সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

যৌন হয়রানির অভিযোগে একুশে টিভির চিফ রিপোর্টার গ্রেপ্তার

আপডেট : ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০২:৪৪ পিএম

বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একুশে টিভির (ইটিভি) চিফ রিপোর্টার (প্রধান প্রতিবেদক) এমএম সেকান্দারকে গ্রেপ্তার করে পুলিশে সোপর্দ করেছে র‍্যাব-২।

যৌন হয়রানি ও উত্ত্যক্তের অভিযোগ এনে তার বিরুদ্ধে হাতিরঝিল থানায় নারী নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন এক নারী সাংবাদিক।

রোববার রাত আড়াইটার দিকে র‍্যাব-২ এর একটি দল সেকান্দারকে তার বনশ্রীর বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে। এরপর সোমবার সকালে তাকে হাতিরঝিল থানায় সোপর্দ করা হয়।

হাতিরঝিল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু মোহাম্মদ ফজলুল করীম বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১০ ধারায় ভুক্তভোগী নারী মামলাটি করেছেন। মামলা নং- ৩।

তিনি বলেন, “মামলায় সেকান্দার আলীকেই আসামি করা হয়েছে। তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। মামলায় ওই তরুণী যৌন হয়রানি ও উত্ত্যক্তের অভিযোগ এনেছেন।”

মামলা করার আগে এই নারী সাংবাদিক একুশে টিভি কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। ২৮ জানুয়ারি চ্যানেলটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর ‘এমএম সেকান্দার কর্তৃক নারী সহকর্মীকে যৌন হয়রানি’ শিরোনামে তিন পৃষ্ঠার লিখিত অভিযোগপত্র জমা দিয়েছেন। তাতে হয়রানির পুরো ঘটনা তিনি ব্যাখ্যা করেছেন।

ওই নারীর অভিযোগ, তাকে দীর্ঘদিন ধরে সেকান্দার যৌন হয়রানি করে আসছেন। বিষয়টি নিয়ে কয়েকবার টেলিভিশনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে কথা বলতে গেলেও তিনি তাদের কাছে পাত্তা পাননি।

ভুক্তভোগী নারীর অভিযোগ, একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে রিপোর্টিং কোর্স করার সময় সেকান্দারের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। সেখানে প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ করতেন তিনি। তার মাধ্যমেই একুশে টিভিতে চাকরি পান। চাকরি পাওয়ার পর থেকেই সেকান্দার তাকে বিভিন্ন সময় যৌন হয়রানি করেছেন।

কোনো কারণ ছাড়াই তাকে অনেক রাত পর্যন্ত অফিসে বসিয়ে রাখতেন। এরপর সেকান্দার তার নিজের গাড়িতে করে তাকে বাসায় পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে গাড়িতেও যৌন হয়রানি করতেন। এই কাজে চ্যানেলটির আরও কয়েকজন সেকান্দারকে সহায়তা করতো বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

একুশে টিভির বার্তা সম্পাদক দেবাশীষ রায় বলেন, “আমাদের ভুক্তভোগী সহকর্মী লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পর আমরা বিষয়টি জেনেছি। আমরা চাই এর সুষ্ঠু তদন্ত হোক। কর্মক্ষেত্রে এ ধরনের হয়রানি মানা যায় না। আমাদের নারী সহকর্মী সাহস করে প্রতিকার চেয়েছেন। আমরা তার সঙ্গে আছি। আমরাও চাই বিচার।”

এ বিষয়ে চ্যানেলটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ আলী শিকাদার বলেন, “আমি অভিযোগটা পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওই বিষয়টি তদন্ত করতে অফিসে একটি কমিটি করে দিয়েছি। নারী সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলেছি।”

তিনি বলেন, “আমি তাকে আইনি প্রক্রিয়ায় অগ্রসর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছি। কারণ ঘটনাটি ভয়াবহ, সেটি আঁচ করতে পেরেছি। এটা ফৌজদারি অপরাধ। এরপর তিনি মামলা করেছেন। পাশাপাশি সেকান্দারকে শোকজ করা হয়েছে।”

এমডি আরও বলেন, “আমরা ওই নারী সহকর্মীকে সব ধরনের সহায়তা দেওয়ার কথা জানিয়েছি। তার জন্য যা যা করার দরকার আমরা করব।”

সেকান্দার আটক থাকায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে তার পরিবারের ভাষ্যও পাওয়া যায়নি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত