রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সৃজনশীল কাজের মূল্যায়ন জরুরি

আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৩:০৭ এএম

কথাসাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক ছিলেন গতকাল বইমেলায়। এর মধ্যেই পাওয়া যায় তার একুশে পদকপ্রাপ্তির খবর। এ নিয়ে কথা বলেছেন পাভেল রহমান

 

দেশ রূপান্তর : একুশে পদক পাওয়ায় কেমন লাগছে?

আনোয়ারা সৈয়দ হক : অনেক দিন ধরে কাজ করছি। কাজের স্বীকৃতি হিসেবে এই পদকপ্রাপ্তি খুব আনন্দের। সৈয়দ শামসুল হক বেঁচে থাকলে ভীষণ খুশি হতেন। সবাই তো চায় তার কাজের মূল্যায়ন হোক। এই পদকের মাধ্যমে আমার কাজ মানুষ মনে রাখবে, আমাকেও মনে রাখবে। যেকোনো সৃজনশীল কাজের মূল্যায়ন জরুরি।

দেশ রূপান্তর : একুশে পদক পাওয়ার সংবাদ কি মেলাতেই পেয়েছেন?

আনোয়ারা সৈয়দ হক : না, আমি বাসায় থাকতেই এ খবর পেয়েছি। এরপর একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আমাকে মেলায় নিয়ে এসেছে। আমার ভীষণ ভালো লাগছে। সবাই দেখা হওয়ামাত্রই অভিনন্দন জানাচ্ছে। এমন খবর পাওয়ার পর এখানে আসা অন্যরকম আনন্দের।

দেশ রূপান্তর : মেলায় আপনার নতুন কী বই আসছে?

আনোয়ারা সৈয়দ হক : বেশ কয়েকটি নতুন বই এবার প্রকাশ হবে। ইতোমধ্যে ৩-৪টি বই এসেছে। মেলার মাঝামাঝি আরও ২-১টি আসবে। এই মুহূর্তে সব বইয়ের নাম মনে নেই। আমাদের তো ব্যক্তিজীবনের কাজগুলো গুছিয়ে বই লেখার কাজটা করতে হয়। ফলে কয়েকটি বইয়ের গোছানোর কাজ করছি।

দেশ রূপান্তর : মেলার সার্বিক অবস্থা কেমন?

আনোয়ারা সৈয়দ হক : এবার স্টলবিন্যাস বেশ ভালো হয়েছে। অনেক গোছানো মনে হচ্ছে। মানুষের ভিড় দেখেও ভালো লাগছে। তবে সৃজনশীল বই যেন প্রকাশ হয়, তার জন্য আমাদের সবাইকে কাজ করতে হবে। প্রকাশকদেরও বাণিজ্যিক দিক বিবেচনায় নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সৃজনশীল মান নিয়ে ভাবতে হবে। মেলায় অনেক তরুণ লেখক তাদের বই প্রকাশ করছে। তাদের মধ্য থেকে আগামী দিনের লেখক তৈরি হবে। তারা আমাদের সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করবে। এই মেলা ঘিরে অনেক পাঠক বই কিনছে, পড়ছে। এটাও বেশ ইতিবাচক দিক।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত