মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

দুর্ঘটনার কবলে যখন দাঁত

আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:৩৮ পিএম

সময়টা এখন ভ্রমণের। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস, পারিবারিক বনভোজন, ব্যাডমিন্টন অথবা ক্রিকেট খেলা সব মিলিয়ে সময়টাতে ব্যস্ত থাকে বেশিরভাগ মানুষ। ফলে দুর্ঘটনাও ঘটে বেশি, বিশেষ করে বাচ্চাদের।

দাঁতে আঘাত পেলে সাধারণত যা হয়

দাঁত ভাঙা : দাঁত ভাঙার গভীরতার ওপর নির্ভর করে উপসর্গ। যদি ভেতরকার মজ্জার কাছাকাছি না পৌঁছে তবে অমসৃণতা বা খসখসে ছাড়া তেমন কোনো অনুভূতি হয় না। সেক্ষেত্রে স্থানটিকে মসৃণ বা তার পাশাপাশি দাঁতের রঙের ফিলিং প্রয়োজন হয়। মজ্জা আক্রান্ত হলে দাঁত রক্ষায় রুট ক্যানেল চিকিৎসার বিকল্প থাকে না। দাঁত ওঠার পরে দুই থেকে আড়াই বছর লেগে যায় তার শেকড়ের পরিপূর্ণতায়, শেকড় তৈরির সময় মজ্জা ক্ষতিগ্রস্ত হলে রুট ক্যানেল চিকিৎসার আগে কৃত্রিম পদার্থ দিয়ে শেকড় তৈরির চিকিৎসা করে নিতে হয় । রুট ক্যানেল শেষে ক্রাউন করে নেওয়া জরুরি। অনেক সময় শেকড়সহ ভেঙে গেলে দাঁত ফেলে দেওয়ারও প্রয়োজন হতে পারে।

দাঁত নড়ে যাওয়া : দাঁত নড়ে গেলে বিশেষ চিকিৎসার মাধ্যমে নড়ে যাওয়া দাঁত পাশের দাঁতগুলোর সঙ্গে অনড় অবস্থায় পর্যাপ্ত সময় রাখলে দাঁত আবার শক্ত হয়ে যায়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নড়া দাঁত মৃত হয়ে যায় বলে দাঁতটির আনুষঙ্গিক চিকিৎসার প্রয়োজন পড়তে পারে। নড়ে যাওয়ার পরিমাণ, ডাক্তারের অভিজ্ঞতা, ডাক্তারের পরামর্শ মেনে চলা, রোগীর বয়স, ইত্যাদির ওপর চিকিৎসার সফলতা নির্ভর করে।

দাঁত পড়ে যাওয়া : অনেক সময় দুর্ঘটনা থেকে দাঁত শেকড়সহ বেরিয়ে আসতে পারে। আক্রান্ত ব্যক্তি বা সঙ্গের কেউ দ্রুত দাঁতটিকে খুঁজে দাঁতের ওপরের অংশটি ধরে পরিষ্কার পানিতে ধুয়ে আক্রান্ত ব্যক্তির জিহ্বার নিচে বা চোয়াল ও দাঁতের মধ্যবর্তী স্থানে রেখে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অনুমোদিত ডেন্টিস্টের শরণাপন্ন হতে হবে। রোগী অজ্ঞান হয়ে গেলে দাঁতটি দুধ বা নরমাল স্যালাইনে ভিজিয়ে ডাক্তারের কাছে আনতে হবে। চিকিৎসক চিকিৎসার মাধ্যমে দাঁতটি পুনরায় সঠিক স্থানে প্রতিস্থাপন করে দেবেন। এই চিকিৎসার সফলতা নির্ভর করে কত কম সময়ে দাঁতটি চিকিৎসার আওতায় এলো, রোগীর বয়স ও সহযোগিতা, রোগীর শারীরিক অবস্থা ইত্যাদির ওপর। দুর্ঘটনা থেকে দাঁতটির ভালো চিকিৎসা না থাকলে দাঁত ফেলে দিয়ে সেখানে কৃত্রিম দাঁত প্রতিস্থাপন জরুরি।

সুতরাং দুর্ঘটনায় দাঁত আক্রান্ত হলে অন্য সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে যত দ্রুত সম্ভব ডেন্টাল চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। চিকিৎসক নির্বাচনে সর্বাধিক সচেতন হতে হবে, চিকিৎসক দেখে অনুমোদনহীন ভুয়া চিকিৎসকের খপ্পরে পড়লে সমস্যা বাড়তে পারে।

দাঁত ছাড়াও দুর্ঘটনায় চোয়ালের হাড় ভাঙতে পারে, জিহ্বা ঠোঁট কাটতে পারে, এ ধরনের জটিলতায় সঠিক চিকিৎসা পেতে দেশেই এখন উন্নত ও বিশ্বমানের ম্যাক্সিলো ফেসিয়াল চিকিৎসক আছেন। অনুমোদিত চিকিৎসাকেন্দ্রে চিকিৎসার সফলতা প্রায় শতভাগ।

ডা. মো. আসাফুজ্জোহা রাজ

রাজ ডেন্টাল সেন্টার, কলাবাগান

রাজ ডেন্টাল ওয়ার্ল্ড, ধানমণ্ডি-১৩

০১৯১১৩৮৭২৯১

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত