বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বিএসএমএমইউকে প্রত্যাখ্যান

ইউনাইটেডে চিকিৎসা নিতে চান খালেদা

আপডেট : ১১ মার্চ ২০১৯, ০৪:২২ এএম

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) কর্র্তৃপক্ষ সব ধরনের প্রস্তুতি নিলেও চিকিৎসা নিতে রাজি হননি কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। গতকাল রবিবার দুপুরে বিএসএমএমইউ হাসপাতালের পরিচালক আবদুল্লাহ আল হারুন কারা কর্র্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

পরে বিএনপি সমর্থক চিকিৎসকদের সংগঠন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) নবগঠিত কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ফরহাদ হালিম ডোনার সাংবাদিকদের জানান, কারাবন্দি খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থ। তিনি বিএসএমএমইউ হাসপাতালে চিকিৎসা  নিতে রাজি নন। তিনি গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আগ্রহী।

গত বছরের ৬ অক্টোবর খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখানে তাকে প্রায় এক মাস রেখে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিয়েছিল হাসপাতাল কর্র্তৃপক্ষ।

বিএসএমএমইউর পরিচালক সাংবাদিকদের বলেন, কারা কর্র্তৃপক্ষ তাদেরকে আগেই জানিয়েছিলেন, গতকাল যেকোনো সময়ে খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে আনা হবে। সে মোতাবেক তারা সব ধরনের প্রস্তুতিও নিয়েছিলেন। কেবিন ব্লকের ষষ্ঠতলার ৬১১ ও ৬১২ কেবিন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছিল। তার চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকরাও প্রস্তুত ছিলেন। কিন্তু খালেদা জিয়া হাসপাতালে আসতে রাজি হননি।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা কারাগারে গিয়েছিলেন। ফলোআপ চিকিৎসার জন্যই তাকে আজ হাসপাতালে আনার কথা ছিল।

এদিকে ড্যাবের আহ্বায়ক সাংবাদিকদের বলেন, ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। হুইল চেয়ারের যে পা দানি থাকে, সেখানেও ঠিকমতো পা তুলতে পারেন না। কারাগারে তার চিকিৎসার জন্য অধ্যাপক এ এফ এম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে যে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের টিম গিয়েছিল, তারা খালেদা জিয়াকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করতে পরামর্শ দিয়েছেন। কারণ সেখানে খালেদা জিয়া আগে চিকিৎসা নিয়েছেন। তাকে যে বিএসএমএমইউতে আনতে হবে, এমন কোনো কথা নাই।’

তিনি বলেন, ‘এ দেশে অনেকেই আছেন যারা প্যারোলে দেশের বাইরেও গেছেন, এখনো অনেকে দেশের বাইরে যাচ্ছেন। এই হাসপাতাল থেকে কেউ কেউ দেশের বাইরে যাচ্ছেন। উনি (খালেদা জিয়া) বিএসএমএমইউতে আসার পক্ষে কোনো সময় রাজি ছিলেন না। এর আগে দুইবার এই হাসপাতালে তাকে আনা হয়েছে। উনি এখানে ছিলেন। আবার জোর করে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। যদিও ডাক্তাররা রাজি ছিলেন না।’

‘চিকিৎসক হিসেবে আপনি খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার জন্য বিএসএমএমইউ না ইউনাইটেড হাসপাতালÑকোনটাকে ভালো বলবেন’ জানতে চাইলে ড্যাবের আহ্বায়ক বলেন,  ‘প্রত্যেকটা মানুষের একজন বা একাধিক ডাক্তার থাকে, যার অধীনে তার চিকিসা হয়। যে ডাক্তারের ওপর বিশ্বাস থাকে, আস্থা থাকে। খালেদা জিয়ার ওই বিশ্বাসটা আছে ইউনাইটেড হাসপাতালে যারা বিশেষজ্ঞ আছেন, তাদের দ্বারা উনি চিকিৎসা করাতে চান। সেখানে চিকিৎসা করা হলে উনি মানসিকভাবে বেটার ফিল করবেন, শারীরিকভাবেও বেটার ফিল করবেন।’

ওই সময় হলিফ্যামিলি হাসপাতাল ড্যাবের সভাপতি অধ্যাপক হারুনুর রশীদও উপস্থিত ছিলেন।

গত ৩ মার্চ খালেদা জিয়া আদালতে হাজিরা দিতে এসে বলেছেন, তিনি খুবই অসুস্থ বোধ করছেন। তার শরীর ভালো যাচ্ছে না। এরপর গত মঙ্গলবার বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা দলীয় চেয়ারপারসনের সুচিকিৎসার দাবি জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে দেখা করেন। পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য বিএনপির চেয়ারপারসনকে বিএসএমএমইউতে নেওয়া হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত