মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ব্রাজিলের আছে এক ‘অদৃশ্য কারিগর’

আপডেট : ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:০৬ পিএম

অদৃশ্য কারিগর বলে যে শব্দটি আছে, কাসেমিরোর ক্ষেত্রে তা হুবহু মিলে যায়। ব্রাজিল দলে তারকা একজন আছেন নেইমার। তার পাশে রিচার্লিসন, ভিনিসিয়ুস জুনিয়র বা রদ্রিগোরা কেমন খেলেন তা নিয়ে মাতামাতি সবার। অথচ খেলাটা যে ঠিক করে দেন তার নাম উচ্চারিত হয় কম। কাসেমিরো সেই একজন।

মধ্যমাঠ থেকে ডিফেন্স আর আক্রমণভাগের ‘কানেকশন ওয়ার’ (সংযোগ তার) এই ফুটবলার। মাঠে শুধু মাঝের লাইন-ই নয়, দুই পাশের দুই দিকে মানে উইঙ্গারদেরও নিজের ডানা মেলে একীভূত করে ফেলেন কাসেমিরো। সব মিলিয়ে মাঝে দাঁড়িয়ে পুরো ব্রাজিলের লাইনআপ এক সুতোয় গেঁথে চলা একজন সত্যিকার অর্থেই ব্রাজিল দলের নিউক্লিয়াস।

যে কোনো দলে কাসেমিরোর প্রয়োজন কতটুকু বা তার অবদান কী তা রিয়াল মাদ্রিদের ট্রফি কেসে তাকালেই বোঝা যায়। বা ব্রাজিল দলেও তাকাতে পারেন। ঠিক আগের বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে কাসেমিরো না থাকায় হেরেই গিয়েছিল ব্রাজিল। বেলজিয়ামের বিপক্ষে ওই লড়াইয়ের আগেরটিতে মানে শেষ ১৬-তেই মাথায় আকাশভাঙা খবর হজম করতে হয় সেলেসাওদের।

মেক্সিকোর বিপক্ষে ম্যাচের ৫৯ মিনিটে হলুদ কার্ড দেখেন কাসেমিরো। এর আগে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষেও হলুদ কার্ড দেখতে হয়। দুই ম্যাচ টানা কার্ড দেখায় কোয়ার্টার ফাইনালে বেলজিয়ামের বিপক্ষে খেলতে পারেননি। আর ওই ম্যাচে মধ্যমাঠের সেনানীর না থাকা হাড়ে হাড়ে টের পায় ব্রাজিল। মধ্যমাঠ থেকে ঠিকঠাক বলের জোগান না আসায় গোল করতে পারেনি তারা। ফল ২-১ গোলে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায়।

এবার সেই ভয়ে পড়তে হচ্ছে না ব্রাজিলকে। কাসেমিরো আগের ম্যাচে হলুদ কার্ড দেখেননি। ইনজুরির ভয়টাও নেই। ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে অবশ্যই ব্রাজিল তারকা খেলছেন। বরাবরের মতো এখন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তারকার স্বপ্ন একটাই যে করেই হোক পরের রাউন্ডে পা রাখা।

সুইজারল্যান্ড ম্যাচে ব্রাজিলের জয়ের নায়ক কাসেমিরো বলেন, ‘আমাদের একমাত্র লক্ষ্য এখন সেমিফাইনালের জন্য কোয়ালিফাই করা। আমাদের এই গ্রুপটার জন্য যারা এতদিন নিজেদের সামর্থ্য দেখিয়ে এসেছে ওই পর্বে যাওয়াটা খুবই জরুরি। তবে আমাদের খুব সতর্ক থাকতে হবে। কারণ এমন একটি অভিজ্ঞ দলের বিপক্ষে নামতে যাচ্ছি যারা জানে ফুটবলটা কীভাবে খেলতে হয়।’

তাই বলে নিজেদের পিছিয়ে রাখছেন না কাসেমিরো। গত বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্ব থেকে শেষ ১৬ পর্যন্ত খুব বড় ফুটবল শক্তির মুখে পড়তে হয়নি ব্রাজিলকে। কোয়ার্টারে বেলজিয়ামের বিপক্ষে পেরে ওঠেনি। এবারও কোয়ার্টারে আসার পথে সহজ প্রতিপক্ষদের পার করে আসতে হয়েছে। এই প্রথম ইউরোপিয়ান বড় দলের বিপক্ষে নামছে ব্রাজিল। যারা গতবারের রানার্সআপ।

কাসেমিরো জানান শক্তিশালী প্রতিপক্ষ হলেও নিজেদের ওপর বিশ্বাস আছে তার। কারণ ম্যানইউ তারকা জানালেন গত আসরের চেয়ে এবারের দলটি বেশ ভালো, ‘চার বছর পর হয়েছে, নতুন ফুটবলার এসেছে এখন। এবার আমাদের বিকল্প অনেক। এতটাই যে দল বদলেও আমরা আমাদের মূল পরিকল্পনা ধরে খেলতে পারব। এই সুবিধাটা ২০১৮-তে ছিল না। তখন দলে পরিবর্তন আনলে আমাদের পরিকল্পনাও বদল করতে হতো। কোচ তিতে গত চার বছরে দলটিকে ওই ভাবে তৈরি করেছেন যেন সব ফুটবলার একই পরিকল্পনায় খেলতে পারে। আমরা সবাই এখন একটা কথা বলতে পারি। চার বছরে ব্রাজিল যদি সত্যিই কিছু অর্জন করে থাকে তবে এই প্রসেসটা। এখানে আমাদের পরিকল্পনাও বেশ কয়েকটি আছে কিন্তু সুখের কথা হলো সবাই সব পরিকল্পনাতেই মানিয়ে নিয়েছে।’

তিতের তৈরি ব্রাজিলের সব পরিকল্পনারই মূল বিন্দু এই কাসেমিরো। তাকে বিপক্ষ দলের লক্ষ্যবস্তু হতে হয় না। মধ্যমাঠে থাকেন বলে তাকে গোল করতেও হয় না বা গোল আটকাতেও ব্যস্ত থাকতে হয় না। এই সুযোগে খেলাটা তৈরি করে দিতে পারেন দারুণভাবে। অন্যদের নিয়ে বিপক্ষরা যখন ব্যস্ত তখন হুট করে ওপরে উঠে গোলও করে দেন। বা ডি বক্সের বাইরে আনমার্ক থাকা অবস্থায় লম্বা শটে গোলও করেছেন কত।

সুইসদের বিপক্ষে ওই জয়ের পর নেইমার যেমন কাসেমিরোকে বিশ্বসেরা মিডফিল্ডার বলেছিলেন। কখনো কারও মন্তব্যের বিপরীতে মন্তব্য না করা তিতে সেদিন নেইমারের কথায় সহমত জানান। নিজ পরিকল্পনার কেন্দ্রবিন্দুর ব্যাপারে তো আর চুপ থাকতে পারেন না।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত