মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ছাত্রলীগ সভাপতির রঙিন পোস্টার দেয়ালে

আপডেট : ০২ মার্চ ২০১৯, ০৩:০৯ এএম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে সহসভাপতি (ভিপি) প্রার্থী ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। ছাত্রলীগের প্যানেলের বাইরে যারা স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করছেন, তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহারে চাপ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে সংগঠনটির শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে।

গতকাল শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বিভিন্ন দেয়ালে শোভনের জন্য ভোট চেয়ে রঙিন পোস্টার সাঁটানো হয়। সেখানে লেখা আছে, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নির্বাচন, ২০১৯ সম্মিলিত শিক্ষার্থী সংসদ মনোনীত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে ভিপি পদে আপনার মূল্যবান ভোট দিয়ে শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ে সুযোগ দিন# প্রচারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।’

ডাকসু গঠনতন্ত্রের ৬(ক) ধারায় রঙিন পোস্টারের ব্যবহার ও দেয়ালে পোস্টার সাঁটানোর বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছেন না ছাত্রলীগের ভিপিপ্রার্থী। এ বিষয়ে জানতে তার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

জানতে চাইলে ডাকসুর প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক ড. এস এম মাহফুজুর রহমান দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘কেউ রঙিন পোস্টারের ব্যবহার করতে পারেন না। এটি অবশ্যই আচরণবিধির লঙ্ঘন। বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজখবর নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

সাধারণ সম্পাদকের অবৈধ হলবাস : ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানীর বিরুদ্ধে অবৈধভাবে কক্ষ দখল করে হলে থাকার অভিযোগ উঠেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০০৭-০৮ সেশনের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী রব্বানী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে সিট বরাদ্দ পান। নতুন করে এমফিল ভর্তি হওয়ায় তিনি সার্জেন্ট জহুরুল হক হলে বরাদ্দ পান। যদিও নিয়ম অনুযায়ী, এমফিলের শিক্ষার্থী হলে সিট বরাদ্দ পেলেও সেখানে তিনি থাকতে পারবেন না। তাদের হলের বৈধ আইডি কার্ড দেওয়া হয় না।

অভিযোগ উঠেছে, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রব্বানী সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের ২০৩ নম্বর কক্ষে থাকেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ছাত্র এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হলে সিট সংকট রয়েছে। একটি কক্ষে তিন-চারজন ছাত্র থাকেন। কিন্তু তিনি একাই একটি কক্ষ অবৈধভাবে দখল করে রেখেছেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেন দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী এমফিল শিক্ষার্থী হলে বরাদ্দ পেলেও তিনি বৈধ কার্ড পান না।’ তবে গোলাম রব্বানীর হলে থাকা নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি ফোন কেটে দেন। আর ফোন রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে জানতে গোলাম রব্বানীর ব্যক্তিগত ফোনে কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও সংযোগ পাওয়া যায়নি।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত