সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

‘আন্ডারডগ’ থাকাতেই আনন্দ

আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৫৯ পিএম

অকল্যান্ড থেকে নেপিয়ারে বিমানে গেলে ১ ঘণ্টা। সড়কপথে ৬ ঘণ্টা। এর একটি বেছে নিতে বললে কী করতেন? অধিকাংশের জবাব ‘বিমান’ নির্ঘাত। তবে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা আর তামিম ইকবাল ও পথ মাড়ালেন না। ছোট বিমানে তাদের বড্ড ভয়। তাই সড়ক পথে ৬ ঘণ্টার জার্নি করে সোমবার পৌঁছেছেন প্রথম ওয়ানডের ভেন্যু নেপিয়ারে। যেখানে আজ সকাল ৭টায় তিন ম্যাচের সিরিজের প্রথম ওয়ানডে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।ওয়ানডেতে নিউজিল্যান্ড দুর্ধর্ষ। দেশের মাটিতে অপ্রতিরোধ্য প্রায়। অবশ্য মাত্রই ভারতের বিপক্ষে ৪-১-এ সিরিজ হেরে বসেছে। আর টি-টোয়েন্টি সিরিজ ২-১ জিতে ফিরেছে। তবে ওয়ানডের হার দিয়ে ‘ব্ল্যাক ক্যাপস’ দলকে বিবেচনা করলে চরম ভুল হবে। ঘরের মাঠে তারা আবার কখনো বাংলাদেশের বিপক্ষে হারেনি। তবু মাশরাফীর দলকে হেলাফেলা করার উপায় নেই। যদি কেউ করেন তাও সমস্যা নেই। বাংলাদেশের ইংলিশ কোচ স্টিভ রোডসের বরং ‘আন্ডারডগ’ ট্যাগটা পছন্দ। যদিও লক্ষ্য জয়।

‘জানি এটা খুব কঠিন হবে। আমাদের বাস্তববাদী হতে হবে।’ রোডস গতকাল নেপিয়ারে সাংবাদিকদের বলছিলেন, ‘কিন্তু আমরা আন্ডারডগ থাকতেই পছন্দ করছি। আন্ডারডগ হিসেবে আমরা অনেককে চমকে দিতে পারি। আমার ধারণা, নিউজিল্যান্ডও জানে আমাদের হারাতে যথেষ্ট ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে।’দল দুটি একে অন্যের সঙ্গে ৩১ ম্যাচে লড়েছে। ১০টিতে জিতেছে বাংলাদেশ। আবার ২০১০ থেকে দেশের মাটিতে সম্পূর্ণ হওয়া সাত ম্যাচের প্রতিটি জিতেছে বাংলাদেশ। মানে দুই সিরিজ জয়। কিন্তু ২০০৭ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডে খেলা ১০ ম্যাচই হেরেছে।অবশ্য ইনজুরি কাটিয়ে লড়তে তৈরি হওয়া কিউই ওপেনার মার্টিন গাপটিল বলছেন, ‘বাংলাদেশ মানসম্পন্ন দল। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শেষ ম্যাচটাতে আমাদের হারিয়ে তা তারা প্রমাণও করেছে।’

নিরপেক্ষ ভেন্যু কিউইদের বিপক্ষে খেলা আট ম্যাচের মাত্র দুটিতে জয় বাংলাদেশের। এর মধ্যে ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে কার্ডিফে একটি। ওটি ভুবনবিখ্যাত। অন্যটি ওই টুর্নামেন্ট শুরুর আগে আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনে। এর সঙ্গে আছে শেষ সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২-১ বাংলাদেশের জয়ের প্রেরণা।

সমস্যা হলো বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অস্ত্র সাকিব আল হাসান বিপিএলের ফাইনালে ইনজুরিতে পড়েছেন। তার আগে নিজের শেষ খেলায় পেসার তাসকিন আহমেদও চোটে। দুজনারই নিউজিল্যান্ড সিরিজ শেষ। ওটা চিন্তিত করলেও কোচ রোডস অধিনায়কের কাছ থেকে বিশ্বাসের ছোঁয়া নিলেন, ‘কাজটা কঠিন হলেও অধিনায়ক মাশরাফী বলেছে তার মানে এই না যে আমরা জিততে পারব না। সম্প্রতি ওয়ানডে ক্রিকেট খুব ভালো খেলেছি আমরা। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুবার হারিয়েছি। এ থেকে বড় প্রেরণা নিচ্ছি আমরা।’

তবে দীর্ঘ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ২০ ওভারের ফরম্যাট আর এই সংস্করণ তো ভিন্ন। রোডস বলছেন, ‘প্রস্তুতিটা আদর্শ না হলেও আমরা ভালো খেলার আশা ঠিকই করছি।’ নিউজিল্যান্ড দেশে এমনিতে ভয়ংকর হলেও তাদের আরও ভয়ংকর ভাবার কারণ আছে। ভারতের কাছে ওই হারের ক্ষত তারা বড় কিছু করে শুকাতে চাইবে। রোডস সেই কথা মাথায় রেখে বলেছেন, ‘ঘুরে দাঁড়াতে তারা ওই ক্ষতকে ব্যবহার করবে। ফিরে আসা কঠিন নিউজিল্যান্ডের জন্য তবে আমাদের তৈরি থাকতে হবে।’

অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন, অভিজ্ঞ রস টেইলর, দুর্দান্ত টম ল্যাথাম রানে আছেন। ফিট গাপটিলের সঙ্গে থাকছেন হেনরি নিকোলস। ট্রেন্ট বোল্ট, ম্যাট হেনরিরা ভারতের বিপক্ষে সিরিজে একটিতে খুব ভালো করেছিলেন। টিম সাউদি সাদা বলে খুব সুইং না পেলেও লকি ফার্গুসনের বাড়তি পেস কাজে আসতে পারে। সিরিজে বাংলাদেশের মূল প্রতিপক্ষ হয়ে যেতে পারে এই পেস আক্রমণই।

সেদিন বিপিএলের ফাইনালে ৬১ বলে অপরাজিত ১৪১ রানের ইনিংস খেলা তামিম ইকবাল বাংলাদেশের শীর্ষে বড় ভরসা। সৌম্য সরকার ও লিটন দাসের কাজ তাকে নিশ্চিন্তে রাখা। নইলে দুই অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহর ওপর চাপ বেড়ে যাবে। সাব্বির রহমান ফিনিশিং দিতে পারবেন কি না তা দেখার।

মাশরাফীদের পেস আক্রমণ ভালো। বিশেষ করে সøগ ওভারে রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনকে ঠাণ্ডা মাথায় দায়িত্ব নিতে হবে। সাকিবের অনুপস্থিতিতে মেহেদী হাসান মিরাজ ও অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা নাঈম হাসানের বড় কাজ। সাকিব নেই বলে রুবেলের জায়গায় সাইফউদ্দিন একাদশে ঢুকলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত