রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

দেশি ক্রিকেটারদের সাফল্য

আপডেট : ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২:২৪ এএম

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসর নিজেদের করে নিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। এক মৌসুম পর শিরোপা পুনরুদ্ধার করেছে দলটি। ব্যাটে-বলে দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এই আসরে বিদেশি ক্রিকেটারদের পাশাপাশি নৈপুণ্যে ছড়িয়েছেন দেশিরাও। বলতে গেলে দেশিরা একটু এগিয়েই আছেন। টুর্নামেন্টের প্রথম পর্বে বিদেশির সঙ্গে লড়াইয়ে পেরে ওঠেননি দেশি ক্রিকেটাররা। কিন্তু আসর পুরনো হতে-হতেই ঘরের ছেলেরা নিজেদের সামনে নিয়ে আসেন। টুর্নামেন্ট শেষে পারফরম্যান্সের দিকে তাকালে দেখা যাবে, দেশিরা ছাড়িয়ে গেছেন বিদেশি ক্রিকেটারদের। ব্যাটে-বলে সমান পারদর্শিতা দেখিয়ে টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার তুলে নিয়েছেন সাকিব আল হাসান।

বিপিএলে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকদের তালিকায় বরাবরের মতো শীর্ষেই আছেন রাইলি রুশো। এই একটি জায়গায় কোনো পরিবর্তন হয়নি। বিপিএলের এক আসরে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের রেকর্ড গড়েছেন এই দক্ষিণ আফ্রিকান। ১৪ ম্যাচে এই ব্যাটসম্যানের সংগ্রহ ৫৫৮ রান। পাঁচটি হাফসেঞ্চুরি ও একটি সেঞ্চুরি আছে তার। ফাইনালের আগ পর্যন্ত দ্বিতীয় ছিলেন মুশফিকুর রহিম। ফাইনালে এক দুর্ধর্ষ সেঞ্চুরিতে তালিকার পঞ্চম থেকে এক লাফে দুইয়ে উঠে এসেছেন তামিম ইকবাল। ১৪ ম্যাচে দুটি হাফসেঞ্চুরি ও একটি সেঞ্চুরিতে ৪৬৭ রান এই ওপেনারের। তিনে নেমে যাওয়া মুশফিক তিনটি হাফসেঞ্চুরিতে ৪২৬ রান করেছেন ১৩ ম্যাচে। ৩৭৯ রানে চতুর্থ নিকোলাস পুরান, ৩৩৯ রানে লরি ইভান্স পঞ্চম।

বোলিংয়ে অবিশ্বাস্য সাফল্য দেশিদের। সেরা দশ বোলারের আটজনই বাংলাদেশি। এরমধ্যে শীর্ষ পাঁচে জায়গা হয়নি কোনো বিদেশির। পুরো আসরে দারুণ বোলিংয়ে শীর্ষস্থান দখলে রেখেছিলেন তাসকিন আহমেদ। ফাইনালে উইকেট নিয়ে মোট ২৩ শিকারে তাসকিনকে টপকেছেন সাকিব। এক উইকেট কম নিয়ে দ্বিতীয় তাসকিন। সমান ২২ উইকেট নিয়ে তৃতীয় মাশরাফী। চতুর্থ স্থানে থাকা রুবেল হোসেনেরও ২২ উইকেট। ২০ উইকেট নিয়ে শীর্ষ পাঁচে জায়গা করে নিয়েছেন মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন।  এছাড়া সুনিল নারাইন ও আবু জায়েদ সমান ১৮ উইকেট নিয়ে যথাক্রমে পঞ্চম ও ষষ্ঠ। এছাড়া সমান ১৭ উইকেটে ফরহাদ রেজা ও খালেদ আহমেদ যথাক্রমে সপ্তম ও অষ্টম। ১৬ উইকেটে পাকিস্তানি ওয়াহাব রিয়াজ দশম। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত