সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

নির্বাচনে আস্থা নেই জনগণের : ফখরুল

আপডেট : ১১ মার্চ ২০১৯, ০৫:০৫ এএম

বর্তমান নির্বাচন কমিশন (ইসি) নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে ফেলায় নির্বাচনের প্রতি জনগণের কোনো আস্থা নেই বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল রবিবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, যার ফলে সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে যায়নি। উপজেলা নির্বাচনে জনগণের আগ্রহ নেই। এরই মধ্যে ৭০-৮০ জন প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দি¦তায় জয়ী ঘোষণা করা হয়েছে।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির স্বাধীনতা হলে নবগঠিত কৃষক দলের আহ্বায়ক কমিটির এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাজনীতিতে বন্ধ্যত্ব ও দুর্ভিক্ষ চলছে মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এক দানব বাংলাদেশের গণতন্ত্র ধ্বংস করে দিয়েছে। এতে পুরো জাতি সংকটে পড়েছে। এ সময় বিএনপিতে কোনো সংকট নেই বলে দাবি করেন তিনি। ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ছাত্রসমাজে রাজনীতির একটি সুবাতাস বইতে শুরু করেছে বলেও মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল বলেন, কোনো ক্ষেতে বন্য হাতি ঢুকলে সে ক্ষেত আর থাকে না। ধ্বংস হয়ে যায়। তেমনিভাবে

            দেশে এখন দানবের শাসন চলছে। দানবের শাসন দেশের সব মূল্যবোধকে ধ্বংস করে দিয়েছে। গায়েবি মামলার যুগ চলছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, এমন যে মামলা হয় তা দেশের জনগণের জানা ছিল না। বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা সংখ্যা ৯৯ হাজার ছাড়িয়ে গেছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ডাকসু নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ছাত্রসমাজে রাজনীতির একটি সুবাতাস বইতে শুরু করেছে। ডাকসুতে কোন দল জিতবে, কোন দল জিতবে না, সেটা পরের বিবেচ্য বিষয়। কারণ ২৮ বছর ডাকসু নির্বাচন হয়নি। দেশে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ গড়ে ওঠার কারখানা ডাকসু, যা এতদিন বন্ধ ছিল। এটা যদি চালু রাখা যায় তাহলে দেশের জন্য ভালো হবে।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অসুস্থতার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, একটি ভুয়া, মিথ্যা মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সাজা দেওয়া হলো। নি¤œ আদালতে সেই সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করেছে। তিনি এখন অত্যন্ত অসুস্থ। বসতে পারেন না। তাকে বিছানা থেকে তুলতে একজন সাহায্যকারী দরকার হয়। এটা মানবাধিকারের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, জনগণ বলছে প্রশাসন এখন ক্ষমতাসীনদের বলছে যে আপনাদের আমরা জয়ী করেছি, নির্বাচন আমরা করেছি। এখন যা করার আমরা করব, আপনারা চুপ করে বসে থাকেনÑ এই অবস্থা দাঁড়িয়েছে।

মাদকবিরোধী অভিযান নিয়ে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, তারা ইয়াবার বিরুদ্ধে অভিযান করছে। কিন্তু যিনি ইয়াবা স¤্রাট তিনি তাদের দলের দায়িত্বে আছেন এবং তিনি বাইরে আছেন। অথচ বিএনপি চেয়ারপারসন জেলের ভেতর রয়েছেন।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও কৃষক দলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান দুদুর সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব হাসান জাফির তুহিনের পরিচালনায় সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন কৃষক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক তকদির হোসেন জসীম, নাজিম উদ্দিন মাস্টার, জামাল উদ্দিন খান মিলন, সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী, সদস্য জিয়াউল হায়দার পলাশ, এসকে সাদি প্রমুখ।

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত