রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বাগেরহাট সদর হাসপাতাল

ডায়রিয়া রোগীর চাপ সেবা দিতে হিমশিম

আপডেট : ০৬ মে ২০২২, ১২:২৩ এএম

বাগেরহাটে ডায়রিয়ার প্রকোপ কমছেই না। গত প্রায় এক মাস ধরে চলা এ প্রকোপ ঈদের সময় আরও বেড়েছে। জেলা সদর হাসপাতালে শয্যা সংখ্যা বাড়িয়েও স্থান দেওয়া যাচ্ছে না। জনবল সংকট থাকায় সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে স্বাস্থ্যকর্মীদের। হাসপাতালে গড়ে প্রতিদিন ১৫ থেকে ২৫ জন রোগী ভর্তি হচ্ছেন। আবহাওয়া ও সুপেয় পানির অভাবে ডায়রিয়ায় বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, সদর হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে কোনো বেড খালি নেই। ওয়ার্ডের ছয়টি শয্যার সঙ্গে আরও ১০টি শয্যা বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া অন্য একটি নতুন ওয়ার্ড খোলা হয়েছে। শিশুসহ বিভিন্ন বয়সি রোগী হাসপাতালের বেডে শুয়ে আছে।

ডায়রিয়ায় আক্রান্ত স্বামীকে নিয়ে হাসপাতালে এসেছেন আসমা বেগম। তিনি বলেন, ‘আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে আমার স্বামীকে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। ঈদের ছুটিতে চিকিৎসকরা নেই। যারা আছেন তারা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।’

নার্স নাসরিন সুলতানা বলেন, ‘প্রতিদিন অন্তত ৩০ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন। ঈদের খাবার খাওয়ার কারণে রোগীর চাপ হঠাৎ করে বেড়ে গেছে। ১৬ শয্যার একটি ডায়রিয়া ওয়ার্ড একাই আমাকে সামাল দিতে হচ্ছে। একটু বসার সময় পাচ্ছি না। জনবল সংকটের কারণে রোগীর স্বজনদের দিয়েও কাজ করাতে হচ্ছে।’

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার সমাদ্দার বলেন, ‘গত মার্চ মাসের শেষ দিক থেকে ডায়রিয়া রোগীর চাপ বাড়তে শুরু করে। প্রতিদিন গড়ে ১৫ থেকে ২৫ জন রোগী এখানে ভর্তি হচ্ছে। ঈদে ডায়রিয়ার প্রকোপটা আরও বেড়েছে। রোগীর চাপ বাড়তে থাকায় শিশুদের জন্য ছয় শয্যার স্থলে ১৫ শয্যা করা হয়েছে। তাতেও জায়গার সংকুলান না হওয়ায় পুরুষ ও নারীদের জন্য আরও ১৬ শয্যা বাড়তি প্রস্তুত করা হয়েছে। জনবল সংকট আগে থেকেই ছিল তা আরও প্রকট হয়েছে।’ সবাইকে সুপেয় পানি পান করা এবং খাবার খাওয়ার আগে অবশ্যই হাত ধোয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত