বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

রিহ্যাব মেলা

আকর্ষণের কেন্দ্রে স্টল নম্বর ২

আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:১০ পিএম

রাজধানী শহরকে নতুন রূপ দিতে আরামদায়ক ও নিরাপদ বাসস্থান তৈরি করছে গেটেড কমিউনিটিভিত্তিক আবাসিক এলাকা ‘রূপায়ণ সিটি উত্তরা’। যেখানে একসঙ্গে থাকছে নির্দিষ্ট আবাসন প্রকল্পে বসবাসকারীদের জন্য উন্মুক্ত পরিবেশ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, পার্ক, খেলার মাঠ, বিপণিবিতান, তারকাসম্পন্ন হোটেল ও সার্বক্ষণিক নিরাপত্তাব্যবস্থাসহ বিনোদনের সব ব্যবস্থা। এমন একটি স্বপ্নের প্রকল্পে নিজের এক টুকরো নিবাস খুঁজতে রিহ্যাব মেলায় ভিড় জমাচ্ছেন ক্রেতারা।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায়, মেলায় ঢুকতেই ডান দিকের রূপায়ণ সিটি উত্তরার ২ নম্বর স্টলটি চোখে পড়ে। সেখানে আবাসন ক্রেতারা আসছেন, জানছেন রূপায়ণ সিটি উত্তরার প্রকল্প সম্পর্কে। তাদের কেউ কেউ চূড়ান্ত আলাপ-আলোচনা করছেন বিনিয়োগ করার বিষয়ে।

স্টলে মিরপুর থেকে এসেছেন বেসরকারি চাকরিজীবী আদনান রহমান। দেশ রূপান্তরকে তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন স্টল ঘুরে মনে হলো এই প্রজেক্ট একটু হলেও আলাদা। সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে জেনে নিলাম। পরিবারের সঙ্গে আলোচনা করে নিজের স্বপ্নের মতো একটা ফ্ল্যাট বা প্লট বুকিং দেব ভাবছি।’

স্টলে গ্রাহকদের বিভিন্ন সুবিধার কথা জানাচ্ছেন রূপায়ণ সিটি উত্তরার সহকারী ম্যানেজার (সেলস) ফয়সাল শেখ। তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বাংলাদেশে প্রথম রূপায়ণই এক মেগা গেটেড কমিউনিটি করেছে ১৪০ বিঘা জমির ওপরে। যেখানে আমরা শুধু ফ্ল্যাট বিক্রি করছি না। লাইফস্টাইল বিক্রি করছি। সেখানে সুপরিকল্পিতভাবে তৈরি হচ্ছে নগরায়ণ। থাকছে খেলার মাঠ, মসজিদ, স্কুল। সবকিছুই একটার মধ্যে পাচ্ছেন গ্রাহক। নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করছি আমরা।’

তিনি বলেন, ‘এই প্রজেক্টে সুইমিং পুল থাকছে, বাচ্চাদের জন্য খেলার মাঠ থাকছে, আলাদা ¯œাইকিং জোনও দেওয়া হয়েছে। এমনকি সিটিজেনদের জন্যও আমরা আলাদাভাবে থাকার সুব্যবস্থা করেছি, যাতে কারও কোনো সমস্যা না হয়। ডায়বেটিক রোগীদের জন্য আলাদা জোন করছি।

প্রজেক্টের পাশ দিয়ে লেক হচ্ছে। প্রজেক্টটাও পুরো প্যারিফ্যারাল রোডে তিনটা ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এখানে লাক্সেরি অ্যাপার্টমেন্ট, ডুপ্লেক্স ভবন এবং বিশাল পরিসরে প্যান্থ হাউজ নিয়ে।’পুরো প্রজেক্ট সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে যতগুলো সোসাইটি তৈরি হয়েছে তার মধ্যে আমাদের সোসাইটি সব থেকে বেস্ট। কারণ আমাদের সোসাইটির সামনে ৩০০ ফুট রোড। প্রকল্প থেকে মাত্র ৫ মিনিট দূরত্বে মেট্রোরেল। রাজধানী ভবিষ্যতে সেন্ট্রালাইজড হওয়ার পর এই প্রজেক্টটা হবে ঢাকার প্রাণ। এই প্রজেক্টর মূল আকর্ষণ হলো আমরা ৬৩ শতাংশ জায়গা খোলামেলা রাখছি। যেটা এ পর্যন্ত কেউ করেনি।’

রূপায়ণ সিটি উত্তরাতে ফ্ল্যাট বা প্লট পাওয়া যাবে সাশ্রয়ী মূল্যে এমন তথ্য জানিয়ে ফয়সাল বলেন, ‘ভালো কিছু পেতে হলে একটু বেশি টাকা গুনতে হবেÑ এটাই স্বাভাবিক। আমরা কিন্তু তা নিচ্ছি না। কিস্তিতে আমাদের সেলস-এর প্রক্রিয়াটা অনেক সহজ এবং মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে। এক কথায়, সাধ্যের মধ্যে স্বল্প মূল্যে আমরা দিচ্ছি স্বপ্নের ফ্ল্যাট।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত