে আঁশের পরিমাণ বেশি হওয়ায় তা শরীরে কম শোষিত হয়। ফলে মেদ জমার সুযোগ কম থাকে।

২. ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত হলে গরুর মাংস, খাসির মাংস, ডিমের কুসুম, চিংড়ি ইত্যাদি খাবার তালিকা থেকে বাদ দিতে হবে। এ ধরনের রোগীরা প্রোটিনের ঘাটতি পূরণে মাছ খেতে পারেন। মনে রাখবেন, মাছ প্রোটিনের ভালো উৎস। মাছে ওমেগা তিন ফ্যাটি এসিড থাকে, যা লিভারের চর্বি শোধনে সহায়ক।

৩. প্রতিদিনের খাবার তালিকায় বিভিন্ন ধরনের বাদাম রাখুন। এ ছাড়া তিসির তেল, আখরোট ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে। এগুলো লিভারের চর্বি কমানোর জন্য উপকারী।

৪. আঁশজাতীয় শাকসবজি ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত রোগীদের জন্য উপকারী। ফুলকপি, ব্রোকলি, সবুজ শাক, অঙ্কুরোদ্্গমসহ ছোলা বীজ ইত্যাদি খেলে উপকার পাওয়া যায়। এ ছাড়া প্রতিদিন কিছু তাজা ফলমূল খেতে পারেন।

ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত হলে আতঙ্কিত না হয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। জীবনযাত্রার পরিবর্তন এবং সঠিক খাদ্যাভ্যাসের মাধ্যমে এই রোগ সহজেই নিয়ন্ত্রণযোগ্য।

ডা. শাহ মোহাম্মদ ফাহিম

চিকিৎসক, পুষ্টি ও চিকিৎসাসেবা বিভাগ আন্তর্জাতিক

উদরাময় কেন্দ্র

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত