রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

কমলগঞ্জে টিলা কাটার ধুম

আপডেট : ০৩ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪১ পিএম

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে অবাধে কাটা হচ্ছে পাহাড়ি টিলা। প্রভাবশালী ব্যক্তিরা টিলা কেটে রাস্তা, বাড়িঘর ও বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি করছেন। উপজেলা জুড়ে টিলা কাটার ধুম পড়লেও তা বন্ধে নেই প্রশাসন বা পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযান কিংবা জোরালো পদক্ষেপ। এতে প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে পাহাড়ি টিলা কাটা।

গতকাল শনিবার সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের কালেঙ্গা, দেওয়াছড়া, সদর ইউনিয়নের বাঘমারা, সরইবাড়ি, আদমপুর, ইসলামপুরের রাজকান্দি, টিলাবাজার, আলীনগরের সুনছড়া, কালাছড়া, নুুরজাহান, রাজটিলা পদ্মছড়া চা বাগান ও বিভিন্ন খাসিয়া পুঞ্জি এলাকায় টিলা কাটার ধুম পড়েছে। কেউ কেউ টিলা কেটে বাড়িঘর, রাস্তা ও দোকানপাট তৈরি করছেন। বিশেষ করে রহিমপুর ইউনিয়নের কালেঙ্গা এলাকায় বেশি টিলা কাটা হচ্ছে। স্থানীয়রা বসতি করতে বিশাল টিলা কাটছেন। টিলা কেটে তৈরি হচ্ছে ইটের ঘর। বিশাল বিশাল পর্দা দিয়ে আড়াল করে চলছে পাহাড় কাটা। তাছাড়া ওই এলাকার স্থানীয় প্রভাবশালীদের সহযোগিতায় একটি চক্র টিলার মাটি বিক্রি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এছাড়া, লাউয়াছড়া এলাকার নুরজাহান, কালাপুর, রাজটিলা এলাকায় টিলা কেটে রিসোর্টসহ বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি চলছে। এতে নষ্ট হচ্ছে পাহাড়ি টিলার সৌন্দর্য্য।

গত শুক্রবার দুুপুরে মাধবপুর ইউনিয়নের পদ্মছড়া এলাকায় গেলে দেখা যায়, একটি টিলা কেটে ট্রলি দিয়ে শ্রমিকরা মাটি নিচ্ছেন। মাটি নেওয়ার কারণে বিশাল গর্ত সৃষ্টি হয়েছে টিলাটিতে। এতে বৃষ্টিতে ধসে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে খাড়া টিলাটিতে।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক শ্রমিক জানান, একটি মন্দিরের জন্য এ টিলার মাটি নেওয়া হচ্ছে। মন্দির কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় ইউপি সদস্য কৃষ্ণ লাল সিংহ বলেন, ওই টিলার নিচে একটি ঘর তৈরি করা হবে তাই বাগান ব্যবস্থাপকের সঙ্গে আলাপ করে মাটি মন্দিরে নিচ্ছি।

এ বিষয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক বলেন, কোনোভাবেই টিলার মাটি কাটা যাবে না। দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত