মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ভারতের কাশ্মীরে জামায়াত নিষিদ্ধ

আপডেট : ০২ মার্চ ২০১৯, ০৪:০১ এএম

পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার ঘটনায় পাকিস্তানের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যে ‘রাষ্ট্রবিরোধী ও নাশকতামূলক’ কর্মকাণ্ডের অভিযোগে জম্মু ও কাশ্মীরের জামায়াত-ই-ইসলামিকে (জেইআই) পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে ভারত। গত বৃহস্পতিবার দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ওই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয় বলে রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে।

এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৪০ সেনা সদস্য নিহত হওয়ার পর জঙ্গি দমনে সেখানে ব্যাপক ধরপাকড় শুরু হয়। গত কয়েক দিনে সেখানে জামায়াতের প্রায় ৩০০ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর আগে দুইবার দলটির ওপর বিভিন্ন মেয়াদে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল।

পাকিস্তান-নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ ভিডিও ও ছবি শেয়ার করে ওই হামলার দায় স্বীকার করার পর রাষ্ট্রীয় সহায়তা ও পৃষ্ঠপোষকতায় হামলা হয়েছে অভিযোগ করে ভারত সোমবার রাতে সীমান্ত পেরিয়ে জইশ-ই-মোহাম্মদের ঘাঁটিতে হামলা চালায়। এরপর বুধবার সকালে ভারতের আকাশসীমায় হামলা চালায় পাকিস্তান। ভারতের দুটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার পাশাপাশি এক পাইলটকেও আটক করে।

১৯৪২ সালে যাত্রা শুরু করা জামায়াত-ই-ইসলামি দুই দশকের বেশি সময় ধরে ভারতের মূলধারার রাজনীতিতে সক্রিয় থেকে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল। ১৯৮৯ সাল থেকে দলটি বিচ্ছিন্নতাবাদী রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ে এবং ভারত থেকে কাশ্মীরের স্বাধীনতার আন্দোলন শুরু করে।

ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, কাশ্মীর জামায়াত ভারতের একটি ভূখণ্ডকে বিচ্ছিন্ন করার দাবিতে সমর্থন দিচ্ছে এবং ভারতের আঞ্চলিক সংহতিকে বাধাগ্রস্ত করার উদ্দেশ্য থেকে কর্মকাণ্ড ও বক্তব্য সমর্থন দেওয়ার মাধ্যমে বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীগুলোকে সমর্থন দিচ্ছে। যদি তারা তাদের ওই কর্মকাণ্ডের রাশ টেনে না ধরে, তবে তা দেশের জন্য সমস্যার কারণ হবে। তাই সরকার এটাকে ‘বেআইনি সংগঠন’ হিসেবে ঘোষণা করেছে। জামায়াত নিয়ে ভারতে নিষিদ্ধ সংগঠনের সংখ্যা দাঁড়াল ৪২।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত