রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

টি-টোয়েন্টি সিরিজও হারল পাকিস্তান

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:২৪ পিএম

দুর্দান্ত ব্যাটিং করলেন বাবর আজম। বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে তুললেন ঝড়। তাকে যোগ্য সমর্থন দিয়ে গেলেন হুসাইন তালাত। তাতে দারুণ ভাবেই লক্ষ্যের পেছনে ছুটে চলা পাকিস্তানের। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকান বোলাররা ম্যাচে ফিরল ঠিক সময়ে। শেষ ওভারে গড়ানো রোমাঞ্চকর ম্যাচে নায়ক বনে গেলেন আন্দিলে ফেলুকাওয়া। দারুণ জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিজেদের করে নিল প্রোটিয়ারা।

রোববার জোহানেসবার্গে পাকিস্তানকে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৭ রানে হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। আগে ব্যাট করে ৩ উইকেটে ১৮৮ রান করে স্বাগতিকরা। জবাব দিতে নেমে পাকিস্তান থেমেছে ৭ উইকেটে ১৮১ রান করে। তিন ম্যাচের সিরিজ এক ম্যাচ হাতে রেখেই নিজেদের করে নিল পাকিস্তান। এর আগে টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর ওয়ানডে সিরিজও ৩-২ এ হারে সফরকারী দল।

পাকিস্তানের টস জিতে ফিল্ডিং নেওয়ার সিদ্ধান্ত এদিন ভুল প্রমাণ করে প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানরা। দুই ওপেনার রিজা হেনড্রিক্স ও ডেভিড মালান উদ্বোধনী জুটিতে যোগ করেন ৫৮ রান। মালান ৩৩ রান করেন। দলীয় ৯০ রানে হেনড্রিক্স ব্যক্তিগত ২৮ রানে রান আউট হয়ে ফেরেন।

এরপর ফন ডার দুসেনের ২৭ বলে ৪৫ ও মিলারের ২৯ বলে ৬৫ রানের ঝড়ে রানের পাহাড়ে চড়ে প্রোটিয়ারা। দুসেন ফিরলেও মিলার অপরাজিত থেকে যান। তার ২৯ বলের ইনিংসে ছিল ৫টি ছক্কা ও ৪টি চার। পাকিস্তানের পক্ষে একটি করে উইকেট নেন ইমাদ ওয়াসিম ও শাহিন শাহ আফ্রিদি।

জবাব দিতে নেমে ঝড় তোলেন বাবর আজম। ফখর জামান ১৪ রান করে ফিরলেও হুসাইন তালাত করেন ৫৫ রান। দলীয় ১৪৭ রানে প্রোটিয়া বোলারদের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফেরেন বাবর। ৫৮ বলের ইনিংসে ১টি ছক্কা ও ১৩টি চার হাঁকান তিনি। এরপর আফিস আলি ফেরার পর ফিরে যান তালাতও। ব্যক্তিগত ৫৫ রান করে ফেরেন তিনি।

প্রোটিয়ারা তাতে দারুণভাবে ম্যাচে ফিরে। ১৯তম ওভারে তালাত সহ মোট দুই উইকেট শিকার করেন ক্রিস মরিস। শেষ ওভারে পাকিস্তানের সামনে সমীকরণ ছিল ১৫ রানের। হাতে ৫ উইকেট। কিন্তু দলটি জোড়া উইকেট হারিয়ে নিতে পারে ৭ রান।

প্রোটিয়া বোলারদের মধ্যে সর্বাধিক ৩ উইকেট নেন ফেলুকাওয়া। ২টি করে উইকেট নেন হেনড্রিক্স ও মরিস।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

দক্ষিণ আফ্রিকা: ১৮৮/৩ (২০ ওভার) (হেনড্রিক্স ২৮, মালান ৩৩, দুসেন ৪৫, মিলার ৬৫*; ইমাদ ১/৯, আফ্রিদি ১/২৭)

পাকিস্তান: ১৮১/৭ (২০ ওভার) (বাবর ৯০, তালাত ৫৫; ফেলুকাওয়া ৩/৩৬)

ফল: দক্ষিণ আফ্রিকা ৭ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরা: ডেভিড মিলার।

সিরিজ: তিন ম্যাচের সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকা ২-০ তে এগিয়ে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত