সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বকেয়া বেতন না দিয়েই বন্ধ জয়পুরহাট চিনিকল

আখচাষিদের পাওনা ১১ কোটি টাকা

আপডেট : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:২৪ পিএম

আখচাষিদের বকেয়া ও শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা না দিয়েই এ মৌসুমের দেড় মাসের মাথায় আখমাড়াই কার্যক্রম বন্ধ করে দিল জয়পুরহাট চিনিকল। মিলের শ্রমিক-কর্মচারীরা মাসের পর মাস বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। চাষিরা বকেয়া টাকা না পেয়ে আখ চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন।চলতি মৌসুমে গত ২১ ডিসেম্বর জয়পুরহাট চিনিকলে আখমাড়াই শুরু হয়। এর মাত্র দেড় মাসের মাথায় আখ সংকটে গত বৃহস্পতিবার এবারের মতো চিনি উৎপাদন বন্ধ ঘোষণা করা হলো। এদিকে আখ বিক্রির টাকা না পেয়ে আখ চাষে উৎসাহ হারাচ্ছেন এখানকার চাষিরা। এ মৌসুমে তাদের পাওনা ১১ কোটি টাকা। পাঁচবিবি উপজেলার আয়মা বুধইল এলাকার আখচাষি আবদুল কাদের, জয়নুল আবেদীন, আনোয়ার হোসেনসহ আরও কয়েকজন বলেন, মাসের পর মাস ঘুরেও তাদের কষ্টের ফসলের টাকা পাচ্ছেন না। ফলে এই চিনিকলের আখচাষিদের পরিবার-পরিজন নিয়ে কষ্টে দিন কাটাতে হচ্ছে। সময়মতো আখ বিক্রির টাকা পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন তারা। এদিকে জয়পুরহাট চিনিকল শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব জানান, দেশের অন্যতম বৃহৎ এই চিনিকলে এক হাজার শ্রমিক কর্মচারী রয়েছেন। তারা গত চার মাস কোনো বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না। দ্রুত সময়ের মধ্যে আখচাষিদের বকেয়া ও শ্রমিকদের বেতন-ভাতা পরিশোধের জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি। জয়পুরহাট চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তফা কামাল বলেন, আখ সংকটে চিনিকল বন্ধ করা হয়েছে। তিনি বলেন, এ মৌসুমসহ বিগত কয়েক বছরের চার হাজার টন চিনি মজুদ রয়েছে, যার মূল্য ২০ কোটি টাকা। আর কৃষকরা পাবেন ১১ কোটি টাকা। চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারীদেরও কয়েক মাসের বেতন-ভাতা বকেয়া রয়েছে। দ্রুত এসব বকেয়া পরিশোধ করা হবে। তিনি জানান, সময়মতো চিনি বিক্রি না হওয়ায় বছরের পর বছর লোকসানের বোঝা মাথায় নিয়ে চলছে এই চিনিকল।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত