শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

নদীভাঙন আতঙ্কে কয়রার তিন গ্রামের মানুষ

আপডেট : ০১ মার্চ ২০১৯, ১০:৩৮ পিএম

কপোতাক্ষ নদের তীরবর্তী খুলনার কয়রা উপজেলায় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ১৩-১৪/২ নং পোল্ডারের পাঁচ কিলোমিটার এলাকার বেড়িবাঁধে ভাঙন দেখা দিয়েছে। এর ফলে নদীভাঙন আতঙ্কে রয়েছে উপজেলার গোবরা, ঘাটাখালী ও হরিণখোলা গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ।

এলাকাবাসী জানায়, পাউবো ১৩-১৪/২ নং পোল্ডার গোবরা, ঘাটাখালী ও হরিণখোলা গ্রামের পাশ দিয়ে চলে গেছে। গ্রাম তিনটিতে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষের বসবাস। প্রায় আট বছর ধরে ২ নম্বর কয়রা ঘাটাখালী স্লুইসগেট থেকে গোবরা আফতাব মাস্টারের বাড়ি পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ভাঙন চলছে। দেড় বছর ধরে ভাঙন আরও প্রবল আকার ধারণ করেছে। এরই মধ্যে ভাঙনে নদীগর্ভে ৬০০ একর জমি বিলীন হয়ে গেছে। নদীর পানি বৃদ্ধিতে বাঁধের গোড়ার মাটি সরে যাচ্ছে। অধিকাংশ জায়গায় বাঁধের গোড়ায় মাটি না থাকায় সংকীর্ণ ও খাড়া হয়ে গেছে বাঁধ। দুর্বল বাঁধ ভেঙে যেকোনো মুহূর্তে নদীতে বিলীন হয়ে যেতে পারে ওই তিনটি গ্রাম।

হরিণখোলা এলাকা বাসিন্দা মনিরুজ্জামান বলেন, এরই মধ্যে হরিণখোলা ও ঘাটাখালী গ্রাম দুটির এক-তৃতীয়াংশ জমি ভাঙনে নদীতে চলে গেছে। গোবরা গ্রামের তিন ভাগের এক ভাগ বিলীন হয়েছে। ঘাটাখালী এলাকার বাসিন্দা আবদুস সামাদ বলেন, ‘হরিণখোলা আর আমাগের গ্রাম প্রায় শেষ। অল্প জায়গা ভাঙতি বাকি আছে। এটুক ভাঙলি এই দুই গ্রাম বলে আর কিছু থাকবে নানে।’ গোবরা গ্রামের বাসিন্দা আছাফুর রহমান বলেন, গত দুই সপ্তাহ ধরে বেড়িবাঁধের ধস বেড়েই চলেছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকার প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে।

কয়রা সদর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান মোস্তফা নাজমুছ ছাদাত বলেন, শুষ্ক মৌসুমে ভাঙনরোধে ব্যবস্থা না নেওয়া হলে কয়রা সদরের দরিদ্র মানুষ বসতবাড়িসহ ফসলি জমি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়বে। এ ব্যাপারে পাউবো কয়রা উপজেলা সেকশন কর্মকর্তা মশিউল আলম বলেন, কয়রা এলাকার পাউবোর বেড়িবাঁধের সমস্ত স্পর্শকাতর স্থানগুলোর সার্বিক অবস্থা জানিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্র্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় অর্থ পেলেই দ্রুত বেড়িবাঁধ সংস্কার করা হবে।

কয়রার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিমুল কুমার সাহা বলেন, স্থানীয়ভাবে বাঁধের কিছু কাজ করা হয়েছে। পাউবো কর্র্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে ভাঙনরোধে খুব দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত