রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

দোয়া

আপডেট : ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১২:০৪ এএম

যে দোয়া পাঠে খুলবে জান্নাতের ৮ দরজা

পবিত্রতা ও পরিচ্ছন্নতা মুসলিমের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। অজু হলো পবিত্র ও পরিচ্ছন্ন থাকার অন্যতম উপায়। নামাজ, কোরআন তিলাওয়াতসহ যেকোনো ইবাদত-বন্দেগির জন্য অজু করা আবশ্যক। হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) সুন্দরভাবে অজুর পর নিম্নের দোয়াটি পাঠকারীর জন্য জান্নাতের সুসংবাদ দিয়েছেন। দোয়াটি হলো

উচ্চারণ : আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু, ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসুলুহু, আল্লাহুম্মাজ আলনি মিনাল মুতাতাহহিরিন।

অর্থ : আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে একমাত্র আল্লাহ ছাড়া কোনো উপাস্য নেই, তার কোনো অংশীদার নেই এবং আরও সাক্ষ্য দিচ্ছি যে মুহাম্মদ (সা.) তার বান্দা ও রাসুল। হে আল্লাহ, আপনি আমাকে তওবাকারীদের অন্তর্ভুক্ত করুন এবং পবিত্রতা অর্জনকারীদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করুন।

হাদিস : হজরত ওমর বিন খাত্তাব (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি সুন্দরভাবে অজু করবে অতঃপর এই দোয়া পড়বে... তার জন্য জান্নাতের আট দরজা খোলা হবে। সে যেটা দিয়ে ইচ্ছা সেটা দিয়ে তাতে প্রবেশ করবে।’ সহিহ মুসলিম : ২৩৪

ঘরে প্রবেশকালে রাসুল (সা.) যে দোয়া পড়তে বলেছেন

সব সময় আল্লাহকে স্মরণ করা মুমিনের বৈশিষ্ট্য। ঘরে প্রবেশ ও ঘর থেকে বের হওয়ার সময় ঘরবাসীর নিরাপত্তার জন্য আল্লাহকে স্মরণ করা জরুরি। হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) ঘরে প্রবেশ ও ঘর থেকে বের হওয়ার সময় একটি দোয়া পড়তে বলেছেন। দোয়া পাঠের পর সালাম দিয়ে ঘরে প্রবেশ করা।

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা খাইরা মাওলাজি, ওয়া খাইরাল মাখরাজি, বিসমিল্লাহি ওয়ালাজনা, বিসমিল্লাহি খারাজনা, ওয়া আলাল্লাহি রব্বিনা তাওয়াক্কালনা।

অর্থ : হে আল্লাহ, আমি আপনার কাছে উত্তম প্রবেশ ও উত্তম বের হওয়া প্রার্থনা করছি। আল্লাহর নামে প্রবেশ করছি এবং আল্লাহর নামে বের হচ্ছি। (এবং) আমাদের রব আল্লাহর ওপর ভরসা করছি।

হাদিস : হজরত আবু মালিক আল আশআরি (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি ঘরে প্রবেশ করবে সে যেন এই দোয়া পড়ে। এরপর ঘরবাসীকে সালাম দিয়ে প্রবেশ করে।

দাজ্জাল থেকে বাঁচার দোয়া

কিয়ামতের আগে মানুষ যেসব ভয়াবহ বিপদ ও পরীক্ষার সম্মুখীন হবে দাজ্জালের ফিতনা এর মধ্যে অন্যতম। নবী করিম (সা.) সব সময় দাজ্জালের ফিতনা থেকে বাঁচতে আল্লাহর আশ্রয় চেয়ে নিম্নের দোয়া করতেন।

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিন আজাবি জাহান্নাম, ওয়া মিন আজাবিল কাবরি, ওয়া মিন ফিতনাতিল মাহইয়া ওয়াল মামাতি, ওয়া মিন ফিতনাতিল মাসিহিদ দাজ্জাল।

অর্থ : হে আল্লাহ, আমি আপনার কাছে জাহান্নামের শাস্তি, কবরের শাস্তি, জীবন ও মৃত্যুর ফিতনা এবং দাজ্জালের ফিতনা থেকে আশ্রয় চাই।

উপকার : হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেছেন, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তোমরা যখন (নামাজের বৈঠকে) তাশাহুদ পাঠ করবে তখন যেন চার বস্তু থেকে আশ্রয় চেয়ে বলবে...। সহিহ মুসলিম : ৫৮৮

অন্য বর্ণনায় এসেছে, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) উল্লিখিত দোয়া পাঠ করতেন।  বোখারি : ১৩৭৭

তা ছাড়া দাজ্জালের পরীক্ষা থেকে বাঁচতে পবিত্র কোরআনের সুরা কাহাফের শুরুর ১০ আয়াত মুখস্থের কথাও হাদিসে এসেছে। হজরত আবু দারদা (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি সুরা কাহাফের শুরুর ১০ আয়াত মুখস্থ করবে সে দাজ্জালের ফিতনা থেকে নিরাপদ থাকবে।’ সহিহ মুসলিম : ৮০৯

আল্লাহতায়ালা আমাদেরকে আমল করার তওফিক দান করুন।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত