রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

জবানবন্দির বরাতে পিবিআই

মাদক কারবারি পিংকির টাকায় রাসেল খুন

আপডেট : ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৫০ পিএম

ইয়াবার একচ্ছত্র কারবার চালাতে প্রতিদ্বন্দ্বী মাদক ব্যবসায়ী পারভেজকে খুন করাতে চেয়েছিলেন আরেক মাদক ব্যবসায়ী পিংকি। এজন্য তিনি ৫ লাখ টাকার চুক্তি করেছিলেন বাবু ওরফে হোন্ডা বাবু ও সজল ওরফে পিচ্চি সজলের সঙ্গে। অগ্রিম ১৭ হাজার টাকা নিয়ে বাবু ও সজলসহ পাঁচজন পারভেজের শরীরে শতাধিক ছুরিকাঘাত করেন। আর ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের জেরে সজল কৌশলে পূর্বপরিচিত রাসেলকে ডেকে নিয়ে ছুরিকাঘাতে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যান। 

হত্যা মামলায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) হাতে গ্রেপ্তার হওয়া দুই আসামি সজল ওরফে পিচ্চি সজল ও হোসেন বাবু ওরফে হোন্ডা বাবু গতকাল রবিবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। সেই জবানবন্দিতে তারা এসব কথা বলেছেন বলে জানিয়েছেন পিবিআইয়ের এক কমর্কর্তা। তিনি জানান, জবানবন্দি শেষে আদালতের নির্দেশে দুজনকেই কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

পিবিআইয়ের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) বনোজ কুমার মজুমদার দেশ রূপান্তরকে বলেন, ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে  রাজধানীর কদমতলী থানাধীন এলাকায় রাসেল  ও পারভেজ নামে নামে দুই যুবককে কে বা কারা ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পর চিকিৎসাধীন পারভেজ বেঁচে গেলেও মৃত্যু হয় রাসেলের। এ ঘটনায় কদমতলী থানায় হত্যা মামলা হয়। হত্যারহস্য উদঘাটন করতে না পেরে থানা পুলিশের তদন্ত কর্মকর্তা আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। এতে নিহত রাসেলের মা ও মামলার বাদী রাশিলা বেগম এই প্রতিবেদনে নারাজি দিলে আদালত তদন্তভার ন্যস্ত করে পিবিআইয়ের ওপর।

বনোজ কুমার মজুমদার বলেন, ‘পিবিআই তদন্ত শুরু করার পর ধীরে ধীরে হত্যারহস্য উদঘাটন হতে থাকে। প্রথমে হত্যাকাণ্ডে জড়িত দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী সজল ওরফে পিচ্চি সজল গ্রেপ্তার হয়।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত