শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বিদেশ ভ্রমণের আগে

আপডেট : ০২ মার্চ ২০১৯, ১১:৩৫ পিএম

১. বিদেশে এসে রান্না করে খেতে চাইলে দেশ থেকে হাঁড়ি-কুড়ি  নেওয়ার প্রয়োজন নেই। তবে প্রাথমিক ব্যবহারের জন্য প্লেট, মগ ও চামচ নিতে পারেন। তবে মসলা নিয়ে যাবেন। দেশের মতো মসলা কম পাওয়া যায়। তাই বেশিদিন থাকতে চাইলে মসলা নিয়ে যাবেন।
২. বিদেশে আপনাকে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ কিনতে পারবেন না। তাই কিছু প্রাথমিক ওষুধ নিয়ে যাবেন। ওষুধ নিয়ে যাওয়ার কারণে এয়ারপোর্টে আটকাতে পারে। তাই পরিচিত ডাক্তারকে দিয়ে প্রেসক্রিপশন লিখিয়ে নেবেন এবং প্রেসক্রিপশনটা সঙ্গে রাখবেন। ছোটখাটো সমস্যায় নিজেই সমাধান করতে পারবেন।
৩. সব ডকুমেন্টের কয়েক কপি নোটারি করে নিয়ে যাওয়া ভালো। বিভিন্ন ধরনের কাজে এগুলো আপনার লাগতে পারে।
৪. পৃথিবীর অনেক দেশে যেমন জার্মানি। সেখানে ছবি তোলা খুবই ব্যয়বহুল। তাই বেশ কিছু ছবি  দেশ থেকে প্রিন্ট করে নিয়ে যাওয়া ভালো। খরচ কম হবে।
৫. কারও যদি দেশে থাকার সময়, কোনো বড় অপারেশন বা অসুখ থাকে, তাহলে এ-সংক্রান্ত কাগজপত্র সঙ্গে নিয়ে যাবেন। এসব থাকলে দ্রুতই আপনার চিকিৎসা করা সহজ হবে।
৬. বিদেশে শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষাÑ সব ঋতুতে জ্যাকেট দরকার। তাই ভালো একটা জ্যাকেট কেনা খুবই জরুরি। জ্যাকেট লাগে দুই ধরনের। একটা সামার, আরেকটা উইন্টার জ্যাকেট। দেশ থেকে ভারী জ্যাকেট নিয়ে যাওয়ার দরকার নেই। ওখান থেকে মাঝারি দামের একটা জ্যাকেট কিনতে পারেন।
ভালো উইন্টার জ্যাকেট কিনলে দুই থেকে তিন বছর নিশ্চিন্তে চলে যাবে। তবে দেশ থেকে ভালো ব্র্যান্ডের রেইন জ্যাকেট নিয়ে যেতে পারেন।
৭. দেশের বেশির ভাগ কাপড়ই মেশিন ওয়াশেবল না। যার কারণে বিদেশে গিয়ে ওয়াশিং মেশিনে ধোয়ার সঙ্গে সঙ্গে রং ওঠে যায়। কিংবা ছোট হয়ে যায়। তাই দেশ থেকে কাপড় কেনার সময় লট থেকে না কেনাটাই ভালো। ভালো ব্র্যান্ডের মেশিন ওয়াশেবল কাপড় নিয়ে যেতে হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত