বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

প্রবীণদের সুরক্ষায় নজর দিতে হবে

আপডেট : ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:২১ পিএম

১ অক্টোবর আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস। বাংলাদেশে প্রবীণের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ছে। চলতি বছর বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) পরিচালিত জনশুমারি ও গৃহগণনা অনুযায়ী বাংলাদেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৬। যার মধ্যে ৬৫ বছরের বেশি বয়সী মানুষ ৯৭ লাখ ২৭ হাজারের কিছু বেশি। আগামী ২০২৫ সাল নাগাদ দেশে প্রবীণদের সংখ্যা হবে প্রায় ১ কোটি ৮০ লাখ। আর আগামী ২০৫০ সালে এই সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৪ কোটি এবং ২০৬১ সালে প্রায় সাড়ে ৫ কোটি প্রবীণ জনগোষ্ঠী হবে। বর্তমানে বাংলাদেশে পরিবার/খানাপ্রতি লোকসংখ্যা প্রায় ৪.০৩ জন, যার মধ্যে প্রায় ০.২৪ জন প্রবীণ মানুষ আছে। আমরা তাদের ভরণপোষণ করতে পারছি না। ২০৫০ ও ২০৬১ সালে খানাপ্রতি হবে যথাক্রমে ১.১১ জন ও ১.৩৫ জন। তখন কী হবে? এখন অনেকেই যে সমস্যাকে পারিবারিক মনে করছেন, তখন তা হবে রাষ্ট্রীয় মহাদুর্যোগ!

বার্ধক্য আমাদের জাতীয় জীবনের জন্য আজ একটি মারাত্মক চ্যালেঞ্জ। পর্যবেক্ষণে দেখা যায় যে, প্রবীণ পুরুষের তুলানায় প্রবীণ নারীরা বেশি দিন বাঁচেন। অধিকাংশই আবার বিধবা হয়ে! আমাদের সমাজে তারা বেশি মাত্রায় অবহেলা, দুর্ব্যবহার এবং বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন। এমনকি নিজের ভাই, স্বামী, সন্তানদের কাছ থেকেই!

বাংলাদেশের সংবিধানে প্রবীণদের সামাজিক নিরাপত্তার কথা বলা হয়েছে। আমাদের দেশে প্রবীণদের জন্য সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে বিভিন্ন কল্যাণমূলক কার্যক্রম রয়েছে বটে কিন্তু তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। প্রবীণদের উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করা প্রয়োজন। প্রবীণরা বৃদ্ধ নয়, মানসিক দিক দিয়ে অনেক সক্ষম, দেশ গঠনে তাদের সহযোগিতা প্রয়োজন। দেশের সমাজ পরিবর্তনে এবং উন্নয়নে প্রবীণদের যথেষ্ট ভূমিকা রয়েছে। প্রবীণরা আমাদের শ্রদ্ধার পাত্র, সমাজের পথপ্রদর্শক। প্রবীণদের সম্মান দেওয়া ও যত্ন নেওয়া আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। কাউকে ফেলে রেখে নয়, বরং সবাকে নিয়ে বিশ্বসমাজের প্রবৃদ্ধি, উন্নয়ন এবং সমৃদ্ধির অভিযাত্রা চলমান রাখতে হবে। জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা দলিলের মাহাত্ম্য এখানেই। পারিবারিক, সামাজিক ও জাতীয় জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রবীণদের অবদান অপরিসীম। পরিবারের গঠন, উন্নয়ন ও সমাজের কল্যাণে কর্মময় জীবন ব্যয় করে একসময় তারা বার্ধক্যে উপনীত হন। তখন প্রবীণদের সার্বিক কল্যাণ ও সুরক্ষা করা সমাজের আবশ্যিক কর্তব্য। প্রবীণদের সমস্যা সমাধানে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ের সবার সম্মিলিত প্রয়াস প্রয়োজন। আধুনিক সমাজে অনেক ক্ষেত্রে প্রবীণরা শুধুই অবহেলিত এবং বঞ্চিত। মানবিক ও ধর্মীয় বিবেচনাতেই প্রবীণদের অবস্থান অত্যন্ত সম্মানের।

বিশ্বের অনেক দেশসহ সার্কভুক্ত কোনো কোনো দেশে সিনিয়র সিটিজেনদের জন্য বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা রয়েছে। এদিক থেকে আমাদের দেশ এখনো পিছিয়ে আছে। প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জন্য জাতীয় প্রবীণ নীতিমালা-২০১৩ এবং পিতা-মাতার ভরণপোষণ আইন-২০১৩ প্রণয়ন করা হলেও এ আইন ও নীতিমালার যথাযথ বাস্তবায়ন তেমনভাবে হচ্ছে না। এক সমীক্ষায় জানা যায়, পারিবারিক সহায়তা, পেনশন ও বয়স্ক-ভাতার আওতার বাইরেও দেশের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ প্রবীণ অবহেলা ও অযত্নের শিকার। এ জনগোষ্ঠী তাদের জীবনের ন্যূনতম প্রয়োজন মেটাতে অক্ষম। ফলে অনেকেই ভিক্ষাবৃত্তির মতো পেশা গ্রহণ করতে বাধ্য হচ্ছেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আগে ষাটোর্ধ্বদের প্রবীণ বলা হলেও ২০১৯ সালের পর থেকে ৬৫ ঊর্ধ্বদের প্রবীণ বলে ঘোষণা করা হয়। দেশের বিশাল একটি জনগোষ্ঠী প্রবীণ হলেও তাদের কল্যাণে তেমন কোনো সুব্যবস্থা গড়ে ওঠেনি। তাই প্রবীণ জনগোষ্ঠী ষাটোর্ধ্ব বয়স থেকে কর্মহীনতা, আর্থিক প্রবঞ্চনা, পুষ্টিহীনতা, নিরাপদ পানি ও বর্জ্যব্যবস্থার অভাব, পারিবারিক অবহেলা, নিঃসঙ্গতাসহ নানা জটিল পরিস্থিতির ভেতর দিয়ে দিনযাপন করেন। শহুরে উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্তের মধ্যে এ অবস্থা তেমন একটা পরিলক্ষিত না হলেও নিম্নবিত্ত ও গরিব জনগোষ্ঠীর মধ্যে বঞ্চনার এই মাত্রা প্রবলভাবেই দৃশ্যমান।

অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নই প্রবীণদের অবস্থার উন্নতির ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা, হাতে টাকা থাকলেই একজন প্রবীণ সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম হন। অন্যদিকে, সব ষাটোর্ধ্ব নাগরিকদের জন্য বিশেষজ্ঞরা ১০টি পরামর্শ দিয়েছেন, যা নিজের ভালো থাকার জন্য আবশ্যকীয়। বয়স ৬০ পেরিয়ে গিয়েছে? তাহলে মনে রাখতে হবে আপনার শরীর এবার বদলাচ্ছে। বহু ধরনের হরমোনের তারতম্য হতে পারে এবার। শুধু তা-ই নয়, এবার পেশির ক্ষমতাও কমতে পারে। তাই এবার থেকে আলাদা করে নজর দিতে হবে স্বাস্থ্যের দিকে। এই বয়সে পৌঁছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যেতে শুরু করে। তাই যতদূর সম্ভব সাবধানে থাকুন। যাতে সংক্রামক রোগ থেকে দূরে থাকতে পারেন, এর ব্যবস্থা নিন। ষাটোর্ধ্ব বয়সে এসে খাবার থেকে প্রয়োজনীয় পুষ্টিগুণ সংগ্রহ করার ক্ষমতাও কমে। তাই এ সময় আলাদা করে ভিটামিন বা মিনারেল সাপ্লিমেন্ট খাওয়াও দরকার। তবে সেটি অবশ্যই চিকিৎসকদের জিজ্ঞাসা করে। তাদের পরামর্শমতো মাল্টিভিটামিন খেতে পারেন এ সময়। কাজকর্ম একেবারে বন্ধ করে দেবেন না। কায়িক পরিশ্রম না করলেও নিজের মতো ‘অ্যাক্টিভ’ থাকার চেষ্টা করুন। যতটা সম্ভব চনমনে থাকুন। তাতে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়বে। হালে করোনা তো বটেই আরও নানা ধরনের সংক্রামক রোগের হার বেড়েছে। যাদের বয়স ৬০-এর ওপরে উঠে গিয়েছে, তাদের ক্ষেত্রে এই ধরনের বেশি সমস্যা সৃষ্টি করছে। তাই এমন ধরনের রোগ থেকে দূরে থাকুন। কেউ অসুস্থ এ কথা জানতে পারলে, তিনি সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত তার আশপাশে যাবেন না। ভিড় এড়িয়ে চলুন। নিয়মিত চিকিৎসকের কাছে যান। প্রয়োজনীয় যা যা চেকআপ করানোর আছে, সেগুলো করিয়ে ফেলুন। এতে আপনার শরীর কেমন থাকছে, তার স্পষ্ট ছবিটি দেখতে পাবেন। মানসিক চাপ থেকে যত দূরে থাকা যায়, তত দূরে থাকুন। দরকার হলে পছন্দের গান শুনুন, বই পড়ুন। এগুলো মন ভালো রাখতে সাহায্য করবে, মানসিক চাপ কমাবে। এ সময় ডায়েটে নজর দেওয়া খুব দরকারি। প্রয়োজনীয় সব কটি খাদ্যগুণ শরীরে যাচ্ছে কি না, সেটি দেখা যেমন জরুরি, তেমনই জরুরি হলো যে খাবারগুলো খাচ্ছেন, সেগুলো আপনার শরীরের জন্য ভালো কি না, তা বোঝা। সেই বুঝে বিশেষজ্ঞের থেকে ডায়েট চার্ট বানিয়ে নিন। শেষে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা। মনে রাখবেন, এ বয়সে বিশ্রাম খুব দরকারি। তাই নিয়ম করে ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা ঘুমান। তাতে শরীর ভালো থাকবে।

লেখক : সহকারী মহাব্যবস্থাপক, ফরিদপুর ইন্টারন্যাশনাল নার্সিং কলেজ, ফরিদপুর

[email protected]

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত