সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

রাজনীতি থেকে অবসরের ঘোষণা দুতার্তের

আপডেট : ০২ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫২ পিএম

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতার্তে বলেছেন, তিনি আগামী বছরের নির্বাচনে ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে দাঁড়াবেন না, বরং রাজনীতি থেকে অবসর নেবেন।

দুতার্তে গত মাসে বলেছিলেন যে তিনি ২০২২ সালে ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। দেশের সংবিধান তাকে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হতে বাধা দেয়।

কিন্তু তিনি এখন বলছেন যে, তিনি রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়াবেন। এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘ফিলিপিনোদের অপ্রতিরোধ্য অনুভূতি হল যে আমি যোগ্য নই’।

তার মেয়ে প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারে এমন জল্পনা-কল্পনার মধ্যে এই ঘোষণা দিলেন দুতার্তে।

দুতার্তে, একজন বিতর্কিত ‘শক্তিশালী ব্যক্তি’। যিনি ২০১৬ সালে অপরাধ দমন এবং দেশের মাদক সংকট নিরসনের একটি প্লাটফর্মের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছিলেন।

সমালোচকরা বলছেন যে, তার নির্বাচনের পর থেকে গত পাঁচ বছরে তিনি তার ‘মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ’ করার নামে হাজার হাজার বিচারবহির্ভূত হত্যার জন্য পুলিশকে উৎসাহিত করেছেন।

ফিলিপাইনের সংবিধান একজন রাষ্ট্রপতিকে শুধু একবারই (ছয় বছর মেয়াদে) দায়িত্ব পালন করার অনুমতি দেয়।

দুতার্তের মেয়ে সারা দুতার্তে-কারপিও বর্তমানে দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর দাভাও-এর মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে মিশ্র বার্তা দিয়েছেন।

গত মাসে তিনি বলেন যে, তিনি এই দৌড়ে যোগ দেবেন না। কারণ তিনি এবং তার বাবা একমত হয়েছেন যে, তাদের মধ্যে একজনই আগামী বছরের নির্বাচনে দাঁড়াবেন।

বিস্ময়করভাবে দুতার্তে ম্যানিলার ভেন্যুতে তার অবসরের ঘোষণা দেন, যেখানে তিনি তার প্রার্থিতা নিবন্ধন করবেন বলে আশা করা হয়েছিল।

তিনি বলেন যে ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে দাঁড়ানো ‘সংবিধানের লঙ্ঘন হবে’।

দুতার্তে যখন প্রথম তার দাঁড়ানোর ইচ্ছার কথা ঘোষণা করেছিলেন, তখন ব্যাপক জল্পনা উঠেছিল যে, দুই নম্বর ভূমিকা থেকে শাসন করার জন্য তিনি রাজনৈতিকভাবে দুর্বল একজন সহচর খুঁজবেন।

তিনি প্রকাশ্যে বলেছিলেন যে, ভাইস প্রেসিডেন্ট হতে পারলে তিনি ফিলিপাইনে হাজার হাজার মানুষের প্রাণহানি ঘটানো নৃশংস ‘মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ’ পরিচালনার জন্য আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) বিচারের হাত থেকে রক্ষা পাবেন।

তবে, তিনি আইনি অনাক্রম্যতা বজায় রাখতেন কিনা তা স্পষ্ট নয়।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মতে, দুতার্তের রাষ্ট্রপতিত্বের প্রথম ছয় মাসে পুলিশ বা অজ্ঞাত সশস্ত্র হামলাকারীদের হাতে ৭ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে।

গত জুনে আইসিসির প্রসিকিউটর ফিলিপাইনে মাদক যুদ্ধ হত্যাকাণ্ডের সম্পূর্ণ তদন্ত শুরুর আবেদন জানিয়ে বলেন, মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ সংঘটিত হয়ে থাকতে পারে।

যদি মিসেস দুতার্তে-কার্পিও প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন, তাহলে তিনি সম্ভবত তার বাবাকে ফিলিপাইনে ফৌজদারি অভিযোগ থেকে এবং আইসিসির প্রসিকিউটরদের হাত থেকে রক্ষা করবেন।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত