সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

কয়লা গুদাম থেকে গোলপোস্টে

আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০১:০২ এএম

লেভ ইয়াসিনের পর দ্বিতীয়সেরা গোলকিপার বলা হয় গর্ডন ব্যাঙ্কসকে। ১৯৬৬ সালের বিশ্বকাপজয়ী ইংল্যান্ড দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৭০ সালের মেক্সিকো বিশ্বকাপে পেলের হেড অবিশ্বাস্যভাবে সেভ করে কিংবদন্তি হয়ে আছেন। একটা প্রবাদ চালু আছে ইংল্যান্ডে, ‘সেভ অ্যাজ দ্য ব্যাঙ্কস অব ইংল্যান্ড।’ যাহোক, প্রবাদপ্রতিম এই গোলকিপার জন্মেছিলেন শেফিল্ডের শ্রমজীবীপ্রধান অঞ্চলে। ছোটবেলায় শেফিল্ড বয়েজ স্কুলে দুটি ম্যাচ খেলানোর পর ব্যাঙ্কসকে বাদ দেওয়া হয়েছিল। তখন তার বাবা বলেছিলেন যেহেতু ফুটবল খেলা তোমাকে দিয়ে হলো না তাই অন্য কাজ করে রোজগার করো। ১৫ বছরের ব্যাঙ্কস তখন কয়লা গুদামে কাজ শুরু করেন। পরে এ সম্পর্কে তিনি এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ‘আমার কাজ ছিল বেলচা দিয়ে কয়লা বস্তায় ভরা। তারপর একটা গাড়িতে করে সেগুলো বিভিন্ন বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া। তখন বুঝতে পারিনি সেই কাজ করতে গিয়েই আমার হাত ও পায়ের পেশি শক্তিশালী হয়েছিল। ফুটবল জীবনের এর সুফল পেয়েছি।’ ব্যাঙ্কস কিশোর বয়সে বাড়ি তৈরির কাজও করেছেন। মাটি কেটেছেন। করতে হয়েছে চুন-সুরকি-সিমেন্ট মেশানোর কাজও। ফুটবল মাঠের বাইরের এই কাজগুলো দমাতে পারেনি ব্যাঙ্কসকে। বরং পরবর্তী জীবনের জন্য তৈরি হতে সাহায্য করেছিল।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত