বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

কাপ্তাইয়ে চাষির মুখে হাসি

তামাক ছেড়ে সবজি চাষ

আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:৫০ পিএম

কয়েক বছর আগেও রাঙ্গামাটির কাপ্তাই উপজেলার মাঠ জুড়ে ছিল তামাকের দাপট। সম্প্রতি তামাকের আগ্রাসন থেকে বেরিয়ে এসে চাষিরা সবজি চাষ শুরু করেছেন। দিন দিন সবজিচাষির সংখ্যা বাড়ছে; কমছে তামাক চাষ। তামাকের রাজ্যখ্যাত কাপ্তাইয়ে এখন চলছে সবজির দাপট। সবজি চাষ করে সাফল্যের হাসি ফুটছে চাষিদের মুখে।উপজেলার ওয়াজ্ঞা এলাকার কৃষক নুরুল আমিন জানান,ওয়াজ্ঞা এলাকার ছড়া পাড়ের বিস্তীর্ণ জমিতে কয়েক যুগ ধরে শুধু তামাকের চাষ হতো। তামাক ছাড়া ওই জমিতে অন্য কোনো ফসল হবে না বলে সবার ধারণা ছিল। তাই সারা বছর জমিতে তামাক দেখা যেত। তিনি বলেন, ‘তামাক চাষে লাভ বেশি ভাবা হলেও, তাতে শারীরিক অসুস্থতা আর মনে অশান্তি ছিল। মানুষ তামাক চাষ করাকে ভালোভাবে দেখত না। আমরা তামাক চাষ করছি কথাটা কারও কাছে বলাও যেত না। সব সময় এক ধরনের অপরাধবোধ কাজ করত।’ তিনি বলেন, ‘এখন তামাকের জমিতে সবজি চাষ হচ্ছে। ফলনও ভালো। আমরা এখন গর্ব করে সবাইকে বলতে পারি, তামাক নয়, আমরা সবজি চাষ করছি।’

একই এলাকার বর্গাচাষি কামাল উদ্দিন বলেন, বছর তিনেক আগে তামাকের জমিতে লাউ, বেগুন, ঢেঁড়স ইত্যাদি চাষ শুরু করেন। পরের বছর একই জমিতে বিভিন্ন সবজির সঙ্গে টমেটোর চাষ করেন। ভালো ফলন হওয়ায় তার মুখে সাফল্যের হাসি ফুটেছে। গত বছর থেকে তিনি তিত করলার চাষ শুরু করেছেন। গত কয়েক মাসে এক একর জমি থেকে প্রায় ৭৫ হাজার টাকার বেগুন বিক্রি করেছেন তিনি। উপজেলা সদর বরইছড়ি বাজারে বসেছে সবজির আড়ত। তাই সবজি বিক্রি করতেও বেশি দূরে যেতে হয় না। শীলছড়ির কৃষক আলম ব্যাপারী জানান, তামাক চাষের ক্ষতিকর দিক বিবেচনা করে তিনি তামাক চাষ ছেড়ে শাকসবজির চাষ শুরু করেন। সমন্বিত সবজি চাষ তামাক চাষের চেয়ে লাভজনক বলে জানান তিনি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শামসুল আলম চৌধুরী জানান, তামাক চাষের জমিতে এখানে সবজি চাষের বিপ্লব ঘটেছে। ফসলের বৈচিত্র্য আনার লক্ষ্যে শাকসবজির পাশাপাশি ফুল চাষেও সহযোগিতা করা হচ্ছে। কাপ্তাই উপজেলা চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন তামাকের বদলে সবজি চাষের জন্য চাষিদের আহ্বান জানান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহমেদ রাসেল বলেন, এখানকার কৃষকরা যাতে আর কোনোভাবে তামাক চাষের দিকে ঝুঁকে না পড়েন, সেদিকে নজর রাখা হচ্ছে। কাপ্তাইয়ে তামাকের আগ্রাসন রোধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত